channel 24

সর্বশেষ

  • সংঘাত নয়, রোহিঙ্গাদের ফেরাতে আলোচনা চলছে: প্রধানমন্ত্রী

  • মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন আধুনিক সময়ের গণহত্যা...

  • নেদারল্যান্ডসের আন্তর্জাতিক আদালতে মামলার শুনানিতে গাম্বিয়া...

  • রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিষয়ে মিয়ানমারের বক্তব্য মিথ্যা...

  • মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যা এখনও চলছে, রোধে ব্যবস্থা নিতে হবে

  • প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি: তারেক রহমান ও মির্জা ফখরুলসহ...

  • বিএনপির ১২ নেতার বিরুদ্ধে ফের মামলা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোল'য় রিয়াল মাদ্রিদ ও টটেনহ্যাম

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোল'য় রিয়াল মাদ্রিদ ও টটেনহ্যাম

রাতের সবচেয়ে বড় ম্যাচে পিএসজির সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। দুই গোলে পিছিয়ে পড়েও অলিম্পিয়াকোসকে হারিয়েছে টটেনহ্যাম। আতলেতিকো মাদ্রিদের সঙ্গে ১-০ গোলে জিতেচে য়্যুভেন্তাস। এদিকে বায়ার্নের বড় জয়ের রাতে দ্রুততম সময়ে চার গোলের রেকর্ড গড়েছেন রবার্ট লেভানডফস্কির।

প্রথম লেগে পিএসজির সঙ্গে ৩ গোলে হারের লজ্জা ভুলতে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে প্রতিশোধের মিশনে নেমেছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। এগিয়ে যায় ১৭ মিনিটে। ইস্কোর শট পোস্টে লেগে ফিরে এলেও লক্ষ্যভেদে সফল করিম বেনজেমা। সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে কেইলর নাভাস দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন।

নাটকীয়তা ছিলো পিএসজির পেনাল্টি বঞ্চিত হবার ঘটনায়ও। ইকার্দিকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখা কোর্তোয়াও শেষ পর্যন্ত বেঁচে গেছেন ভিএআরের কল্যানে। ৭৯ মিনিটে ফ্রেঞ্চম্যান বেনজেমার ডাবল স্ট্রাইকে রিয়াল মাদ্রিদ স্কোরলাইন করে দ্বিগুন। দুমিনিট পর রিয়াল টার্গেট কিলিয়ান এমবাপ্পে ব্যবধান কমান। ঠিক পরপরই নেইমারের ক্যারিশম্যাটিক মুভ। গোলের আনুষ্ঠানিকতা সারেন পাওলো সারাবিয়া।

তুরিনেও ছিলো বড় ম্যাচ। কম বিনোদন আর হিসেবী ফুটবলেই আরেক বড় ম্যাচের হার্ডল পার করেছে মাওরিজিও সারির য়্যুভেন্তাস। প্রথমার্ধের ঠিক আগে সামান্য অ্যাঙ্গেল থেকেও দারুন এক ফ্রি কিকে স্বাগতিকদের লিড এনে দেন পাওলো দিবালা। ৬৭ মিনিটে ফ্রেদেরিকো বার্নার্দেশকির শট পোস্টে লেগে ফিরলেও  মিস হয়নি য়্যুভের গ্রুপ ডি এর শ্রেষ্ঠত্ব। আর ২০০৯ এর পর টানা দুই গ্রুপ ম্যাচে হারা আতলেতিকোকে শেষ দিন পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হবে  নকআউটে টিকিটের জন্য।

নিজের দ্বিতীয় ম্যাচে মুদ্রার উল্টো পিঠ দেখতে চলেছিলেন জোসে মরিনিয়ো । লন্ডনে অলিম্পিয়াকোসের সঙ্গে ৬ আর ১৯ মিনিটে দুই গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়ে টটেনহ্যম।

তবে বিরতির ঠিক আগে ও পরে ডেলে আলি এবং হ্যারি কেইনের গোল সমতায় ফেরায় স্পার্সকে। ৭৩ মিনিটে সার্জ অরিয়ের এর বুলেট শটে স্কোরলাইন ৩-২ করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বর্তমান রানার্স আপরা। এরপর হ্যারি কেনের গোল্ডেন টাচ টটেনহ্যামের জয় আর নকআউটের টিকিট দুটোই নিশ্চিত করে।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ইতিহাসে দ্রুততম সময়ে চার গোলের রেকর্ড করেছেন রবার্ট লেভানডফস্কি।  ৫৩ থেকে ৬৭ এই ১৪ মিনিট ৩১ সেকেন্ডে কোয়াড্রপল পূর্ণ করেন পোলিশ স্ট্রাইকার।  বেলগ্রেডে ৬-০ গোলের জয়ে গ্রুপসেরা জার্মান চ্যাম্পিয়নরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্পোর্টস 24 খবর