channel 24

সর্বশেষ

  • জাতীয় দলের নির্বাচক হলেন আবদুর রাজ্জাক

  • ঐতিহ্যের লড়াইয়ে কাল মোহামেডান-আবাহনী মহারণ

  • সুনামগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণ ঘটনায় মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার

  • কক্সবাজার সদর হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ড, অর্ধশতাধিক আহত

  • এএফসি কাপে এক গ্রুপে পড়ার সম্ভাবনা বসুন্ধরা-আবাহনীর

  • ইনজুরির সাথে লড়াই করছেন সাইফুদ্দিন

  • বেনজির ভুট্টোর কন্যার বিয়েতে যাবেন না মরিয়ম

  • তিনি ছিনতাইকারী পুষতেন!

  • অব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে টঙ্গী ভেন্যুর যাত্রা শুরু

  • ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়ের সেরা দশে মিরাজ-মোস্তাফিজ

  • সমালোচনাকারীদেরও টিকা নিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

  • ফুলকপিতে ছত্রাকের আক্রমণ

  • সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলায় ৪ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

  • করোনার প্রথম টিকা নিলেন নার্স রুনু কস্তা

  • টেকনাফে অসহায়দের খাবার, বস্ত্র ও চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে 'মারোত'

ক্লাবের জার্সিতে মাঠ কাঁপিয়ে এখন কোচের ভূমিকায় (পর্ব-১)

ক্লাবের জার্সিতে মাঠ কাঁপিয়ে এখন কোচের ভূমিকায় (পর্ব-১)

ক্লাবের জার্সিতে মাঠে। কারো সুনাম কারো হয় দুর্নাম। কিন্তু কয়জন আছেন, যারা জার্সিতে ক্লাবের হয়ে মাঠ মাতিয়েছেন আবার সেই জার্সিতেই ক্লাবের ডাগআউটে দাঁড়িয়েছেন সেই ক্লাবেরই হয়ে। হুট করে এদের কথা কেন আসছে পাঠকরা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন না।

এমন বিষয়টি ফুটবলপ্রেমীদের সামনে এনেছে ব্লেচার রিপোর্ট ফুটবল। মূলত প্যারিস সেন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) মাউরিসিও পচেত্তিনোকে নিয়োগ দেয়ার পরই বিষয়টি সামনে এনেছে ফুটবল সংবাদ মাধ্যমটি।

পচেত্তিনো ছাড়াও বর্তমানে ইউরোপের বেশিরভাগ জনপ্রিয় দলগুলোর কোচ দায়িত্ব সামলাচ্ছেন দলগুলোর সাবেক খেলোয়াড়রাই। এর মধ্যে স্প্যানিশ লা লিগায় রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ, সেরা তিন দলের অবস্থা একই রকম। একই পথে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে, চেলসি, আর্সেনাল। জার্মান বুন্দেসলিগার দল বায়ার্ন মিউনিখ আর ইতিলিয়ান সিরি আ’র দল জুভেন্টসেরও একই অবস্থা।

মাউরিসিও পচেত্তিনো (পিএসজি)
আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের সাবেক এই ডিফেন্ডার ২০০১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত লিগ ওয়ানের দল পিএসজিতে খেলেছেন। ক্যারিয়ারে স্প্যানিওল, সাউদহ্যাম্পটন ও সবশেষ টটেনহ্যামের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। টটেনহ্যামকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে উঠিয়েছিলেন আগের মৌসুমে। পরে দলের দায়িত্ব থেকে কিছুদিন বাইরে। অনেকদিন অবসরের পর প্যারিসের দলের গুরু হিসেবে দায়িত্বগ্রহণ শুরু করতে যাচ্ছেন। 

খেলোয়াড় হিসেবে তিন মৌসুমে পিএসজির জার্সি গায়ে ৭০ ম্যাচে অংশ নিয়ে গোল দিয়েছেন চারটি। আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের হয়ে ১৯৯৯ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত খেলেছেন ২০ ম্যাচ। যেখানে গোল সংখ্যা মাত্র দুইটি। ১৯৮৯ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ৫০৯টি লিগ ম্যাচ খেলেছেন ৬টি দলের হয়ে। যেখানে সর্বমোট গোল করেছেন ২৬টি।

জিনেদিন জিদান (রিয়াল মাদ্রিদ)
২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত রিয়ালের জার্সিতেই খেলে বর্ণিল ক্যারিয়ারের ইতি টানেন ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপ জয়ী এই কিংবদন্তী ফুটবলার। ২০১৪ সালে রিয়ালের ‘বি’ দলের কোচ নিযুক্ত হন। দুই বছর পর মূল দলের কোচ নিযুক্ত হন। দুই মৌসুম কাটিয়ে জিদান পদত্যাগ করেছিলেন। ২০১৯ সালে আবারও কোচের দায়িত্ব দেয়া হয় তাকে।

খেলোয়াড় হিসেবে ছয় মৌসুমে রিয়ালের জার্সি গায়ে ১৫০ ম্যাচে অংশ নিয়ে গোল দিয়েছেন ৩৭টি। ফ্রান্স জাতীয় দলের হয়ে ১৯৯৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত খেলেছেন ১০৮ ম্যাচ। যেখানে গোল সংখ্যা ৩১টি। এর মধ্যে ১৯৯৮ সালে জাতীয় দলের খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন দলের সদস্য ছিলেন। ২০০৬ সালে অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপের সোনালী ট্রপিতে চুমু দেয়ার সুযোগ হলেও শেষ পর্যন্ত সামর্থ্য হননি। ক্লাব ক্যারিয়ারে চারটি দলের হয়ে মাঠ মাতিয়েছেন। খেলেছেন ৫০৬টি ম্যাচ। গোল করেছেন সর্বমোট ৯৫টি।

রোনাল্ড কোম্যান (বার্সেলোনা)
ক্যারিয়ারের গুরুত্বপূর্ণ সময়টা বার্সেলোনার হয়েই কাটিয়েছেন এই ডাচম্যান। ১৯৮৯ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত ছিলেন নূ ক্যাম্পের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ক্যারিয়ারে সর্বমোট ১০টি ক্লাবের হয়ে ডাগ আউট সামলেছেন কোম্যান। নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের হয়ে জার্সি গায়ে মাঠ মাতিয়ে ২০১৮-২০২০ সাল পর্যন্ত দলটির ডাগ আউটেও দাঁড়িয়েছেন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার এ খেলোয়াড়। বার্সেলোনার মত ক্লাবের অফার পেয়ে জাতীয় দলের কোচের পাঠ চুকিয়ে ২০২০ সালে যোগ দেন কাতালান শিবিরে।

খেলোয়াড় হিসেবে সাত মৌসুমে স্প্যানিশ ক্লাবটির জার্সি গায়ে ১৯২ ম্যাচে অংশ নিয়ে গোল দিয়েছেন ৬৭টি। নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের হয়ে ১৯৮৩ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত খেলেছেন ৭৮ ম্যাচ। যেখানে গোল সংখ্যা ১৪টি। ক্লাব ক্যারিয়ারে পাঁচটি দলের হয়ে খেলেছেন ৫৩৫ ম্যাচ, যেখানে গোল সংখ্যা ১৯৪টি।

ওলে গানার সলশেয়ার (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
২০১৮ সালে হোসে মরিনহো ছাঁটাই হওয়ার পর আপদকালীন কোচের দায়িত্ব পান দলটির হয়ে খেলা সাবেক এই ফরোয়ার্ড। নরওয়ে জাতীয় দল থেকে অবসরের পর স্বদেশী ক্লাব মল্ডে ও ইংলিশ দল কার্ডিফের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা ছিল সলশেয়ার।
খেলোয়াড় হিসেবে ১১ মৌসুম রেড ডেভিলদের জার্সি গায়ে ২৩৫ ম্যাচে অংশ নিয়ে গোল দিয়েছেন ৯১টি। নরওয়ে জাতীয় দলের হয়ে ১৯৯৫ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত খেলেছেন ৬৭ ম্যাচ। যেখানে গোল সংখ্যা ২৩টি। ক্লাব ক্যারিয়ারে তিনটি দলের হয়ে খেলেছেন ৩৮৬ ম্যাচ, যেখানে গোল সংখ্যা ২৩৭টি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্পোর্টস 24 খবর