channel 24

সর্বশেষ

  • নাটোর ও নেত্রকোণায় নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রভাবশালীদের হস্তক্ষেপ

  • মসজিদের মিনারে মাইক ভেঙে হনুমানের ছবি সম্বলিত পতাকা উত্তোলন

  • গুড়িয়ে দেয়ার কিছুদিনেই ফের সচল শরীয়তপুরের ৮টি অবৈধ ইটভাটা

  • লতিফ সিদ্দিকীর দুর্নীতির মামলা হাইকোর্টে স্থগিত

  • রাসায়নিক বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে হবিগঞ্জের করাঙ্গি নদী

  • ইভিএমে ফল গড়াপেটার অভিযোগ: সত্যতা মিললেও নির্বিকার নির্বাচন কমিশন

  • বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ৩ গোল খেয়ে বিদায়ের দ্বারপ্রান্তে চেলসি

  • চসিক নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত কার্যক্রম বন্ধ

  • ধর্ম অবমাননায় 'নানীর বাণী ও 'দিয়া আরেফিন' বাজার থেকে প্রত্যাহারের আদেশ

  • টাকাসহ পিকে হালদারকে ‘কানাডা’ থেকে ফেরত আনা সম্ভব: বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী

  • নাপোলির সাথে ১-১ গোলে ড্র বার্সেলোনার

  • আজও উত্তপ্ত দিল্লি, দুইদিনের সহিংসতায় নিহত ১৮

  • পি কে হালদার ও পরিবারের সদস্যদের পাসপোর্ট জব্দই থাকছে

  • রাজধানীতে মধ্যরাতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

  • চীনে করোনায় আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কমলেও ছড়িয়ে পড়ছে ইউরোপে

নামের মিলে মামলার বেড়াজালে মাদ্রাসাছাত্র খোরশেদ

নামের মিলে মামলার বেড়াজালে মাদ্রাসাছাত্র খোরশেদ

দুজনের নামই খোরশেদ। একজন নারায়ণগঞ্জ শহর ছাত্রশিবিরের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। আরেকজন জেলার রামনগরের মাদ্রাসাছাত্র। নামের মিল থাকায়, ৭/৮ বছর আগে, আটটি মামলা হয়, মাদ্রাসাছাত্র খোরশেদের বিরুদ্ধে। সেসময় গ্রেপ্তার খোরশেদ যে, শিবিরের খোরশেদ নয়, আদালতে দেয়া হয় সে প্রতিবেদনও। তারপরও মামলার বেড়াজাল থেকে মুক্তি মিলছে না খোরশেদ আলমের। আর সাত বছরেও প্রকৃত আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

নামে নামে যমে টানে। কেবল নামের মিল থাকায় নারায়ণগঞ্জে এক খোরশেদের বদলে, মামলার বেড়াজালে আরেক খোরশেদ।

২০১৩ সালের জেলার বক্তাবলী আলিম মাদ্রাসার ছাত্র ছিলেন খোরশেদ আলম। বাবার নাম আসাদুল্লাহ। নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্র শিবিরের সাধারণ সম্পাদক মনে করে ওই বছর তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এখন জামিনে থাকলেও রেহাই মেলেনি মামলা থেকে।

খোরশেদ আলম বলছেন, দায় সাড়া কাজের কারণে আজকে আমাকে জেল খাঁটতে হল। অথচ পুলিশ সুপার তখনই প্রতিবেদন দিয়েছিলেন যে এই খোরশেদ সেই খোরশেদ না।

এই খোরশেদ শিবির নেতা খোরশেদ নন, এমন প্রত্যায়নপত্র দিয়েছেন ফতুল্লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকও।
স্থানীয়দের অভিযোগ, নামের মিলের কারণে সাতবছর ধরে হয়রানির শিকার হচ্ছেন নিরীহ খোরশেদ। তাঁরা বলেন, নামের মিলের কারণে তাঁর এই হয়রানি, জীবনটাই তাঁর নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এভাবে।

মামলার এজাহার ও চার্জশিটেও আসামির ঠিকানা হিসেবে দেয়া হয়েছে, নিরাপরাধ দাবি করা খোরশেদ আলমের ঠিকানা। পরিচয় দেয়া হয়েছে মহানগর ছাত্রশিবিরের সাধারণ সম্পাদক। তার আইনজীবী আওলাদ হোসেন বলছেন, প্রকৃত রহস্য উন্মোচন না করেই অভিযোগপত্র দেয়ায় ভুগতে হচ্ছে তার মক্কেলকে।

মানবাধিকার কর্মীরাও দুষছেন পুলিশের দুর্বল তদন্ত আর গাফিলতিকেই। অ্যাডভোকেট এলিনা খান, চেয়ারম্যান, জাতীয় মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এলিনা খান বলেন, যখন আপনি তদন্তে যাচ্ছেন, এতগুলো কাগজপত্র দেখছেন তখন আর চার্জশীট দেওয়ার কতা আসে না, তাহলে তাঁরা কিসের তদন্ত করলেন।

ভবিষ্যতে কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন, এজন্য সতর্ক থাকার কথা বলছেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মনিরুল ইসলাম বলছে, আদালতের বিচারাধীন হওয়ায় এ বিষয়ে এখন আর তাদের কিছু করার নেই।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর