channel 24

সর্বশেষ

  • যুক্তরাষ্ট্রে করোনার টিকা প্রদান শুরু হতে পারে ১১ ডিসেম্বর

পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বালাইনাশকের দাম

পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বালাইনাশকের দাম

খেতের ফসল রক্ষায় কৃষকদের নির্ভর করতে হয় বালাইনাশকের ওপর। কিন্তু সেই বালাইনাশকের দাম বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, বালাইনাশকের কাঁচামাল আমদানিতে একমাত্র উৎস নীতির কারণে বিদেশি উৎসগুলো একচেটিয়া ভাবে দাম বাড়াচ্ছে। যার প্রভাব পড়ছে কৃষকের ঘাড়ে।

মাঠের ফসলকে রোগবালাই থেকে রক্ষায় কোনো বিকল্প না থাকায় দেশে এখনও দেদারছে ব্যবহার হচ্ছে বালাইনাশক। সরকারি হিসাবেই বছরে পরিমাণ সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার বেশি। কৃষকদের অভিযোগ, প্রতিবছরই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এসব বালাইনাশকের দাম।

কৃষকদের এ অভিযোগের কথা স্বীকার করছেন উৎপাদকরাও। তাদের দাবি, বালাইনাশকের কাঁচামাল আমদানিতে সরকারের এক কাঁচামাল, এক উৎস নীতির কারণেই এই বিপত্তি। এই নীতির ফলে নির্দিষ্ট একটি উৎস থেকেই কাঁচামাল আনতে বাধ্য হওয়ায়, কোম্পানিগুলোর দরকষাকষির কোনো সুযোগ থাকে না। আর এ সুযোগে উৎস কোম্পানিগুলো ইচ্ছেমতো দাম বাড়ায়।

এগ্রিকেমিকেল ব্যবসায়ীদের তথ্য বলছে, এমামেকটিন, পাইমেট্রোজিন, মেনকোজেবসহ সব পণ্যের কাচাঁমালের দাম একচেটিয়াভবে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়েছে উৎস কোম্পানিগুলো। যার বোঝা বইতে হচ্ছে কৃষককে। 

জাতীয় এমিরেটাস বিজ্ঞানী ড. কাজী এম বদরুদ্দোজা বলছেন, যে নিয়মের কারণে কৃষকের উৎপাদন ব্যয় বাড়ে, ন্যায্যমূল্য থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হন কৃষক-ভোক্তা উভয়ই, অবিলম্বে তার পরিবর্তন দরকার। 

তবে কৃষি সচিব বলছেন, উদ্ভিদ সংগোনিরোধ আইনেই নিম্নমানের কাঁচামাল আমদানি নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। তবে এক কাচাঁমাল এক উৎস নীতির কারণে, উৎস কোম্পানিগুলো একচেটিয়া ব্যবসা করলে বিষয়টি নতুন করে ভাববে সরকার। 

কৃষিতে উৎপাদন ব্যয় কমাতে, এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ চান কৃষকরাও।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর