channel 24

সর্বশেষ

  • খুলনায় অনলাইনে বিক্রি হবে কোরবানির পশু

  • এসিসির বৈঠক ছাড়াই এশিয়া কাপ স্থগিতের ঘোষণা দিলেন সৌরভ গাঙ্গুলি

  • মেসিডোনিয়ায় ১৪৪ বাংলাদেশি অভিবাসন প্রত্যাশী আটক

  • গেলো ৩ মাসের তুলনায় শেষ ৩০ দিনেই শনাক্ত প্রায় দ্বিগুণ

  • রাঙ্গামাটিতে বিআরডিবি পরিদর্শকের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

  • চট্টগ্রামে জাল নোট প্রতারক চক্রের ১ সদস্য আটক

  • পাহাড়ে বাড়ছে অস্ত্রের ঝনঝনানি, দুই দশকে প্রাণ গেল ৮ শ' জনের

  • করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে আরও ৬০ হাজার আক্রান্ত

  • রিজেন্ট হাসপাতালের মিরপুর শাখাও সিলগালা

  • 'বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে সরকারি নীতি-কৌশলের সাথে যুক্ত করতে হবে'

  • লিচুর পুষ্টিগুণ

  • মরিচ গাছের ঢলে পড়া রোগ

  • বৃষ্টির বাধায় ক্রিকেটের প্রত্যাবর্তন ম্যাচ

  • কোরবানির পশুর বেচা-বিক্রি নিয়ে উদ্বিগ্ন নাটোরের খামারীরা

  • স্বাস্থ্যখাতের লাগামহীন অনিয়ম নিয়ে সংসদে সমালোচনা

করোনা চিকিৎসা: 'আমরা চাই না হাসপাতালটি বন্ধ হোক'

করোনা চিকিৎসা: 'আমরা চাই না হাসপাতালটি বন্ধ হোক'

বেসরকারি পর্যায় থেকে সম্পূর্ণ বিনা খরচে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে সাজেদা হাসপাতাল। ওষুধ, খাবার, আইসিইউ-সহ সব সুবিধা রোগীরা পাচ্ছেন বিনা খরচে। ফলে প্রতিমাসে এই হাসপাতালের খরচ হচ্ছে দেড় কোটি টাকা। সরকারের সাথে চুক্তি অনুযায়ি এভাবে চলবে জুন পর্যন্ত। তবে, এভাবে বিনা খরচে আর কতদিন সেবা দিতে পারবেন তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। তবে হুট করে হাসপাতালটি বন্ধ করে দেবার কথা ভাবছে না কর্তৃপক্ষ। তাই এই হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসা যাতে বন্ধ না হয় সেজন্য আর্থিক সহায়তা জরুরি বলে মনে করে হাসপাতালটি।

নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে সম্পূর্ণ বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দিচ্ছে, সাজেদা হাসপাতাল। করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্যে গত ২১ মার্চ থেকে সাজেদা ফাউন্ডেশন তাদের কাজ শুরু করে। এবং এই হাসপাতালে প্রতিটি রোগীকে দেওয়া হয় বিনামূল্যে ওষুধ এবং খাবার।

৫০ শয্যা আর ৪ আইসিইউ-এর এই হাসপাতালে অধিকাংশই নারায়ণগঞ্জ ও এর আশপাশের মানুষ চিকিৎসা নেন।

বেসরকারি হলেও এই হাসপাতাল থেকে বিনা খরচে চিকিৎসা পান তারা। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, হলো--আইসিইউ ও ডায়ালাইসি্ও সেবা দেয়া হয় বিনে পয়সায়, ঠিক তেমনি খাবার পেতেও কোন খরচ নেই রোগীদের।  

তবে, সরকারের কাছ থেকে কারিগরী সহায়তা পেয়ে থাকেন তারা। সরকারি চিকিৎসক নিয়োগ দেবার কথা থাকলেও এখানে আছেন প্রেষণে আছেন মাত্র ১ জন চিকিৎসক।  ফলে অন্যান্য চিকিৎসক ও স্টাফদের খরচ বহন করছে এই হাসপাতাল।

যেসব কর্মকর্তারা এখানে কাজ করছেন হাসপাতালের ব্যবস্থাপনায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন তারা ।

তবে, আশার মাঝেও কিছুটা শঙ্কার আভাস পাওয়া গেলো এই পরিচালকের কণ্ঠে। জানালেন, সরকারি বা বেসরকারি পর্যায় থেকে আর্থিক সহায়তা না পেলে সামনের দিনে বিনে পয়সায় সেবা দেয়া সম্ভব হবে না।  

সাজেদা হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে এরইমধ্যে ১শ ৫০ জনের বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর