channel 24

সর্বশেষ

  • ৮ বছর পেরিয়ে নয়ে পা রাখলো চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

  • করোনায় মারা গেলেন আ.লীগের সাবেক এমপি হাজী মকবুল

  • অনির্দিষ্টকাল মানুষের আয়ের পথ বন্ধ রাখা সম্ভব নয় জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী

  • ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে শেখ হাসিনার ভাষণ

  • মহামারিতে কাল বিষাদের ঈদ

  • শারীরিক দূরত্ব মেনে বায়তুল মোকাররমে ৫টি জামাত

  • হালদা নদীতে আরও একটি ডলফিন মারা পড়লো

  • ৮ জুন থেকে লা লিগা ফিরতে বাধা নেই

  • স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপনের আহ্বান কাদেরের

  • পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার তৌফিক উমর করোনায় আক্রান্ত

  • জয়পুরহাটে অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছে 'করোনা যুদ্ধে আমরা' সংগঠন

  • করোনায় ভেঙে পড়েছে ই-কমার্স খাত

  • ভিন্ন প্রেক্ষাপটে উদযাপিত হবে এবারের ঈদ

  • অনুমোদন না পেলেও মঙ্গলবার থেকে করোনা পরীক্ষা শুরু করবে গণস্বাস্থ্য

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বিপাকে কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা

বদলে যাচ্ছে দেশের জলবায়ু

বদলে যাচ্ছে দেশের জলবায়ু

আগামী ১শ' বছরে কেমন হবে দেশের জলবায়ুর পরিস্থিতি? এ নিয়ে বাংলাদেশি এক বিজ্ঞানীর নেতৃত্বে গবেষণা করেছে দক্ষিণ কোরিয়ার গিয়াংসান বিশ্ববিদ্যালয়। তাদের গবেষণা বলছে, এই শতকে বাড়বে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ। সিলেটের লালখানের পরিবর্তে বেশি বৃষ্টি হবে দিনাজপুর ও রাজশাহীতে। তবে শংকার কথা বাড়বে শুষ্ক দিনের পরিমাণ। ফলে খরায় হুমকিতে পড়বে কৃষি।

দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয় সিলেটের লালখানে। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে দেখা যাচ্ছে ভিন্ন চিত্র। আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, গত দুই বছরে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে নেত্রকোনায়।

দেশের ২৫টি আবহাওয়া কেন্দ্রের বৃষ্টিপাতের তথ্য নিয়ে গবেষণা করেন, কোরিয়ার গিয়াংসান ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয় ও এশিয়া প্যাসিফিক ক্লাইমেট সেন্টারের একদল বিজ্ঞানী। যার নেতৃত্বে ছিলেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের জেষ্ঠ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান। তারা আমলে নেন ১৯৭৬ থেকে ২০০৫ সালের নথি।

যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০টি দেশের ২৯টি জলবায়ু মডেলকে ভিত্তি ধরে এ গবেষণা চালান তারা। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, আগামীতে সারাদেশে বাড়বে বৃষ্টিপাতের পরিমান। তবে সবেচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত সিলেটের পরিবর্তে হবে উত্তরাঞ্চলে। ২০৪০ সাল পর্যন্ত ২৫ শতাংশ, ৭০ সালের মধ্যে ৩৬ এবং ৯৯ সাল পর্যন্ত  বৃষ্টিপাত বাড়বে সর্বোচ্চ ৫৩ শতাংশ। এতে দেখা দিতে পারে আগাম বন্যা।

আবহাওয়াবিদ ড: মো: আব্দুল মান্নান বলেন, আগে যেসব স্থানে ভারী বর্ষণ হতো এখন সেসব স্থানের পরিবর্তে অনেক জায়গায় ভারী বর্ষণ লক্ষ্য করা যায়। বজ্রপাতও এখন দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ছে বলে জানান আবহাওয়াবিদ ড: মো: আব্দুল মান্নান।

বাংলাদেশ ধান গবেষনা ইনিস্টিটিউটের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো: কামরুজ্জামান মিলন বলেন, দেশের উত্তরাঞ্চলে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা বেশি থাকায় বন্যার ঝুঁকিতে রয়েছে ওই অঞ্চলসহ গোটা দেশ। তবে বৃষ্টিপাতের পরিমান বাড়লেও খরায় হুমকিও রয়েছে বলে জানান এই বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা।

তবে শঙ্কাও আছে। তাদের মতে, বৃষ্টির পরিমাণ বাড়লেও বৃদ্ধি পাবে শুষ্ক দিনের সংখ্যা। ফলে দেখা দিবে তীব্র খরা। যদিও বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের দাবি, শস্য উৎপাদনে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রস্তুত তারা।

শুধু কৃষিই নয় এ গবেষণা আমলে নিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থানাসহ সার্বিক পরিকল্পনা ঢেলে সাজানোর পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর