channel 24

সর্বশেষ

  • মাদক ও হরিণের চামড়াসহ হেলেনা জাহাঙ্গীর গেপ্তার

  • জেলে থাকার ঘটনা সন্তানদের কাছে লুকিয়েছিলেন সঞ্জয়

  • এবার কুষ্টিয়ায় এক ব্যক্তির একাধিক ডোজ টিকার নেয়ার ঘটনা

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি বাড়লো ৩১ আগস্ট পর্যন্ত

  • জেনে নিন অ্যাসিডিটি থেকে বাঁচার কয়েকটি ঘরোয়া উপায়

  • স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার জন্য টাকা পেলেন মেসি

  • রাজ আমাকে জোর করে চুমু খেয়েছিল: শার্লিন চোপড়া

  • হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব

  • অলিম্পিক ভিলেজে ৩ অ্যাথলেটসহ করোনা আক্রান্ত ২৪

  • ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সতর্কতা

  • ইংল্যান্ডে সিরিজ হারায় বোর্ড কর্তাদের ধুয়ে দিলেন ওয়াসিম

  • রাতে আসছে সিনোফার্মের আরও ৩০ লাখ ডোজ টিকা

  • সাগর পাড়ে আগুন ধরালেন বাঙ্গালী ললনা

  • কিউকমে পাওয়া যাবে রানারের মোটরসাইকেল

  • নিবন্ধনের পর আড়াই কোটি টাকা ভ্যাট দিল ফেসবুক

রোজিনার বিরুদ্ধে অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্টে গলদে ভরা মামলা

রোজিনার বিরুদ্ধে অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্টে গলদে ভরা মামলা

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি মামলা করতে গিয়ে নানা আইনী ভুল করেছেন মামলার বাদী। আইনজীবীরা বলছেন, অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্ট ও পেনাল কোডের দুটি ধারা কখনোই একসাথে চলতে পারে না। এ মামলায় বাংলাদেশে কারও শাস্তিরও নজির নেই। তাদের মতে, রাষ্ট্রীয় নথি সংরক্ষণ না করতে পারায় স্বাস্থ্য সচিবকেও এ মামলায় আসামি করা উচিত ছিলো।

অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্টে মামলায় কারাগারে সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। অথচ মামলার এজাহারে যেসব নথিপত্রের কথা বলা হয়েছে, এর কোনটাই স্বাক্ষরিত নয় বরং সবই খসড়া।

প্রায় ১০০ বছর আগে প্রণীত এ আইনে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত সাজা হয়েছে, এমন নজীর নেই। এমনকি নজীর নেই কোন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ট্রায়ালেরও। তবে ভারত ও পাকিস্তানে এ আইনে যাদের সাজা হয়েছে তাদের সবাই সরকারী কর্মকর্তা। ভারতীয় মন্ত্রিসভার একটি গোপন নথি ফাঁসের অভিযোগে সাংবাদিক শান্তনু সাইকিয়ার মামলা দিল্লী হাই কোর্টে টেকেনি। দেশটির আদালত বলেন, নথি ফাঁস হলে সেটিকে গোপন অ্যাখা দিয়ে একজন সাংবাদিককে দোষী করা যায়না।

রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে শুধু অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্ট নয়, দণ্ডবিধির দুটি ধারাও যুক্ত করা হয়েছে। অথচ আইন বলছে, একই ঘটনায় দুটি ধারা একসাথে কোনভাবেই চলতে পারে না।

এ মামলায় গলদ আছে আরও। নথিগুলো যদি সত্যিই রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ হয়, তবে এ মামলার প্রধান আসামী হবেন সচিব। কারণ এমন সরকারী নথিপত্রের প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যর্থতাও শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

রোজিনা ইসলামের জামিন ঠেকাতেই এ মামলায় রিমান্ড চাওয়া হয় বলেও মনে করছেন, আইনজীবীরা।

আইনজীবীদের একটি বড় অংশই মনে করেন, দীর্ঘ সময় আটকে রেখে একজন নারী সাংবাদিকের সাথে যা হয়েছে তা শাস্তিমূলক অপরাধ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর