channel 24

সর্বশেষ

  • ভিন্ন এক প্রেক্ষাপটে এলো এবারের ঈদ

  • ৮ বছর পেরিয়ে নয়ে পা রাখলো চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

  • করোনায় মারা গেলেন আ.লীগের সাবেক এমপি হাজী মকবুল

  • অনির্দিষ্টকাল মানুষের আয়ের পথ বন্ধ রাখা সম্ভব নয় জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী

  • ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে শেখ হাসিনার ভাষণ

  • মহামারিতে কাল বিষাদের ঈদ

  • শারীরিক দূরত্ব মেনে বায়তুল মোকাররমে ৫টি জামাত

  • হালদা নদীতে আরও একটি ডলফিন মারা পড়লো

  • ৮ জুন থেকে লা লিগা ফিরতে বাধা নেই

  • স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপনের আহ্বান কাদেরের

  • পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার তৌফিক উমর করোনায় আক্রান্ত

  • জয়পুরহাটে অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছে 'করোনা যুদ্ধে আমরা' সংগঠন

  • করোনায় ভেঙে পড়েছে ই-কমার্স খাত

  • ভিন্ন প্রেক্ষাপটে উদযাপিত হবে এবারের ঈদ

  • অনুমোদন না পেলেও মঙ্গলবার থেকে করোনা পরীক্ষা শুরু করবে গণস্বাস্থ্য

নতুন সড়ক পরিবহন আইনে দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার বিধান

নতুন সড়ক পরিবহন আইনে দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার বিধান

দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি বা তার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার বিধান রাখা হয়েছে নতুন সড়ক পরিবহন আইনে। এ লক্ষ্যে একটি তহবিল গঠন করা হবে যেখানে প্রত্যেক মোটরযানের বিপরীতে বার্ষিক বা এককালীন চাঁদা দিতে বাধ্য থাকবেন মালিকরা। না দিলে শাস্তির বিধানও আছে। তবে বিআরটিএ জানিয়েছে, এটা অনেক পরের বিষয় শৃঙ্খলা ফেরানোই তাদের প্রথম কাজ।

২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল যাত্রাবাড়ীর মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারে গ্রিনলাইন পরিবহনের একটি বাস চাপা দেয় প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারকে। তাঁকে বাঁচাতে একটি পা কেটে ফেলতে বাধ্য হন চিকিৎসকরা।

রাসেল সরকারের জন্য ক্ষতিপূরণ চেয়ে করা এক রিট আবেদনে চিকিৎসা খরচ বাদেও ৫০ লাখ টাকা দিতে গ্রিনলাইনকে নির্দেশ দেয় আদালত। এরপর দুই কিস্তিতে রাসেল সরকারকে ১০ লাখ টাকা পরিশোধ করে গ্রিনলাইন পরিবহন। ১৩ অক্টোবর বাকী কিস্তিগুলো স্থগিত করে আপিল বিভাগ।

প্রতি বছর হাজার হাজার মানুষ সড়কে হতাহত হলেও, রাসেল সরকারের মত ক্ষতিপূরণ জোটেনা সবার কপালে।

তাই দুর্ঘটনায় আহত বা নিহত ব্যক্তির পরিবারকে ক্ষতিপূরণ বা চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা তহবিল গঠণের বিধান রাখা হয়েছে ১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হওয়া নতুন সড়ক পরিবহন আইনে। ট্রাস্টের মাধ্যমে এই তহবিল পরিচালিত হবে। এজন্য প্রত্যেক মোটরযানের বিপরীতে বর্ষিক বা এককালীন চাঁদা দিতে বাধ্য থাকবেন মলিকরা। না দিলে আছে শাস্তির বিধানও।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই তহবিল গঠন হলে একদিকে ভুক্তভোগীরা উপকৃত হবেন, অন্যদিকে টাকার মায়ায় দুর্ঘটনা প্রতিরোধে উদ্যোগী হবে পরিবহন মালিকরা।

এই বিষয়ে নিরাপদ সড়ক চাই এর চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, প্রথমে সরকার একটি তহবিল গঠন করতে পারেন যেখানে পরিবহন মালিকরা প্রতি মাসে কিছু টাকা করে সেখানে দিতে হবে।

আইনের অন্যান্য বিষয়ের মত হয়তো একদিন এই তহবিল গঠিত হবে বলেছে বিআরটিএ।

বিআরটিএ পরিচালক শেখ মোহাম্মদ মাহবুব-ই-রব্বানী বলেন, আমাদের প্রথম টার্গেট হল সড়কে শৃংখলা ফেরানো সেটাকেই আমরা নজন দিয়েছি। তহবিল গঠন ব্যপক কার্যক্রমের আওতায় পরে। এটা পরে পর্যায়ক্রমে হবে।

একটি দূর্ঘটনা সারাজীবনের কান্না। সেই কান্না যেমন স্বজন হারানোর তেমনি তার সাথে যুক্ত হয় আর্থিক কষ্ট। কেননা একটি পরিবারের উপার্জনক্ষম কোন ব্যাক্তি যদি দূর্ঘটনায় পঙ্গু হন কিংবা জীবন হারান তাহলে সেই পরিবারের কি দূর্দশা নেমে আসে তা শুধু তারাই জানেন। নতুন আইনে সেসব পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণের ব্যাবস্থা রাখা হয়েছে। এখন সেটি কার্যকরের অপেক্ষায়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর