channel 24

সর্বশেষ

  • বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ আয়োজনে মরিয়া শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট

  • দেশে কওমি শিক্ষার প্রসারে অবদান রাখেন আল্লামা শফি

  • নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন সভাপতি প্রার্থী বাদল রায়

  • মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু

  • আল্লামা শফী মারা গেছেন

  • মানিকগঞ্জে শ্রমিক জুলহাসকে পায়ুপথে বাতাস দিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা

  • বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়!

  • নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিহত ১

  • মাগুরায় দুই বাস-মাইক্রোবাসের ত্রিমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৪

  • রংপুরে একই বাড়ি থেকে দুই বোনের মরদেহ উদ্ধার

  • বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সফর: বিসিবির চিঠির উত্তর দেয়নি এসএলসি

  • ক্রিকেটারদের দ্বিতীয় ধাপের করোনা পরীক্ষা শুরু

  • পচাত্তরের কুশীলবরা এখনো আশপাশে ওৎ পেতে আছে: শ ম রেজাউল

  • দেশে করোনায় আরও ২২ জনের মৃত্য, শনাক্ত ১৫৪১

  • ইসরায়েলের সাথে আরব রাষ্ট্রের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার উদ্যোগের প্রতিবাদ

চার শীর্ষ ব্র্যান্ডের বনস্পতি ঘিতে ১০ গুণ বেশি ক্ষতিকর ট্রান্সফ্যাট

চার শীর্ষ ব্র্যান্ডের বনস্পতি ঘিতে ১০ গুণ বেশি ক্ষতিকর ট্রান্সফ্যাট

বেকারি ও ফাস্টফুড পণ্য তৈরিতে ব্যবহৃত ডালডা বা বনস্পতি ঘিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক সুপারিশ করা মাত্রার চেয়ে ১০ গুণেরও বেশি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ট্রান্সফ্যাট পাওয়া গেছে। সম্প্রতি ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, ভোক্তা অধিকার রক্ষা সংগঠন ক্যাব এবং বেসরকারি সংস্থা প্রজ্ঞার যৌথ গবেষণায় উঠে এসেছে এ তথ্য।

পারশিয়ালি হাইড্রোজেনেটেড অয়েল বা পিএইচও; সহজ ভাষায় ডালডা বা বনস্পতি ঘি। যার ব্যবহার মূলত বেকারি পণ্য বা ফাস্ট ফুড তৈরিতে। মুখরোচক হওয়ায়, এসব খাবার সব বয়সীদেরই পছন্দ।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে,  দেশের বাজারে যে ডালডা পাওয়া যায়, তার ৯২ শতাংশ নমুনায় মাত্রার চেয়ে বেশি ট্রান্স ফ্যাটি এসিড বা ট্রান্সফ্যাট পাওয়া গেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে, ১০০ গ্রাম ডালডায় ট্রান্সফ্যাট থাকার কথা মাত্র ২ গ্রাম। অথচ দেশের চারটি শীর্ষ ব্র্যান্ডের ডালডাতে সর্বোচ্চ ট্রান্সফ্যাটের উপস্থিতি মিলেছে প্রায় ২১ গ্রাম। আবার একই ব্রান্ডের আলাদা ৭টি নমুনায় দেখা গেছে ট্রান্সফ্যাটের তারতম্যও। মিলেছে সর্বনিম্ন ১ গ্রাম থেকে সর্বোচ্চ সাড়ে ১৪ গ্রাম পর্যন্ত। সবমিলিয়ে গড়ে প্রতি ১০০ গ্রাম ডালডায়, ট্রান্সফ্যাট মিলেছে ১১ গ্রাম। গবেষকরা বলছেন, যা বাড়াচ্ছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি।

খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুত প্রক্রিয়ায় ক্ষতিকর ট্রান্সফ্যাটের মাত্রা কমিয়ে আনতে, দ্রুত নীতিমালা প্রণয়নের তাগিদ গবেষক ও ভোক্তা প্রতিনিধিদের।

২০০৩ সালে সর্বপ্রথম ডেনমার্ক এবং সবশেষ চলতি বছর মে মাসে তুরস্ক, খাদ্যদ্রব্যে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা নির্ধারিত পরিমাণ ট্রান্সফ্যাট রাখার উদ্যোগ নেয়।

দ্রুত সবধরনের ফ্যাট, তেল ও খাদ্যদ্রব্যে ট্রান্সফ্যাটের সর্বোচ্চ সীমা মোট ফ্যাটের ২ শতাংশ নির্ধারণ এবং তা কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন গবেষকরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর