channel 24

সর্বশেষ

  • শেষ হলো বাইডেন-পুতিনের ঐতিহাসিক বৈঠক

  • রোহিঙ্গাদের ভোটার করার ঘটনায় দুদকের আরও দুই মামলা

  • মানবদেহে ট্রায়ালের অনুমতি পাচ্ছে বঙ্গভ্যাক্স

  • ‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ওআইসি দেশগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান’

  • ‘দেশ-বিদেশে যে অপপ্রচার হয়েছিল তার জবাব দেয়ার প্রয়োজন নেই’

  • বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ সাব্বিরের বিরুদ্ধে

  • সুপার লিগ নিশ্চিত করেছে চার দল

  • 'বাংলাদেশ টাইগার্স' নামে আসছে নতুন ক্রিকেট দল

  • ব্যাংকিং খাতে খেলাপির হার বেড়েছে কয়েক গুণ

  • স্বামীর খোঁজে সংবাদ সম্মেলনে ধর্মীয় বক্তা ত্ব-হার স্ত্রী

  • অজিদের নানান জটিল শর্তে চিন্তায় বিসিবি

  • পরীমণি-কাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়া তিন নারী কারা?

  • ‘ত্রাণ চাই না, বাঁধ চাই’ সংসদে শাহজাদা

  • বোটক্লাবের আগের রাতে গুলশানের অভিজাত ক্লাবে পরীমণির তুলকালাম কাণ্ড

  • কুষ্টিয়ায় নৃশংসতার পর এবার সিলেটেও তিন খুন

ফলন ঠিক রেখে ধানী জমি কমাতে হাইব্রিড জাত চান কৃষিবিদরা

ফলন ঠিক রেখে ধানী জমি কমাতে হাইব্রিড জাত চান কৃষিবিদরা

সাড়ে ৫ কোটি টন ধান উৎপাদন করে বিশ্বে তৃতীয় এখন বাংলাদেশ। তবে ধান উৎপাদনে বিশ্বে তৃতীয় হলেও, হেক্টর প্রতি ফলনে অনেক পিছিয়ে। পুষ্টি নিরাপত্তা বলয় ঠিক রাখতে, শস্য বহুমুখীকরণ করতে হবে। সেক্ষেত্রে ধান উৎপাদনে উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড জাত চাষের পরামর্শ কৃষিবিদদের।

আমাদের দেশে ধান উৎপাদনে মোট আবাদি জমি লাগে ৮০ ভাগ অর্থাৎ ১ কোটি ২০ লাখ হেক্টর। অথচ চীন সমপরিমান ধান উৎপাদন করতে সক্ষম ৭৫ লাখ হেক্টরে, মিশর ৩৫ লাখ হেক্টরে এবং যুক্তরাষ্ট্র ৪৪ লাখ হেক্টরে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তেল, ডাল, ফলমুলসহ বিভিন্ন পুষ্টিকর খাদ্যপণ্যের আমদানি নির্ভরতা কমাতে হলে বাংলাদেশকেও হাঁটতে হবে, মিশর, যুক্তরাষ্ট্র কিংবা চীনের পথে।

কৃষিবিদ কেএসএম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, হাই ব্রিড ধান থেকে ২০ থেকে ২৫ ভাগ ধান বেশি উৎপাদন হবে। এতে ২০ থেকে ২৫ ভাগ জমি বেচে যাবে যেখানে আমরা  অন্য ফসল উৎপাদন করতে পারি।

কৃষিবিদদের এমন পরামর্শ আমলে নিয়ে, আসন্ন বোরো মৌসুমে প্রায় ১২ লাখ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড ধান আবাদ করবে সরকার। যা গেল বছরের তুলনায় ২ লাখ হেক্টর বেশি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর মহাপরিচালক মোহাম্মদ আসাদ উল্লাহ বলেন, ২ লক্ষ হেক্টর জমি মানে ২ লক্ষ মেট্রিকটন ফলন বৃদ্ধি করা। ২ লক্ষ মেট্রিকটন ফলন করতে আমার নরমাল যে জাত আছে তাতে জমি লাগবে ৫০ হাজার হেক্টর। তাহলে এই ৫০ হাজার হেক্টর জমি আমি পরিপূর্ণ পাচ্ছি। 

তবে দেশে উৎপাদিত হাইব্রিড ধানের মাতৃবীজ আসে বিদেশ থেকে। এই বিদেশ নির্ভরতা কমাতে দেশেই হাইব্রিড ধানের জন্য আলাদা গবেষণা প্রতিষ্ঠান চান সংশ্লিষ্টরা।

সুপ্রীম সীড কোম্পানী চেয়ারম্যান কৃষিবিদ মোহাম্মদ মাসুম বলেন, এই গবেষণায় দৃষ্টি আনার জন্য হাইব্রিড রাইস রিসার্চ ইনিস্টিউড জাতীয় কিছু একটা আমাদের এখানে হওয়া উচিত। যাতে একমাত্র হাইব্রিডের উপর গবেষনা করা যায়।

২০৫০ সালের মধ্যে দেশের মোট ধানের ৫০ ভাগ আসবে হাইব্রিড জাত থেকে। এজন্য একটি একটি হাইব্রিড ধান গবেষণা কেন্দ্র চালুর প্রস্তাব আছে মন্ত্রণালয়ে।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিউটের মহাপরিচালক ড. শাহজাহান কবির বলেন, 'আমরা আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী এগুচ্ছি। আশা করি খুব দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।'

আসন্ন বোরো মৌসুমে ৪৭ লাখ ৮৫ হাজার হেক্টরে জমিতে চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ কোটি ৪ লাখ টন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর