channel 24

সর্বশেষ

  • ঝড়-বৃষ্টিতে রাজধানীর বেশ কিছু স্থানে গাছ উপড়ে পড়ে যান চলাচল বন্ধ

  • করোনায় থমকে গেছে কমিউনিটি সেন্টার ও কনভেনশন হলের ব্যবসা

  • করোনা মহামারীর নতুন কেন্দ্র: পেলে, রোনালদো, নেইমারদের দেশ ব্রাজিল

  • নিজের আইনজীবীর কাছে মামলার ভবিষ্যত জানতে চান খালেদা জিয়া

  • করোনায় মৃতের পাশে নেই স্বজনরা, দাফন-সৎকারে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

  • করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা লাখ ছাড়ালো

  • করোনায় বিশ্বজুড়ে প্রাণহানি ছাড়িয়েছে সাড়ে ৩ লাখ

  • দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতসহ ঝড়-বৃষ্টিতে দেয়াল ধসে নিহত ৪

  • অবসর নয়, টেস্ট দলে ফেরার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে: মাহমুদুল্লাহ

  • ভারতের পশ্চিম ও মধ্যাঞ্চলের ৫ রাজ্যে পঙ্গপালের হানা

  • মাধবপুরে জমি দখল নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১০

  • যমুনা নদীতে নৌকাডুবিতে দুজনের মরদেহ উদ্ধার

  • আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুশফিকের ১৫ বছর

  • করোনায় মানবতার সেবায় দৃষ্টান্ত চাঁদপুরের চিকিৎসক দম্পতি

  • করোনায় ডেপুটি স্পিকারের স্ত্রী আনোয়ারা রাব্বীর মৃত্যু

কফি হাউসের আয় দিয়েই নারী কল্যাণকেন্দ্র চালাচ্ছেন তসলিমা

কফি হাউসের আয় দিয়েই নারী কল্যাণকেন্দ্র চালাচ্ছেন তসলিমা

নওগাঁর তসলিমা ফেরদৌস নিজ উদ্যোগে চালাচ্ছেন নারী কল্যান কেন্দ্র। সমাজের অবহেলিত নারীদের থাকা-খাওয়া থেকে শুরু করে সব ধরনের সেবা দেয়া হচ্ছে এখানে। শুধু তাই নয় শহরের সবচেয়ে বড় কফি হাউসটি পরিচালনা করেন তাসলিমা। সেখানকার আয় দিয়েই চলে নারী কল্যান কেন্দ্র।

বেলা শেষে নারী কল্যান কেন্দ্রের আঙ্গিনায় বসে জীবনের পড়ন্ত বেলায় গল্পে মেতেছেন কয়েকজন মা। ফেলে আসা সুখ-দুঃখ ভাগাভাগী করেছেন একে অন্যের সাথে। আর নারী কল্যান এই কেন্দ্রটি গড়ে তুলে আরেক নারী।

২০০৫ সালে তসলিমা ফেরদৌস নামে নওগাঁর একজন নারী গড়ে তুলেন একটি নারী কল্যান এই বৃদ্ধাশ্রমটি। নিজ উদ্যোগেই পরিচালনা করতেন নারী কল্যান কেন্দ্রটি। সহযোগিতাও করতেন অনেকে। তবে বছর খানেক পড় একটি কফি হাউজ গড়ে তুলেন তসলিমা। বর্তমানে সেই কফি হাউজের আয়ের অর্থ দিয়েই চলছে বৃদ্ধাশ্রমটি।

তসলিমা ফেরদৌস বলেন, এমনিতে আমার লোক রাখা নাই, এটা পুরো পারিবারিক পরিবেশে চলে, কোন প্রাতিষ্ঠানিক পরিবেশে চলে না। আমার মনে হয় এখানে যারা থাকেন যারা আছেন তারা সবাই আমার আপন, আমার পরিবারের একজন।

এখানের বাসীন্দারা বলেছেন, তসলিমার আদর-অপ্যায়নে সমাজ-সংসারের কষ্ট ভুলে বেশ ভালই আছেন তারা। তারা বলেন, 'এখানে ঝামেলা নাই। খাওয়া দাওয়ার সমস্যা নাই আবার শান্তিও ভাল। এইরকম খাওয়া দাওয়া বাপের বাড়িতেও পাই নাই। আমরা মার সাথেই থাকি, মার খেয়াল করি।'

এসব অসহায় মানুষ গুলোর জন্য কিছু করার অদম্য ইচ্ছেতেই নারী হয়েও অবলিলায় সামলে নেন সব কিছু।

গত দুই বছরে এই নারী কল্যান কেন্দ্রে সেবা পেয়েছেন অন্তত ২শ নারী। আর বর্তমানে তার কফি হাউজে কাজ করে স্ববলম্বী হয়েছেন ১৪ জন মানুষ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর