channel 24

সর্বশেষ

  • একাডেমি কোচদের পাশে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা

  • কুড়িগ্রামে বাসের ধাক্কায় এক পথচারি নিহত

  • মানবপাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা হাজী কামাল কারাগারে

  • ভাড়া বেশি নেয়ায় শ্যামলী পরিবহনকে ১০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড

  • ওয়াদা পূরণের লক্ষ্যে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করছি: তাপস

  • ইতালিয়ান লিগের সূচি চূড়ান্ত

  • করোনা আক্রান্ত হয়েছিলো বার্সেলোনার ৫ ফুটবলার

  • অলরেডরা চ্যাম্পিয়ন হলে বিজয় প্যারেড হবে: ইয়ুর্গেন ক্লপ

  • আরো এক বছর বার্সেলোনায় থাকছেন মেসি

  • পরিবহন সিন্ডিকেটের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে সরকার: রিজভী

  • ভার্চুয়াল কোর্ট নিয়ে আইনজীবীদের সতর্ক করলেন হাইকোর্ট

  • যাত্রী বাড়লেও, অর্ধেক আসন খালি রেখেই বাস চলবে: সেতুমন্ত্রীর প্রত্যাশা

  • করোনায় মারা গেছেন ইউরোলজিস্ট ডা. মনজুর রশীদ চৌধুরী

  • দেশে একদিনে শনাক্তের রেকর্ড ২৯১১ জন, মৃত্যু ৩৭

  • কুমিল্লায় পল্লী বিদ্যুতের ঠিকাদারের ক্রেন চাপায় একজন নিহত

নিম্নবিত্তের প্রতিদিনের খাবার জোটাতে নীরব আর্তনাদ

নিম্নবিত্তের প্রতিদিনের খাবার জোটাতে নীরব আর্তনাদ

করোনা পরিস্থিতিতে ফাঁকা রাজধানী ঢাকা। তাতেই ঢাকা পড়েছে, নগরীর নিম্নবিত্তের আয়ের সব পথ। তারপরও ক্ষুধায় জ্বালাও বাধ্য হয়ে, ঘরের বাইরে বেরুচ্ছেন হতভাগা কিছু মানুষ। নেই কাজ, নেই আয়। এ অবস্থায় দিশেহারা দিন এনে দিন খাওয়া এসব মানুষ। নীরব আর্তনাদ ছাড়া কিছুই যেন করার নেই তাদের।

শুধু ১৪ দিন নয়, ১৪ মিনিট কিংবা ১৪ সেকেন্ডের জন্যও গৃহবন্দী হওয়া সম্ভব নয় খেটে খাওয়া মানুষের। ৪৮ বছর ধরে তিন চাকার প্যাডেলে জীবন বাঁচিয়ে রাখা রিক্সাচালক মানুষটির কাছে করোনা তাই কোনো আতংক নয় আতংক ক্ষুধা।

বয়সের ভারে শরীর যখন আর চলে না এমন অবস্থায় চেয়ে-চিন্তে জোগাড় করা দুমুঠো অন্নই ছিলো এসব মানুষের ভরসা। দেশের এমন সংকটে সেই ভরসাও যেনো চোখের জলে ভিজে একাকার। কি হবে তার আর কিভাবেই বা সে সামলাবে পরিবার।

তাঁরা বলছেন, রাত থেকে ঘুরছি, কিছুই পাইনি খাবার। বাচ্চাও কাঁদে সাথে কাঁদছে মাও। সবাই বলে যাউগা যাউগা। রাস্তায় বের হলেই চোখে পড়ে নিম্নবিত্তের এমন হাহাকার, করোনা যাদের করছেনা একটুও করুনা।

শূণ্য ঢাকা যেনো ঢেকে দিয়েছে আয়ের সবপথ এরপরও যে পেট শোনেনা কোনো বারন, আর তাইতো শূণ্যতার মাঝেও পেটে পাথর বেঁধে অন্নের যোগানে তাদের এই নিত্য আর্তনাদ।

এক রিক্সাচালক বলছেন, তেমন কোন আয় নেই, তারপরেও এই রোদের মধ্যে ঘুরছি। আমরা আর কি করবো, আমাদের তো এছাড়া পথ নেই।

তাঁরা কোণ অভিযোগ করছেন না, প্রতিনিয়ত বাঁচার জন্য লড়াই করে যাচ্ছেন। তাঁদের কাছে করোনাভাইরাসের আতংক কতটুকু পৌছাতে পেরেছে তা এখন প্রশ্নের বিষয়। তবে অনেকেই বলছেন, কী সাহায্য করছেন কেউ করছেন না। এখনও তাঁরা আশায় বুক বেধে রাস্তায় নামেন, অন্তত কেউ এই মানুষগুলোর পাশে এসে দাঁড়াবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর