channel 24

সর্বশেষ

  • রাষ্ট্রীয় ব্যস্ততার কারণেই ভারত যাননি স্বরাষ্ট্র-পররাষ্ট্রমন্ত্রী: কাদের

  • খালেদা জিয়াকে জামিন না দেয়ার সিদ্ধান্ত আদালতের নয়, সরকারের: রিজভী

  • কেরাণীগঞ্জের প্লাস্টিক কারখানার অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ আরও ১০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

  • ব্রিটেনের নির্বাচনে টিউলিপসহ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারীর জয়

  • যুক্তরাজ্যে নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেল কনজারভেটিভ পার্টি

তূর্ণা নিশিথা ট্রেনের চালককে দেয়া হয়েছিলো মহাবিপদ সংকেত: স্টেশন মাস্টার

তূর্ণা নিশিথা ট্রেনের চালককে দেয়া হয়েছিলো মহাবিপদ সংকেত: স্টেশন মাস্টার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুর্ঘটনার আগে তূর্ণা নিশিথা ট্রেনের চালককে দেয়া হয়েছিলো মহাবিপদ সংকেত। যা অমান্য করলে ঘটে দুর্ঘটনা। চ্যানেল টোয়েন্টিফোরকে এ কথা জানান, মন্দবাগ স্টেশন মাস্টার। রেলওয়ের আইন অনুযায়ী, কারও অবহেলার কারণে মৃত্যু হলে, দুই বছরের কারাদণ্ড ও চাকরিচ্যুতি। তবে থানায় মামলা হলে বিচারকাজ চলবে আদালতে।

মন্দবাগ রেলস্টেশন, ১৯৬৫ সালের আগে থেকে চালু এই স্টেশন। ট্রেন চলাচলের জন্য স্টেশন মাস্টার কিংবা দায়িত্বরতরা প্যানেল বোর্ড ব্যবহার করে আসছে ১৯৬৫ সাল থেকে।

স্টেশন মাস্টার খলিলুর রহমান মন্ডলের দাবি, এই প্যানেল বোর্ড থেকে সেদিন লাল সংকেত দেয়া হয়েছিল চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা তূণা নিশিথা ট্রেনকে। আর অপরদিক থেকে আসা উদয়ন এক্সপ্রসকে দেয়া হয়েছিলো সবুজ সংকেত।

প্রতিদিন এই স্টেশন দিয়ে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা, ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম এছাড়াও সিলেট-চট্টগ্রাম রুটের লোকাল আন্তনগর মিলিয়ে ১৫টি বেশি ট্রেন চলাচল করে থাকে। প্রতিটি ট্রেনকেই স্টেশনে প্রবেশ ও প্রস্থানের সংকেত দেয়া হয় সিগন্যাল বাতি বা কখনো কখনো স্বশরীরের লাল সবুজ পতাকা দিয়ে। এত সর্তকতার মাঝে কিভাবে হলো এতো বড় ভুল?

এই দুর্ঘটনায় পর আবারো সচল হলো ট্রেন চলাচল। এখন প্রতিনিদই নিয়ম করে সমান্তরালে চলবে ট্রেন। কিন্তু যে ১৬টি প্রাণ চলে গেলো, এর দায় নেবে কে? কিংবা দায়িদের শাস্তি-ইবা কী হবে?

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর