channel 24

সর্বশেষ

  • গৃহহীনদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করেছে বিশ্বের কয়েকটি সংস্থা ও হোটেল

  • ১১ এপ্রিল পর্যন্ত পোশাক কারখানা বন্ধ রাখার অনুরোধ রুবানা হকের

  • বিএনপির ঐক্যের ডাক জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর পাঁয়তারা: কাদের

  • করোনা: বিশ্বজুড়ে প্রাণহানি ছাড়ালো ৬০ হাজার; আক্রান্ত ১১ লাখের বেশি

  • চাকরি বাঁচাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঢাকামুখী হাজার হাজার পোশাক শ্রমিক

  • ময়মনসিংহ ও ঝালকাঠিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

  • রাজশাহী চিড়িয়াখানায় চারটি হরিণ খেয়ে ফেলেছে ৫ কুকুর

  • তিনি ঢাকঢোল পিটিয়ে সহায়তা করেননা

  • কক্সবাজারে ভেসে ওঠা সেই ডলফিন মরছে জেলেদের হাতে!

  • করোনায় কে কোথায়?

  • করোনা প্রতিরোধে ৫ লাখ পাউন্ড দান করবে ইসিবির চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটাররা

  • বগুড়ায় স্বেচ্ছাসেবকলীগের দু'পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

  • করোনার উপসর্গ নিয়ে লহ্মীপুরে দুই শিশুর মৃত্যু, ৯টি বাড়ি লকডাউন

  • করোনা: ৮৭ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ প্রণোদনার প্রস্তাব বিএনপির

  • জামিন নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ২ সপ্তাহ বাড়ালেন সুপ্রিম কোর্ট

বুড়িগঙ্গা-তুরাগ রক্ষায় চলমান অভিযানের ফল দৃশ্যমান; তীরে স্থায়ী সীমানা পিলার

বুড়িগঙ্গা-তুরাগ রক্ষায় চলমান অভিযানের ফল দৃশ্যমান; তীরে স্থায়ী সীমানা পিলার

উচ্ছেদ অভিযানের পাশাপাশি নতুন করে শুরু করা হয়েছে নদী প্রশস্তকরণের কাজ। আর নদী রক্ষা প্রকল্পের অনেক কিছু এখন দৃশ্যমান বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ পাড়ে। প্রায় শেষ সীমানা নির্ধারণের কাজ। প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের আশা যথাসময়েই শেষ হবে নদী রক্ষার এই প্রকল্প।

এর আগে এমন উচ্ছেদ অভিযান দেখেনি দেশবাসী। একবছরের বেশিসময় ধরে ঢাকার চারপাশে নদীর জায়গা নদীকে ফিরিয়ে দেয়ার চলমান অভিযানের ফল এখন দৃশ্যমান অনেকখানে। বুড়িগঙ্গা-তুরাগ তীরে উঠছে স্থায়ী সীমানা পিলার।

পরিকল্পনায় থাকা ঢাকার চারপাশের নদীর জন্য ১০ হাজার ৮শটি সীমানা পিলারের মধ্যে শেষ হয়েছে ২ হাজার ৮শটির পাইলিংয়ের কাজ। ২৫ থেকে ৩০ফুট গভীরে পাইলিং করা, এমন স্থায়ী পিলার এখন পর্যন্ত উঠেছে ৮শ টি। নদীর তীর ঘেঁষে হচ্ছে কি-ওয়াল। ৫২ কিলোমিটারের এই প্রকল্পে এমন কি-ওয়াল হবে মোট ২১ কিলোমিটার।

প্রকল্প পরিচালক জানান, ২০২২ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে আর ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান জানায়, প্রায় ৮৫ ফিট নিচ থেকে এ সীমনা পিলার পাইলিং করা হচ্ছে। অতএব এটা কখোনও ধ্বংস বা ভাঙ্গার সুযোগ নেই।

বিআইডব্লিউটিএ যুগ্ম-পরিচালাক এ কে এম আরিফ উদ্দিন জানান, নদীর সীমনা তিন-চারগুণ বেড়ে যাচ্চে তাই আগামি বর্ষা মৌসুমর আগে ঢাকাবাসীকে একটি সুন্দর বুড়িগঙ্গা ও তুগার উপহার দেয়া হবে।

আইন অমান্য করে নদী পাড়ের ব্যক্তিমালিকানাধীন নিচু জমি ভরাট করে যারা উঁচু করেছেন সেসব জায়াগায় বর্ষার সময় যাতে, নদীর প্রবাহ ফিরিয়ে আনা যায় এমন অনেক জায়গায় চলছে মাটি অপসারণের কাজ। কোথায় কোথায় এরইমধ্যে বেড়েছে নদীর প্রশস্ততা।

২০২২ সালের ৩০ জুনের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা নদী রক্ষার এই প্রকল্পের কাজ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর