channel 24

সর্বশেষ

  • শিরোপা অক্ষুন্ন রাখার মিশনে প্রস্তুত টাইগার যুবারা

  • দুর্নীতির মামলায় সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান খান ও তার স্ত্রীর বিচার শুরু

  • সোমবার থেকে লাখ লাখ স্মার্টফোনে বন্ধ হচ্ছে গুগলের সেবা

  • খুলেছে ঢাবি গ্রন্থাগার, কর্তৃপক্ষের নির্দেশ উপেক্ষা চাকরিপ্রার্থীদের

  • সাড়ে ১০ হাজার শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য

  • নাসিরনগরে পানিতে ডুবে যমজ ভাই-বোনের মৃত্যু

  • এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ, পিছিয়েছে বিএনপি: কাদের

  • বিমানবন্দরে পরীক্ষামূলকভাবে আরটিপিসিয়ার ল্যাব চালু

  • তেলের মিলের পাশে পড়ে ছিলো আনসার কমান্ডারের লাশ

  • স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে মাস্ক ও হ্যান্ড সেনিটাইজার পেল গার্ল গাইডস

  • কুষ্টিয়ায় ব্যাংক কর্মকর্তা খুন: বিচার চেয়ে পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

  • ‘সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর সিদ্ধান্ত সময়োপযোগী নয়’

  • রাজবাড়ীতে গাছ কাটতে গিয়ে বিস্ফোরণ, নারীসহ আহত ৩

  • দেশে করোনায় মৃত্যু কমলো, বাড়লো শনাক্ত

  • আসছে নুরের নতুন রাজনৈতিক দল, নেতৃত্বে রেজা কিবরিয়া

অদ্ভুত আইনি বেড়াজালে পেশা বাঁচাতে হাইকোর্টে সুন্দরবনের জেলেরা

অদ্ভুত আইনি বেড়াজালে পেশা বাঁচাতে হাইকোর্টে সুন্দরবনের জেলেরা

এক অদ্ভুত আইনি জটিলতায় সুন্দরবন এলাকায় ট্রলারে কাকড়া আনা বন্ধ করেছে বন বিভাগ। এ অবস্থায় পেশা বাঁচাতে হাইকোর্টে এসেছেন ৬ জেলে। যাদের জীবিকার প্রধান মাধ্যম কাকড়া ধরা। আর এই ৬ জেলের করা রিটে জড়িত প্রায় ১ হাজার জেলের জীবিকা।

লকডাউনে যখন প্রকৃতির নীড় ছুয়ে সমুদ্রের তীরে ভীড়ছিলো কাকড়ার দল। ঠিক তখনই কাকড়া নিয়ে হাইকোর্টে এলে এক অদ্ভুত মামলা। সুন্দরবনের দুবলার চর। এখান থেকে নৌপথে খুলনার দূরত্ব ৭০ থেকে ৭৫ কিলোমিটার। যেখানে ডিঙি নৌকায় যেতে লাগে ৩০-৩৫ ঘণ্টা। ট্রলারে যেতে লাগে ৬ ঘণ্টা। এ এলাকার মানুষের জীবিকার প্রধান মাধ্যম মাছ ধরা।

আরও পড়ুন: তীব্র স্রোতের কারণে বারবার পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা

আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদা বাড়ায় কাকড়া ধরা এখন অনেক জেলার প্রধান পেশা। কিন্তু এক অদ্ভুত নিয়মের বেড়াজালে পড়ে গেছেন এখানকার ১ হাজার জেলে। 

নিবন্ধন করা ট্রলারে পশুর নদী ব্যবহার করে মাছ পরিবহনের অনুমতি আছে বনবিভাগের। তবে অনুমোদন নেই কাকড়া বহনের। এমন দ্বৈত নীতি চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেছেন ৬ জেলে। 

পশুর নদীর ট্রলার চলার সবশেষ তথ্য ২৫ আগস্টের মধ্যে জানাতে বলেছেন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের বেঞ্চ। এরপর ঠিক হবে কাকড়াদের ভাগ্য। 

জেলেদের দাবি, টাকার বিনিময়ে সেই রুটে কাকড়া যেতে দেয় বনের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা। তবে এই পথে বৈধ উপায়ে কাকড়া পরিবহনের অনুমতি চান জেলেরা।

একেএম/

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর