channel 24

সর্বশেষ

  • বিশ্বজুড়ে ভারি হচ্ছে লাশের পাল্লা, প্রাণহানি ছাড়িয়েছে ৯০ হাজার

  • রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা সংক্রমন রোধে বিশেষ ব্যবস্থা

  • শবে বরাতে ঘরে বসে ইবাদতের পরামর্শ, কবরস্থান-মাজারে যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা

  • দেশে প্রথমবারের মতো একদিনে আক্রান্ত শতাধিক

  • খাগড়াছড়িতে হামের প্রকোপ, আক্রান্ত ২ শতাধিক শিশু

  • অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর স্থগিত

  • লকডাউনের পরও রাজধানীতে মানুষকে ঘরে রাখা যাচ্ছে না

  • ব্যক্তিগত-প্রাতিষ্ঠানিক ত্রাণের তালিকায় নেই শিশু খাদ্য

  • নারায়ণগঞ্জে ডিসি, সিভিল সার্জনসহ কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টিনে

  • ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে ৫ টাকায় সবজি বাজার

  • নাটোরের সিংড়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে গৃহবধূর মৃত্যু, পুরো গ্রাম লকডাউন

  • চট্টগ্রামে আরো তিনজন করোনারোগী সনাক্ত

  • বগুড়ায় গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যা, স্বামী পলাতক

  • চাঁদপুর অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউন

  • ঠাকুরগাঁওয়ে ওএমএস’র ৬৩০ বস্তা চাল জব্দ, আটক ১

করোনা আতঙ্কে সাধারণ সর্দি-কাশিতেও চিকিৎসা মিলছে না, দিশেহারা ভুক্তভোগী

করোনা আতঙ্কে সাধারণ সর্দি-কাশিতেও চিকিৎসা মিলছে না, দিশেহারা ভুক্তভোগী

করোনা ভাইরাস আতঙ্ক পেয়ে বসেছে, রাজধানীর হাসপাতালগুলোকে। শ্বাসকষ্ট তো দূরের কথা, সাধারণ সর্দিকাশি নিয়ে গেলেও, রোগীর চিকিৎসা করতে চাইছে না, অনেক হাসপাতালই। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে, আইইডিসিআরের কোভিড নাইনটিন পরীক্ষার দীর্ঘসূত্রতা। ফলে বিনা চিকিৎসায় দুর্ভোগ, এমনকি প্রাণহানিরও শঙ্কা করছেন কেউ কেউ। সংকটময় এই পরিস্থিতির কথা স্বীকারও করেছে, আইইডিসিআর।

৮১ বছরের খোদেজা বিবি দীর্ঘদিন থেকে ভুগছেন শ্বাসকষ্টে। ওমরাহ হজ পালন শেষে দেশে ফিরেছেন ৮ ফেব্রুয়ারি। আবহাওয়া পরিবর্তনে ২ দিন আগে বেড়ে যায় তার শাসকষ্ট। মেয়ে সুফিয়া তড়িঘড়ি করে মাকে নিয়ে যান রাজধানীর একটি হাসপাতালে। বিদেশ থেকে ফিরেছেন শুনেই ডাক্তার তার চিকিৎসা করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

মেয়ে সুফিয়া বলছেন, উনি শ্বাসকষ্টের রুগী। উনি এর আগেও ২-৩বার বার্ডেমে ভর্তি ছিল। কিন্তু এবার নিল না যে উনার নাকি করোনা। ওনারা এমন ভাবে দূরে সরায় দিল যে মনে হইলো উনি ফেলনা কিছু।

এরপর, তিনি পরীক্ষার করাতে যান আইইডিসিআরে। জানানো হয়, খোদেজার পরীক্ষার ফল পেতে সময় লাগবে দুদিন। তাহলে এই দুদিন মায়ের চিকিৎসা হবে কোথায়? এই প্রশ্নে দিশেহারা মেয়ে সুফিয়া।
 
কেবল খোদেজা বিবি নন, সাধারণ জ্বর কিংবা শাসকষ্টজনিত রোগীদেরও চিকিৎসা না পাওয়া, এমনকি মৃত্যুর অভিযোগও মিলছে। এছাড়া, করোনা চিকিৎসার জন্য তালিকাভুক্ত হাসপাতালগুলোতেও, আইইডিসিআর এর রিপোর্ট ছাড়া রোগী ভর্তি না নেয়ার অভিযোগ আছে।

আইডিসিআরের পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, অবশ্যই আমাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে কিভাবে হাসপাতালে রোগীকে পাঠালে তিনি চিকিৎসা পাবেন সেটা নিশ্চিত করা। আমরা এটা নিয়ে কাজ করছি আশা করছি খুব তারাতারি উন্নয়ন হবে।

করোনা পরীক্ষার দুষ্প্রাপ্যতা ও হাসপাতালগুলোর সমন্বয়হীনতার এই বাস্তবতায়, বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ, জরুরী ভিত্তিতে টাস্ক ফোর্স গঠনের মাধ্যমে সংকট সমাধানের।

বিএসএমএমইউ এর ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজিস্ট অধ্যাপক ডা. এস এস মোস্তফা জামান বলেন, একজন রোগীকে আপনি ফেরত দিতে পারবেন না। এবং হাঁচি-কাশি মানেই কিন্তু করোনা ভাইরাস সৃষ্টকারী  কোভিড-১৯ না। জরুরী ভিত্তিতে টাস্ক ফোর্স গঠনের মাধ্যমে সংকট সমাধান করতে হবে।

উদ্ভুত পরিস্থিতিতে, সরকারের পক্ষ থেকে হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রী ও সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেয়ার দাবি ভুক্তভোগীদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর