channel 24

সর্বশেষ

  • প্রিয়জন হারানোর ক্ষত বয়ে বেড়াচ্ছেন চুড়িহাট্টাবাসী

  • চীনে করোনাভাইরাসে প্রাণ গেছে আরো ১১৪ জনের, মোট ২১১৮

  • জার্মানিতে দুটি শিশা বারে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৮

  • ওয়েস্ট হ্যামকে ২-০ গোলে হারিয়ে ম্যানচেস্টার সিটির জয়

  • ইউরোপা লিগে আজকের খেলা

  • চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন: আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী যারা

  • দিনাজপুরে গোলাগুলিতে ২ ডাকাত নিহত, আহত ৪ পুলিশ

  • টটেনহ্যামের মাঠে জয় লাইপজিগের

  • ভ্যালেন্সিয়াকে বিধ্বস্ত করলো আটালান্টা

  • কাল শুরু হচ্ছে নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

  • ফের স্বর্ণের দাম বাড়ায় হতাশ ক্রেতা-বিক্রেতারা

  • চট্টগ্রাম সিটিতে কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে আ.লীগ

  • অমর একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

  • করোনা ভাইরাসে প্রাণহানি কিছুটা বেড়েছে, তবে কমেছে আক্রান্তের হার

  • 'বর্ণবাদের' অভিযোগ তিন সাংবাদিককে বহিষ্কার করলো চীন

গাবতলী-বসিলায় ধুলোবালি আর ময়লার রাজত্ব

গাবতলী-বসিলায় ধুলোবালি আর ময়লার রাজত্ব

যানজটের নগরী ঢাকা দূষণেও পিছিয়ে নেই। উত্তর সিটির গাবতলী যেন ধুলা, কয়লা আর বালুর রাজ্য। বসিলায় সুয়ারেজ লাইনের পানি আর ময়লায়, নদীতীর পরিণত হয়েছে ভাগাড়ে। সেই সাথে মশার উৎপাত আর রাস্তার ওপর বর্জ্যের প্রভাব তো রয়েছেই।

গাবতলী এলাকা। যেন ধুলার রাজ্য। রাজধানীর এই প্রবেশমুখে শুধু কয়লা, বালু আর ইটের স্তূপ।

বাসা-বাড়ির ময়লা আর্বজনা রাস্তার ওপর এনে ফেলছে খোদ সিটি করপোরেশন। এমন উদাসিনতার হাত থেকে নিস্তার পায়নি শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থান এবং অদূরেই ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডে, রায়ের বাজারে বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধের সামনের রাস্তাটিও।

এলাকাবাসী বলছে, সিটি করপোরেশনের ময়লার গেলানোর একটি নির্দিষ্ট জায়গা করা উচিৎ যেখানে সবাই ময়লা আবর্জনা ফেলবে। বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে যখন কোন গণ্যমান্য ব্যক্তিরা আসেন তখন ঠিকি তাঁরা পরিষ্কার করে কিন্তু এমনি সময় তাঁদের গরজ থাকে না। যারা রিক্সা ভালায় তাঁরা মুখে মাস্ক না পরে চালাতে পারে না এত ধুলো উড়ে এই রাস্তায়।

১০ নম্বর ওয়ার্ডে খেলার মাঠে শিশুদের হুই-হুল্লোড়। কিন্তু মাঠে নেই ঘাসের সবুজ। ফলে খেলাধুলাও যেন ছন্দহীন। তাই আসন্ন মেয়রের কাছে অভিভাবকদের প্রত্যাশা, বাচ্চারা যেন একটা সুস্থ পরিবেশ পায়।

নদীর তীর ঘেঁষে উত্তর সিটির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের বসিলা এলাকায় এখন শুধু ভবনই উঠছে। যদিও যোগাযোগ ব্যবস্থায় লাগেনি উন্নয়নের ছোঁয়া।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কোন কর্মী এখানে আসে না। এছাড়া মশার ওষুধ ও এখন পর্যন্ত কখনও দিয়েছে বলে আমাদের চখে পরে নাই। আর রাস্তার অবস্থা খুবই ভয়াবহ।

এই এলাকার স্যুয়ারেজ লাইনের পানি সরাসরি এসে পড়ছে নদীতে। ফলে ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে নদীতীর।

৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের ড্রেন এখন ডাস্টবিন। সংকীর্ণ রাস্তা। যতটুকু ফাঁকা জায়গা, তাও ট্রাকের দখলে।

ভোটাররা বলছেন, ১০মিনিটের রাস্তা আমরা যাচ্ছি ১ঘন্টায়। এগুলো তো মেয়র হিসেবে তাদেরই দেখার দায়িত্ব।

বছরের পর বছর ধরে সমস্যার যে পাহাড় গড়ে উঠেছে, তা থেকে সহসাই মুক্তি মিলবে কি না সে প্রশ্নের উত্তর জানা নেই গাবতলী-বসিলার মানুষের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর