channel 24

সর্বশেষ

  • যাবজ্জীবন সাজা: বিয়ে করলেই মিলবে জামিন- হাইকোর্ট

  • এক টুর্নামেন্ট দিয়ে ক্রিকেটারদের মূল্যায়ন সম্ভব নয়: কোচ ডমিঙ্গো

  • শুরু হলো দুর্গাপূজা, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভক্তদের আরাধনা

  • কাল শুরু ফুটবল দলের ক্যাম্প

  • বৃষ্টির শঙ্কায় দুদিন পিছিয়ে প্রেসিডেন্টস কাপের ফাইনাল রোববার

  • রোনালদো ফের করোনা পজিটিভ

  • সেন্টমার্টিনে আটকা পড়লো সাড়ে চারশো পর্যটক

  • বরের বয়স ৯৫, কনের ৮০!

  • টাঙ্গাইলে কলেজ ছাত্রী গণধর্ষণ মামলায় এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি

  • রোহিঙ্গাদের জন্য ৩৫ কোটি ডলার সহায়তার প্রতিশ্রুতি

  • গাজীপুরে পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণের ঘটনায় আটক ৫

  • খোরাকি ভাতা মেনে নেয়ার প্রতিশ্রিতেত নৌ-ধর্মঘট প্রত্যাহার

  • পরীক্ষা ছাড়া উপরের শ্রেণিতে উঠার সিদ্ধান্ত মন্দের ভালো, বলছেন শিক্ষাবিদরা

  • জলপাইয়ের তেল বা অলিভ অয়েলের উপকারিতা

  • মালচিং পদ্ধতিতে চাষাবাদ

আগুনে পোড়া রোগীর কপালও যেন পোড়া

আগুনে পোড়া রোগীর কপালও যেন পোড়া

পোড়া রোগীর কপালও যেন পোড়া। দেশে গড়ে ১০ হাজার আগুনে পোড়া রোগীর জন্য চিকিৎসক মাত্র একজন। অন্য কোথাও ব্যবস্থা নেই, কেবল রাজধানী ঘিরেই গড়ে উঠেছে চিকিৎসা ব্যবস্থা। অথচ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হলে কাজে লাগানো যেত গোল্ডেন আওয়ার। গুরুত্বপূর্ণ ১৪ জেলায় বার্ন ইউনিট কাজ শুরুর কথা থাকলেও তা আজও আলোর মুখ দেখেনি।

হঠাৎ বিস্ফোরণ, মুহুর্তেই মানুষের আর্ত চিৎকারে ভারী হয়ে ওঠে বাতাস। হাসপাতালের কড়িডোর থেকে শুরু করে  সিসিউ আইসিইউ সবখানে ছড়িয়ে যায় মানুষের দীর্ঘশ্বাস। এমন ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে বাংলাদেশে। দিনে দিনে দগ্ধ মানুষের সংখ্যা বাড়লেও চিকিৎসার আয়োজন একেবারেই অপ্রতুল। 

দেশে বছরে প্রায় ৭ লক্ষ মানুষ আগুনে পুড়ে যায়। অথচ এ রোগীদের জন্য চিকিৎসক আছেন মাত্র ৮০ থেকে ৯০ জন। বেডের সংখ্যা হাজারেরও কম। বিশেষায়িত নার্স আছে মাত্র ৪০০ থেকে ৫০০ জন।

শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট  কিছুটা আশার আলো দেখালেও ঢাকার বাইরে পোড়া রোগীর চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা, দগ্ধ রোগীর মতোই করুণ।

৫০০ বেডের শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বার্ন হাসপাতাল হলেও, দক্ষ জনবলের অভাব এখানে চোখে পড়ার মতো।

শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট ছাড়াও দেশে আরো ১৪টি মেডিকেল কলেজে বার্ন ইউনিট রয়েছে। তার একটিতেও নেই পর্যাপ্ত জনবল, প্রয়োজনীয় আইসিইউ।  বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বার্ন রোগীদের জন্য প্রথম ২৪ ঘণ্টাই গোল্ডেন আওয়ার।

স্বাস্থ্য সচিব বলছেন, চিকিৎসা নিশ্চিতে কাজ চলছে।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পর্যাপ্ত চিকিৎসা কাঠামোর সাথে সাথে পুড়ে যাওয়া রোগীর তাৎক্ষণিক চিকিৎসা নিয়েও বাড়াতে হবে সচেতনতা। এখনও অধিকাংশ বার্ন রোগীকে প্রাথমিক ভাবে ডিম, পেস্ট লাগানো হয়। পোড়া স্থানে দেয়া হয় বরফ পানি। যা ক্ষত কমানোর চাইতে বাড়িয়ে দেয়। সেক্ষেত্রে পুড়ে যাওয়া জায়গায় প্রাথমিকভাবে কলের পানি, অথবা লোশন লাগানোর পরামর্শ চিকিৎসকদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর