channel 24

সর্বশেষ

  • মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে: সেনাপ্রধান

  • এমসি কলেজে ছাত্রাবাসে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলার স্বাক্ষ্যগ্রহণ ২৪ জানুয়ারি

  • নোয়াখালীর হাতিয়ায় নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন

  • করোনার টিকা নিতে আগ্রহী নন বিশ্বের ৭২ শতাংশ কৃষ্ণাঙ্গ

  • সৌদিতে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের নতুন পাসপোর্ট দেয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • মহামারিতে এসেছে দেশের সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স

  • চট্টগ্রামে বিরামহীন প্রচারণা চালাচ্ছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা

  • ব্রিসবেন টেস্টের তৃতীয় দিনে ৫৪ রানে এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া

  • পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অযৌক্তিক ও অনৈতিক: সচিব

  • বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ ঘিরে সিএমপি'র বিশেষ নিরাপত্তা পরিকল্পনা

  • করোনায় দেশে আরও ২১ জনের মৃত্যু

  • ইভিএমে কারসাজিতে ভোট চুরি করেছে আওয়ামী লীগ: ফখরুল

  • টেকনাফে বিজিবির অভিযান; ৫ লাখ ২০ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ

  • বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীতে বিশেষ জার্সি পরে খেলবেন ক্রিকেটাররা

  • মানবিক পুলিশ মেহেদী, বেতনের টাকায় সহায়তা করছেন অর্ধশত পরিবারকে

স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও জানা যায়নি শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সঠিক সংখ্যা

স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও জানা যায়নি শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সঠিক সংখ্যা

ক্যালেন্ডারের পাতায় একটি কালো দিন ১৪ই ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এইদিনে জাতি হারিয়েছিল তার সূর্য সন্তানদের। যদিও স্বাধীনতার আটচল্লিশ বছরে এসেও নিরুপণ করা যায়নি, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সঠিক সংখ্যা। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক আফসান চৌধুরীর মতে, এর পেছনে রয়েছে সামাজিক নানা কারণ। বললেন, কজনের কথাইবা উঠে এসেছে বইয়ের কালো হরফে? এক্ষেত্রে ভালো পাণ্ডুলিপির সংকটকে দায়ী করছেন প্রকাশকরা।

"আজ এই ঘোর রক্ত গোধুলিতে দাঁড়িয়ে
আমি অভিশাপ দিচ্ছি তাদের
যারা আমার কলিজায় সেঁটে দিয়েছে
একখানা ভয়ানক কৃষ্ণপক্ষ।"

বিজয়ের মাত্র কদিন আগে যারা কেড়ে নিয়েছিলো এ দেশের সূর্য সন্তানদের, তাদের অভিশাপেই ছিলো প্রয়াত কবি শামসুর রাহমানের এই পঙ্তিমালা।

বছর ঘুরে আজ সেই ট্রাজিক ১৪ ডিসেম্বর, ক্যালেন্ডারের পাতায় নিকষ কালো অন্ধকারে ঢাকা বেদনা বিধূর একটি দিন।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক আফসান চৌধুরী বলেন, এটি একটি ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড। গোটা ৭১ এ এরকম ঘটনা অনেক ঘটেছে।

বিজয় যখন চূড়ান্ত লগ্নে, ঠিক তখনই চূড়ান্তভাবে এই নীল নকশার ছক কার্যকর করে মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি। এরপর সময় গড়িয়েছে ঠিকই তবে স্বাধীন বাংলাদেশে এই ৪৮ বছরে আজও প্রকৃত সংখ্যা নিরূপন করা যায়নি শহীদ বুদ্ধিজীবীদের।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক আফসান চৌধুরী বলেন, সরকারী একটী হিসেবে সরকার হিসেব করেছে রাজাকারদের সংখ্যা। তাহলে তো জরিপ করে তাদের সংখ্যাটা বের করেছে, তবে শহীদের সংখ্যাটা কেন বের করেনি। আমার মনে হয় এটার কারণ হচ্ছে, সমাজ এটার প্রয়োজন বোধ করছে না। সমাজ যেটার প্রয়োজন বোধ করে সরকার সেটাই তো করে।

এই গবেষক বলছেন একটি জাতিকে মেধাশূণ্য করার পরিকল্পিত এই ছকে মৃত্যুর স্তুপে ছিলো সাধারন মানুষের নিথর প্রাণও তবে ইতিহাসের পাতায়, হয়নি তাদের ঠাঁই।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দায়বদ্ধতা কমানোর বড় একটা জায়গা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস।

শুধুই কি তাই কালো হরফের বইয়ে কতোটাইবা লিপিবদ্ধ হয়েছে এই কালো অধ্যায়ের হাজারো গল্প? যা পড়ে নতুন বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রজন্ম ফোটাবে আলোর ফুল।

অন্বেষা প্রকাশনার প্রকাশক মো. শাহাদাত হোসাইন বলেন, যে ধরণের পান্ডুলিপি আমাদের প্রয়োজন সেইধরণের পান্ডুলিপি আমরা পাচ্ছি না। এটা ২ ভাবে হতে পারে, বেসরকারি ভাবে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, তবে সরকারি উদ্যেগে এই ধরণে কাজগুলি আরও বেশি বেশি করা দরকার। কারণ আমাদের চেতনাকে যদি আমরা তুলে ধরতে না পারি, শুধু মুখে মুখে বলি তাহলে হবে না।

তাঁর অভিমত, শুধু এই একটি দিন নয়, প্রতিটিদিন প্রতিটি প্রাণেই বাজুক জেগে উঠবার সুর হয়তো তবেই মিলবে সব প্রশ্নের উত্তর।

স্বাধীনতার ৪৮ বছরে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক সংখ্যা শুধু নিরূপণ করা যায়নি তা কিন্তু না। বইয়ের রঙ্গিন মলাটেও সেইভাবে উঠে আসে নি বুদ্ধিজীবীতো বটেই এই যুদ্ধজয়ের পিছনে যারা যুদ্ধ জয়ের মূল নায়ক সি সাধারণ মানুষদের কথাও। তাই মুক্তিযুদ্ধ সংশ্লিষ্টদের অভিমত ১৪ই ডিসেম্বরকে জানতে হলে জানতে হবে পুরো ৭১কে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর