channel 24

সর্বশেষ

  • চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন: আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী যারা

  • দিনাজপুরে গোলাগুলিতে ২ ডাকাত নিহত, আহত ৪ পুলিশ

  • টটেনহ্যামের মাঠে জয় লাইপজিগের

  • ভ্যালেন্সিয়াকে বিধ্বস্ত করলো আটালান্টা

  • কাল শুরু হচ্ছে নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

  • ফের স্বর্ণের দাম বাড়ায় হতাশ ক্রেতা-বিক্রেতারা

  • চট্টগ্রাম সিটিতে কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে আ.লীগ

  • অমর একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

  • করোনা ভাইরাসে প্রাণহানি কিছুটা বেড়েছে, তবে কমেছে আক্রান্তের হার

  • 'বর্ণবাদের' অভিযোগ তিন সাংবাদিককে বহিষ্কার করলো চীন

  • ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনঃমূল্যায়নের চিন্তা করছে সরকার: অর্থমন্ত্রী

  • ঢাকার চারপাশে নদীপাড়ে ধর্মীয় স্থাপনা না ভেঙে সংস্কার করবে সরকার

  • ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়: ওসিসহ ৭ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

  • চুড়িহাট্টায় আগুনে মারা যাওয়া ৩ জনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি

  • পরীক্ষা হলে সাহায্য না করায় সহপাঠীকে ছুরিকাঘাত, আটক ১

পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেক উৎপাদন নিয়েও শঙ্কা

পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেক উৎপাদন নিয়েও শঙ্কা

ঢাকা পর্যন্ত সঞ্চালন লাইন নির্মাণ না হওয়ায়, ১৩শ' ২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার অর্ধেকও উৎপাদন করতে পারবে না, পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র। বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বাস্তবায়নকারী কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন, এ বছরের মাঝামাঝিতে চালু হবে দ্বিতীয় ইউনিট। পাওয়ার গ্রিড কোম্পানির মতে, পায়রা থেকে ঢাকায় বিদ্যুৎ আনতে অপেক্ষা করতে হবে ২০২১ সাল পর্যন্ত।

সঞ্চালন লাইনের নির্মাণ কাজ সময়মতো শেষ না হওয়ায়, অন্তত ৪ মাস পর উৎপাদন শুরু করলো মেগা প্রকল্প পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র। এখানকার একটি ইউনিট থেকে বিদ্যুৎ পাওয়ার কথা সর্বোচ্চ ৬৬০ মেগাওয়াট। এই বিদ্যুৎ সঞ্চালনে পটুয়াখালি থেকে গোপালগঞ্জ পর্যন্ত নির্মাণ করা হয়েছে, প্রায় দেড়শ কিলোমিটার সঞ্চালন লাইন।

চীনের অর্থায়নে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি যৌথভাবে নির্মাণ করছে সিএমসি ও নর্থওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি।

নর্থওয়েস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খোরশেদুল ইসলাম বলছেন, কেন্দ্রটি বাণিজ্যিক উৎপাদনে আসা সময়ের ব্যাপারমাত্র। বলেন, যখন আমরা দেই সেই সময় আমাদের বিভিন্ন প্যারামিটার টেস্ট করতে হয়, বিভিন্ন যন্ত্রপাতি টেস্ট করতে হয়। সেই টেস্টও আমরা করবো, ধাপে ধাপে উৎপাদনও বৃদ্ধি করবো। ৩০ তারিখ ৬৬০ মেগাওয়াট বিদুৎ আমরা জাতীয় গ্রিডে দিবো। এই ইউনিটের ফুল ক্যাপাসিটি দিবো।

প্রথমবারের মতো আমদানি করা কয়লা দিয়ে উৎপাদন শুরু করেছে পায়রা। পরিবেশ দূষণ রোধে বেশ কিছু উন্নত প্রযুক্তিও ব্যবহার করা হয়েছে এখানে। দ্বিতীয় ইউনিটও এখন অপেক্ষায় উৎপাদনে আসার।

এ বছরের মাঝামাঝিতে সবমিলিয়ে ১৩২০ মেগাওয়াটের পুরোটারই উৎপাদন ক্ষমতা অর্জন করবে পায়রা। এতো পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন সঞ্চালনে প্রয়োজন ঢাকা পর্যন্ত উচ্চ ক্ষমতার গ্রিড লাইন। গোপালগঞ্জ থেকে আমিন বাজার পর্যন্ত সেই লাইন নির্মাণ শেষ হয়নি এখনো।

পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম কিবরিয়া বলেন, ওইখান থেকে যে লাইন করা হয়েছে এখানে দুইটা বিদুৎ কেন্দ্রের বিদুৎ ইগুলেশন করা মতো ইনস্ট্রাকচার গোপালগঞ্জে নেই এটা আমিনবাজার পর্যন্ত লাইন চালু হলে হবে তার আগে না। এই লাইনে কাজ এখনো চলমান যেটা পদ্ভা ব্রীজের পাশ দিয়ে। আমিন বাজার পর্যন্ত এটা আসতে ২০২১ সালের মার্চ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত সময় লাগবে।

অন্যদিকে পদ্মাসেতু চালু হলে, দক্ষিণাঞ্চলের শিল্প কারখানায় পায়রা বিদ্যুৎ দেয়ার প্রত্যাশা করছে সরকার।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর