channel 24

সর্বশেষ

  • ফের উত্তপ্ত নির্বাচন কমিশন, কর্তৃত্ব নিয়ে সিইসি-কমিশনারদের বাকবিতণ্ডা

  • পাকিস্তানে ফিরলো টেস্ট ক্রিকেট

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: রাতে মুখোমুখি বায়ার্ন মিউনিখ-টটেনহ্যাম

  • আইসিজেতে মামলার এখতিয়ার নেই গাম্বিয়ার: মিয়ানমারের আইনজীবী

  • রাজ্যসভায়ও নাগরিকত্ব বিল পাশ; অগ্নিগর্ভ আসাম-ত্রিপুরায় সেনা মোতায়েন

  • বিজয়ীর বেশে দেশে ফিরলো দশ স্বর্ণজয়ী আর্চারি দল

  • খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য রিপোর্ট সুপ্রিম কোর্টে জমা; জামিন শুনানি কাল

  • গরু ছাগল চিনলেই চালক, দায়িত্বশীলদের কথা এমন হতে পারে না: হাইকোর্ট

  • আখাউড়া সীমান্তে নারী ও শিশুসহ ৯ রোহিঙ্গা আটক

  • বনানীতে মাটি চাপা অবস্থায় চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার

  • চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

  • কেরানীগঞ্জে অগ্নিদগ্ধ ৩৩ জন ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি, কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

  • খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি ঘিরে আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদার

  • ইলিয়াস কাঞ্চনের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের আন্দোলন নোংরামি: হাইকোর্ট

  • শারীরিক প্রতিবন্ধকতা দমাতে পারেনি দুই ভাই-বোনকে

জার্মানিতে পড়াশোনা: প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে বাড়ছে আবেদনের সংখ্যা

জার্মানিতে পড়াশোনা: প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে বাড়ছে আবেদনের সংখ্যা

দেশের অর্থনীতি বিকাশে প্রয়োজন দক্ষ জনশক্তি। সেই জনশক্তি নিজেদের মেধা-মনন দিয়ে এগিয়ে নেবে দেশকে। আর এতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে জার্মানি। ঢাকার জার্মান রাষ্ট্রদূতের বলছেন, জার্মানিতে নানা স্কলারশীপ নিয়ে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীরা ফিরে এসে কাজ করবেন বাংলাদেশের জন্য।

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে জার্মানিকে বলা হয় ল্যান্ড অফ আইডিয়াস। আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা, গবেষণাগার ও লাইব্রেরির জন্য জার্মানির দিকে ঝুকছে  বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা। এর বড় কারণ বিনামূল্যে স্নাতকোত্তর, ডক্টরাল, পোস্ট ডক্টরাল ও ডিপ্লোমা ডিগ্রির সুযোগ। তবে এজন্য জানতে হবে জার্মান ভাষা। ঢাকার জার্মান দূতাবাসে দেশটির শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে কথা বলেছেন ফুল স্কলারশীপে পড়তে যাওয়া কয়েকজন।

দাদ ইয়ং এম্বেসেডরখন্দকার মুজাহিদ হায়দার বলেন, এখানে পরীক্ষার আগের সময়টায় যে লেখাপড়া হয়, সারা সেমিষ্টার জুড়ে সেই লেখাপড়া হয় না। এক্ষেত্রে অনেক পার্থক্য আছে। সুযোগ-সুবিধা ওইখানে অনেক বেশি।

প্রতিবছরই বাংলাদেশ থেকে বাড়ছে আবেদনের সংখ্যাও।

বাংলাদেশের দাদ প্রতিনিধি রুমানা কবীর বলেন, 'প্রতি বছর বাংলাদেশে থেকে তাদের মাধ্যমে ৪জন পিএইচডি, ১৫-২০ জন স্নাতকোত্তর স্কলারশিপ পেয়ে থাকে। এটা যে কেউই পেতে পারে। সে জন্য আবেদন পত্রে মোটিভেশন লেটার গুছিয়ে লিখতে হবে।'

ঢাকার জার্মান রাষ্ট্রদূত মনে করেন, বাংলাদেশ যে মধ্য আয়ের স্বপ্নের পথে হেটে চলছে, তা পূরণে দরকার হবে বহুমুখি দক্ষ জনবলের।

জার্মানি রাষ্ট্রদুত পিটার ফারনহোল্টজের বলেন, 'বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশ হতে চলেছে। এখন প্রতিযোগীতার স্বার্থে অত্যাধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত, দক্ষ মানবশক্তির প্রয়োজন। আমরা সেই শিক্ষাই দিয়ে থাকি। আমার বিশ্বাস যারা শিখছে তারা বাংলাদেশে ফিরে এমন উন্নত বিশ্ববিদ্যালয় গড়বে।

স্নাতক শেষে বিদেশে গিয়ে পড়তে গিয়ে নিজেদের জীবন-যপানের ধারনাই বদলে গেছে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর