channel 24

সর্বশেষ

  • পাবনায় একই পরিবারের ৩ জনের মরদেহ উদ্ধার

  • বিশ্বের শীর্ষ চতুর্থ উপার্জনকারী ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো

  • কোভিড-নাইনটিন মোকাবিলায় চিকিৎসা সামগ্রি কেনাকাটায় অনিয়মের অভিযোগ

  • করোনায় ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য আজিজুর রহমানের মৃত্যু

  • গোপালগঞ্জে পুলিশি নির্যাতনে কৃষকের মৃত্যুর অভিযোগ

  • করোনার উপসর্গ নিয়ে প্রাণ গেলো ১০ জনের

  • অর্থের অভাবে চিকিৎসা বঞ্চিত দেশের দীর্ঘদেহী মানব সুবেল হোসেন

  • 'উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করতে হবে প্রকৃতি ও প্রতিবেশকে রক্ষা করেই'

  • ডিএমপি কমিশনারকে ঘুষের প্রস্তাব যুগ্ম কমিশনারের; প্রত্যাখান করে আইজিপিকে চিঠি

  • ডা. জাফরুল্লাহর কিছুটা শারীরিক অবনতি ঘটেছে

  • সুনামগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু

  • খাগড়াছড়িতে অবৈধ ইটভাটা ও শতাধিক তামাক চুল্লিসহ পরিবেশ বিপর্যয়কর কর্মকাণ্ড চলছে

  • সড়কে ছবি একে করোনায় সচেতনতা বৃদ্ধি করেছ 'চেতনায় চাটমোহর'

  • বাজারে সরবরাহ কম কাঁচাপণ্যের; দাম নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

  • ঈদ যাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১'শ ৬৮ জন: যাত্রী কল্যাণ সমিতি

গরুর আফ্রিকান রোগ ‘লাম্পি’ ছড়িয়ে পড়েছে ৪০ জেলায়

গরুর আফ্রিকান রোগ ‘লাম্পি’ ছড়িয়ে পড়েছে ৪০ জেলায়

আফ্রিকান গরুর চর্মরোগ 'লাম্পি' প্রকট আকারে ছড়িয়ে পড়ছে দেশে। চট্টগ্রামে প্রথম দেখা দিলেও এখন ৪০টি জেলায় মিলেছে আক্রান্ত গবাদিপশু। তবে সরকারের দাবি, জেলার সংখ্যা বাড়লেও কমছে আক্রান্ত গরুর সংখ্যা। দেশের ইতিহাসে প্রথম দেখা দেয়া এই রোগ নিরাময়ে নেই কোন ওষুধ। তবে তা নিয়ন্ত্রণে গোট পক্স ভ্যাক্সিন ব্যবহার করেছে সরকার।

মাত্র ২৮  দিন বয়সি এক বাছুর নিয়ে বগুড়ার শেরপুরের প্রাণিসম্পদ হাসপাতালে হাজির খামারি আব্দুল মজিদ। বাছুরটির শরীরে দেখা দিয়েছে হাজারো গুটি। যেগুলো ফেটে ঝড়ছে রক্ত।

প্রাণিসম্পদ বিশেষজ্ঞরা এই রোগটিকে বলছেন, লাম্পি, যা এক ধরনের চর্ম রোগ। ভাইরাসজানিত এই রোগ বিশ্বে প্রথম দেখা দেয় ১৯২৯ সালে গাম্বিয়ায়। পরে ছড়িয়ে পড়ে পুরো আফ্রিকায়। আর এ বছরের আগস্টে প্রথম দেখা যায় চীনে। তারপর আসে ভারতে।  

আমাদের দেশে লাম্পির আবির্ভাব প্রথম দেখা যায় সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে চট্টগ্রামে। এরপর একে একে নারায়ণগঞ্জ, যশোর, ঝিনাইদহ, মেহেরপুর, ঢাকা, সাতক্ষীরা ছাড়াও উত্তরবঙ্গের বগুড়া, জয়পুরহাটসহ দেশের অন্তত ৪০ জেলায় ছড়িয়ে পরে রোগটি।

খামারিরা বলছেন, একদম হঠাৎ করে এই নতুন রোগটা আসাতে আমরা খুব আতঙ্কিত। গরুর শরীরে ঘা হয়ে সেখানে পুঁজ হয়ে গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে। আবার যে গরুর ১০ মাসে বাচ্চা দেবার কথা সেই গরুর সাড়ে ৫মাসেই বাচ্চাটা নষ্ট হয়ে গেল। অন্য আরেক গরু বাচ্চা প্রসব করেছে কিন্তু বাচ্চাটার একদম পুষ্টি নেই।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. মো আইনুল হক বলছেন, দ্রুত চিকিৎসা দিলে, এই রোগে গরু মারা যাওয়ার ঝুঁকি নেই। বাতলে দিলেন, আক্রান্ত গরুকে সুস্থ রাখার উপায়ও।

তিনি বলেন, গরুকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। ঘা গুলো এন্টিসেপটিক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। মশা মাছি যেন বসতে না পারে সেই চেষ্টা করতে হবে। জ্বর আসলে জ্বরের জন্য অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়াতে হবে বা ইনজেকশন দিতে হবে। ভয় পাবার কোন কারণ নেই।

একেবারে নতুন হওয়ায় এই রোগ নির্মূলে সরকারের নেই তেমন কোনো প্রস্তুতি। তবে ছাগলের বসন্ত রোগের সাথে ৯৯ শতাংশ মিল থাকায়, ভরসা গোট পক্স ভ্যাক্সিনে।

ডা. মো আইনুল হক বলেন, নতুন রোগ হওয়ায় এটার ভ্যাক্সিন নেই কারণ কোন নতুন রোগ আসার পরে তো সেটার ভেক্সিন তৈরি করার চিন্তাভাবনা করা হয়। তবে গোট পক্স ভ্যাক্সিন দিয়েও লাম্পি রোগটা কন্ট্রোল করা যায়। এটা অনেকে দেশেই তাই করেছে আপদ কালীন সময়ে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর জানিয়েছে, এই মুহূর্তে দেশে এক লাখেরও বেশি গরু লাম্পি চর্মরোগে আক্রান্ত।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর