channel 24

সর্বশেষ

  • লিবিয়া উপকূলে নৌকাডুবি, ৩৩ বাংলাদেশি উদ্ধার

  • ন্যায়বিচার পাওয়ার আশ্বাস আইনমন্ত্রীর

  • কোয়ারেন্টিন শেষে অনুশীলনে সাকিব-মোস্তাফিজ

  • নরসিংদীর রায়পুরায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ৩

  • করোনাকালেও সোয়া দুই লাখ কোটি টাকার এডিপি!

  • খিলক্ষেত ফ্লাইওভারে ‘বন্দুকযুদ্ধে দুই ছিনতাইকারী’ নিহত

  • বাংলাদেশের ভ্যাক্সিন তৈরিতে কিউবা বা ইরানের মডেল ফলো

  • নেত্রকোনায় বজ্রপাতে ৭ জনের মৃত্যু

  • রোজিনার মুক্তি দাবি সাংবাদিক অধিকার সংগঠন সিপিজের

  • দপ্তর বদল করা হয়েছে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিবের

  • করোনাভাইরাসে দেশে আরও ৩০ মৃত্যু

  • আমলার মামলায় কারাগারে সাংবাদিক রোজিনা

  • রাঙ্গামাটিতে প্রাণহানি রোধে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত প্রশাসনের

  • চট্টগ্রাম বন্দরে বাড়ছে কন্টেইনার খালাসের সংখ্যা

  • বান্দরবানে পাহাড়িদের ৭০ বসতঘর পুড়ে ছাই

বিশ্ব পরিবেশ রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর চার দফা পরামর্শ

বিশ্ব পরিবেশ রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর চার দফা পরামর্শ

বিশ্ব পরিবেশ রক্ষায় বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলার নিশ্চিতসহ চার দফা পরামর্শ তুলে ধরলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল জলবায়ু সম্মেলনে বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের তাপমাত্রা ঠিক রাখতে উন্নত দেশগুলোকে কার্বণ নিঃসরণ কমানোর কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আয়োজিত ২২ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া দুই দিনব্যাপী এ জলবায়ু সম্মেলনে ৪০ জন বিশ্ব নেতা এতে অংশ নিচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসে রাখতে উন্নত দেশগুলোকে কার্বন নিঃসরণ হ্রাসে অবিলম্বে একটি উচ্চাভিলাষী কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে।’

জলবায়ু ইস্যুগুলো সমাধানে সম্মিলিত প্রচেষ্টার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি আমাদের শিখিয়ে গেল যে-শুধুমাত্র শক্তিশালী সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমেই বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলা করা সম্ভব। প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে, ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম-সিভিএফ (ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম) এবং ভি২০ (ভালনারেবল টুয়েন্টি) এর সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে- জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর স্বার্থ সমুন্নত রাখা।

তিনি আরো বলেন, গ্লোবাল সেন্টার অন অ্যাডাপটেশন-এর দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক অফিস বাংলাদেশে। বাংলাদেশ স্থানীয়ভাবেই জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে টেকসইভাবে খাপ খাওয়ানোর বিষয়টি প্রচার করছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর এ ব্যাপারে ‘সিওপি এর দায়িত্বশীল সদস্য রাষ্ট্র ও সিভিএফ এর চেয়ার হিসেবে আরো কিছু পরামর্শ দিতে চাই।’

দ্বিতীয় পরামর্শ হিসেবে তিনি বলেন, ‘১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার তহবিলের বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা নিশ্চিত করতে হবে, যা অভিযোজন ও প্রশমনের মধ্যে ৫০:৫০ ভারসাম্য বজায় রাখবে। এই তহবিলের মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকিপূর্ণ সম্প্রদায়গুলোর ক্ষয়-ক্ষতি পূরণে বিশেষ দৃষ্টি দেবে।’ 
প্রধানমন্ত্রীর তৃতীয় পরামর্শ হচ্ছে, ‘প্রধান অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি খাতগুলোকে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় উদ্ভাবনের পাশাপাশি জলবায়ু অর্থায়নের জন্য বিশেষভাবে ছাড় দিতে হবে।

তিনি সর্বশেষ পরামর্শে বলেন, ‘সবুজ অর্থনীতি ও কার্বন প্রশমন প্রযুক্তিগুলোর উপর দৃষ্টি দিতে হবে। এ লক্ষ্যে দেশগুলোর মধ্যে প্রযুক্তির বিনিময় করতে হহবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ফিরে আসায় বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের আন্তরিক প্রশংসা করছে এবং বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে কাজ করতে ইচ্ছুক। তিনি বলেন, জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ ও সীমিত সম্পদের দেশ হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশ অভিযোজন ও প্রশমনের ক্ষেত্রে বিশ্ব নেতৃত্ব হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজন ও এই আয়োজনে তাকে আমন্ত্রণ করায় শেখ হাসিনা প্রেসিডেন্ট বাইডেনকে ধন্যবাদ জানান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর