channel 24

সর্বশেষ

  • ইইউ প্রতিনিধির বাসায় লালনগীতির আসর

  • ঠিকাদার শাহীনের পরিবর্তে কারাগারে শিক্ষার্থী শাহীন!

  • কমছে পাবলিক পরীক্ষার সময়সীমা, এসএসসি শেষ হবে ২৩ দিনে

  • বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে রকেট হামলায় নিহত ৩

  • স্প্যানিশ লিগে শীর্ষে রিয়াল, ইতালিয়ান লিগে জুভেন্টাসের হার

  • চীনে করোনা ভাইরাসে মৃত্যের সংখ্যা বেড়ে ৮০

  • করোনা ভাইরাস শনাক্তে স্থলবন্দরে সতর্কতা জারি

  • ইশরাকের প্রচারণায় সংঘর্ষের ঘটনায় আ.লীগ নেতার মামলা

  • কিবরিয়া হত্যা: ১৫ বছর ধরে ঝুলে আছে বিচার কাজ

  • হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে বাস্কেটবল কিংবদন্তি কোবি ব্রায়ান্ট নিহত

  • বিড়াল উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস!

  • মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে সুপ্রিমকোর্টে ক্ষণ গণনার ঘড়ি উদ্বোধন

  • করোনা ভাইরাস: শাহজালাল বিমানবন্দরে বসানো হয়েছে স্ক্যানিং মেশিন

  • শেষ হল নারী ফুটবল লিগের দলবদল

  • নড়াইলে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই

ব্লাড ক্যানসার জয় করে সফল মৎস্য খামারি অঞ্জন সমাদ্দার

ব্লাড ক্যানসার জয় করে সফল মৎস্য খামারি অঞ্জন সমাদ্দার

মিঠাপানিতে গলদা চিংড়ি চাষ করে সফল নড়াইলের মৎস্য খামারি অঞ্জন সমাদ্দার। ১৬ বছর বয়েসে বাবাকে হারিয়ে সংসারের হাল ধরতে শুরু করেছিলেন মাছের চাষ। মাঝে ব্লাড ক্যানসার আক্রান্ত হয়েও পিছিয়ে যাননি। একটি পুকুরে মাছের চাষ শুরু করলেও এখন তার রয়েছে ৬টি ঘের। সফল মৎস্য খামারি হিসেবে পেয়েছেন জাতীয় পদক।

অঞ্জন সমদ্দার। নড়াইল সদরের মালিয়াট গ্রামের বাসিন্দা। ছোট বেলায় বাবাকে হারিয়ে হাল ধরেন সংসারের।

কাজলা নদীতে ট্রলার চালিয়ে কোনো রকম চলতো সংসার। কিন্তু কিছুতেই পিছু ছাড়ছিলো না দারিদ্রতা। উপায়ন্ত না পেয়ে অল্প পুঁজিতে শুরু করেন চিংড়ি চাষ। বছর না ঘুরতেই স্বচ্ছলতা ফেরে সংসারে। কিন্তু দুর্ভাগ্য পিছু ছাড়ে না তার।

২০১০ সালে ধরা পড়ে ব্লাড ক্যান্সার। তিন বছর ধরে চলে মরণব্যাধীর সঙ্গে যুদ্ধ। অবশেষে সেই যুদ্ধেও জয়ী হন অঞ্জন। ফিরে এসে গলদা চিংড়ির পাশাপাশি শুরু করেন অন্য মাছের চাষও। বর্তমান অঞ্জনের মাছের ঘেরের সংখ্যা ৬টি।

অঞ্জন সমাদ্দার বলেন, বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতিতে অগ্রসর হয়ে মাছ চাষে এখন লাভ সম্ভব। সনাতন পদ্ধতিতে মাছ চাষ  করলে টিকে থাকা সম্ভব নয়।

মৃত্যুঞ্জয়ী অঞ্জন শুধু নিজের ভাগ্যই পাল্টাননি, গ্রামের অন্য যুবকদেরকেও সুযোগ করে দিয়েছেন কাজের।

এলাকাবাসী জানান, অধিকাংশ লোকজন অঞ্জনকে অনুসরণ করে মাছ চাষ শুরু করেছে। আমাদের এলাকায় যত চাষী আছে গলদা চিংড়ি ও অন্যান্য মাছ চাষ করে অঞ্জন তাদের মধ্যে অন্যতম। এতে করে এলাকার অনেক লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে।

নড়াইল সদর উপজেলা মৎস কর্মকর্তা মো. এনামুল হক জানান, তার দেখাদেখি অলাকার অনেকেই মাছ চাষে এগিয়ে এসেছে। প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে আমরা তাকে সহযোগিতা দিয়ে আসছি।

২০১৮ সালে জেলার শ্রেষ্ঠ মৎস খামারির খেতাব পান অঞ্জন। আর ২০১৯ সালে গলদা চিংড়ি উৎপাদনে পেয়েছেন জাতীয় পদক।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর