channel 24

সর্বশেষ

  • ১০ হাজার দুস্থ মানুষকে খাওয়াচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলী

  • জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাজধানীতে প্রবেশ ও বের হওয়ায় নিষেধাজ্ঞা

  • আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের নিষেধাজ্ঞা বাড়লো ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত

  • ভিডিও কনফারেন্সে সুপ্রিম কোর্ট শিশু অধিকার কমিটির বৈঠক

  • রাজস্ব আদায়ে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ বেশ সফল: অর্থমন্ত্রী

  • ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়লো সাধারণ ছুটি

  • দেশে করোনায় আরো ১ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৮: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • করোনায় বিধ্বস্ত বিশ্ব; প্রাণহানি ছাড়ালো ৬৪ হাজার, আক্রান্ত ১২ লাখের বেশি

  • পাইকার সংকটে দাম পাচ্ছে না যশোরের সবজি চাষীরা

  • করোনার প্রভাবে কেমন আছে পথে অবাধে বিচরণ করা কুকুর ?

  • হবিগঞ্জের রেমা কালেঙ্গা বনাঞ্চলে চলছে গাছ কাটার মহোৎসব

  • যুক্তরাষ্ট্রে করোনা মোকাবিলায় ২ লাখ কোটি ডলারের তহবিল ঘোষণা

  • করোনা মোকাবিলায় প্রায় ৭৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

  • চাহিদা কমায় দুধ সংগ্রহ কমিয়েছে মিল্কভিটাসহ অনেক প্রতিষ্ঠান

  • বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই কাজ করছেন কর্মীরা

কোয়ারেন্টিনের দীর্ঘ সময় সম্পর্ক মধুর-তিক্ত দুটিই হতে পারে

কোয়ারেন্টিনের দীর্ঘ সময় সম্পর্ক মধুর-তিক্ত দুটিই হতে পারে

করোনা প্রভাব ফেলেছে, গোটা বিশ্বের মানুষের জীবনযাত্রায়। থমছে গেছে স্বাভাবিক কার্যক্রম। এই সময়টায় প্রিয়জনের সাথে সশরীরে নয়, দেখা হচ্ছে, ভিডিও চ্যাটে। মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, কোয়ারেন্টিনে দীর্ঘ সময় একই বাড়িতে থাকায়, স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক আরও গাঢ় হতে পারে; তবে কখনও কখনও হতে পারে এর উল্টোটাও।

৩০ বছর বয়সী যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক এমিলি। কিছুদিন আগে লন্ডনের একটি পাবে পরিচয়ের পর প্রেম হয় একজনের সাথে। কিন্তু শুরুতেই বিপত্তি। দ্বিতীয়বারের মত দেখা করার পরিকল্পনার সময়, করোনার থাবা বিশ্বজুড়ে।

এরপর এখনও আর দেখা হয়নি তাদের। তবে থেমে নেই দুজনের যোগাযোগ। একসাথে সময় কাটানোর বিকল্প পথও বের করেন তারা। রাতের খাবার, পানীয়সহ ভিডিও ডেইটের পরিকল্পনা করেন দুজন।  

এমিলি জিওকা বলেন, যখনই ভালো লাগার মানুষকে খুঁজে পেলাম, তখনই করোনা ভাইরাসের কারণে একজন আরেকজনের কাছে থেকে দূরে থাকতে হচ্ছে! এভাবে ভিডিও চ্যাটের মাধ্যমে আমাদের সাক্ষাৎ হয়ত অদ্ভুদ। কিন্তু এছাড়া কোন উপায়ও নেই।

বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থার পরিবর্তনের পাশাপাশি কোভিড-19 বদলে দিয়েছে মানুষের দৈনন্দিন স্বাভাবিক জীবনযাপনের ধরণ। যার প্রভাব পড়ছে মানুষের সম্পর্কের ওপরও।   

বাধ্য হয়ে কর্মক্ষেত্র ফেলে অনেককেই দিনের পর দিন থাকতে হচ্ছে ঘরে। একজন মনোবিদ বলছেন, বিবাহিত যুগলের জন্য এমন ভিন্নভাবে জীবনযাপন করাটা বেশ চ্যালেঞ্জের।

সাইকোলজিস্ট ডা. ওয়েন্ডি ডিকিনসন বলেন, অনেক স্বামী-স্ত্রীকেই দীর্ঘ সময় একই ছাদের নিচে থাকতে হচ্ছে তাও আবার একেবারেই অন্যরকমভাবে, কোয়ারেন্টিনে। যেখানে শারীরিক সম্পর্কও নিরাপদ নয়। অনেকক্ষেত্রেই ঘরে এমন অবরুদ্ধ হয়ে থাকাটা সম্পর্কে তিক্ততার কারণও হতে পারে।

তবে, শুধুই কি তিক্ততা! নাকি এর ইতিবাচক দিকও রয়েছে।

ডা. ওয়েন্ডি ডিকিনসন বলেন, অবশ্যই এর ভালো দিকও আছে। কারণ অনেক সময় কর্মব্যস্ততায় একজন আরেকজনকে সময় দিতে পারেন না। কিন্তু এখন দুজনের হাতেই অনেক সময়। ফলে এটি সম্পর্ককে আরো গাঢ়ো করে তুলবে।

যুক্তরাষ্ট্র কিংবা যুক্তরাজ্যে আড্ডা দেয়া কিংবা সময় কাটানোর জায়গাগুলো এখন অনেকটাই ফাঁকা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর