channel 24

সর্বশেষ

  • বিচারপতিদের শপথ ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে; ফুল কোর্ট সভা বাতিল

  • লিবিয়ায় নিহত ২৬ বাংলাদেশির মধ্যে ২৩ জনের পরিচয় মিলেছে

  • 'আদালতের অনুমতি ছাড়া মোরশেদ খানের বিদেশ যাওয়া আইন সিদ্ধ হয়নি'

  • ছেলে সন্তানের বাবা হয়েছেন আশরাফুল

  • শ্বেতাঙ্গ পুলিশের নৃশংসতায় ৯ রাজ্যে বিক্ষোভ; ৪ পুলিশ অফিসার বরখাস্ত

  • মাটিতে পুঁতে রাখার ১১ মাস পর ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

  • মাঠে গড়ানোর অপেক্ষায় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ও সিরি আ

  • সোমবার থেকে চলবে গণপরিবহন, রোববার নৌযান

  • জন্মের মাত্র একদিনের মাথায় প্রাণঘাতী করোনার সাথে যুদ্ধ

  • লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জনকে গুলি করে হত্যা, আহত ১১

  • কর্মস্থলে যোগ দিতে চট্টগ্রামে ফিরছে মানুষজন

  • পার্বত্য জেলাগুলোতে সেনাবাহিনীর খাদ্য সহায়তা অব্যাহত

  • করোনা চিকিৎসায় চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতালগুলো পুরোপুরি তৎপর নয়

  • কুষ্টিয়ায় করোনা রোগীদের সেবায় একদল স্বেচ্ছাসেবী

  • চট্টগ্রামে নতুন করে ২‘শ ২৯ জন করোনায় আক্রান্ত

মূল আসামি হাবিবুল্লাহ রাজন বাইরে, বিনা দোষে জেলে রাজন ভূঁইয়া

মূল আসামি হাবিবুল্লাহ রাজন বাইরে, বিনা দোষে জেলে রাজন ভূঁইয়া

মূল আসামি আদালতে ঘুরে গেলেও কারাগারে আছেন অন্যলোক। এমনকি আসল আসামি হাবিবুল্লাহ রাজন আদালতে জামিন শুনানি চেয়েও পাননি। ২০১৩ সালের গ্রেপ্তারি পরোয়ানার ৬ বছর পর ১৯ বছরের রাজন ভুইয়াকে ধরেছে পুলিশ। যাতে গত এক মাস ধরে জেলে তিনি। রাষ্ট্রপক্ষ বিষয়টি ধরিয়ে দিলেও তা শুনতে আগ্রহ বোধ করেননি আদালত। সাবেক আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ বলছেন, এক মুহূর্তের জন্যও ভুল আসামিকে কারাগারে রাখার সুযোগ নেই।

৯-ই মে ২০১২। মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে হাবিবুল্লাহ রাজন নামে এক ব্যক্তির নামে মামলা হয় বংশাল থানায়। অভিযোগ মগবাজারের নয়াটোলায় তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ২৮টি নেশাজাতীয় ইনজেকশন। মামলায় মাস খানেক জেলেও খাটেন হাবিবুল্লাহ রাজন।

এরপর প্রতিমাসে নিয়ম করে আদালতে হাজিরা দেন হাবিবুল্লাহ রাজন। কিন্তু কয়েক মাস হাজিরা না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল ১। ২০১৩ সালের সে পরোয়ানার পর মামলাটি নিয়ে আর আগ্রহ দেখা যায়নি কারও মাঝেই।

এবার দৃশ্যপটে আরেক রাজন। পুরো নাম রাজন ভুইয়া। হাবিবুল্লাহ রাজনের বদলে কুমিল্লা থেকে ১৯ বছরের রাজন ভুইয়াকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আর বিপত্তির শুরু এখানেই। রাজন ভূইয়া আদালতে একাধিকবার নিজের পরিচয় দিলেও তা কর্ণপাত করেননি বিচারক।

এমন সংবাদে অনুসন্ধানে নামে চ্যানেল 24। মামলার নথি ঘেঁটে দেখা যায়, দুজনের জন্ম নিববন্ধন সনদ ও এফআইআরের নামও আলদা। মূল আসামি হাবিবুল্লাহ রাজনের বাবার নাম আব্দুল মান্নান হলেও রাজন ভুইয়ার বাবার নাম আব্দুল মান্নন ভুইয়া। ছবিতেও দুজন দুরকম। এছাড়া যখন মামলাটি হয় তখন রাজন ভুইয়ার বয়স ছিলো মাত্র ১২ বছর।

রাজন ভুইয়ার ভাই মোশাররফ হোসেন সুমন জানান, তার ভাইকে ভুলভাবে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।   

এবার মূল আসামি হাবিবুল্লাহ রাজনের খোঁজে চ্যানেল 24। ৭-ই নভেম্বর তার দেখা মেলে ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল -১ এর সামনে। স্ত্রী সন্তানসহ এসেছেন জামিন নিতে। জানেন না, এই মামলায় তার বদলে জেল খাটছেন আরেকজন।

সাবেক আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ জানান, বিচারক যদি জানতে পারেন ভুল আসামি জেলে আছেন, তাহলে তাকে এক মুহূর্ত জেলে রাখার সুযোগ নেই।

বৃহস্পতিবার আসল আসামি জামিন নিতে এলেও তাকে কারাগারে না পাঠিয়ে ১১ নভেম্বর ফের আসতে বলেন আদালত। এতে রাষ্ট্রপক্ষের আপত্তিও তুললেও আমলে নেননি আদালত।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর