channel 24

সর্বশেষ

  • আইএইচটির শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ স্থানীয়দের

  • 'ধর্মন্ধতা মোকাবিলা করতে না পারলে রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান হবে না'

  • ফরিদপুর পৌরসভা নির্বাচনে আ.লীগ প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আহবান

  • বিশ্বকাপ বাছাইয়ে কাতারের মুখোমুখি বাংলাদেশ

  • কেন উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরিতে হ্যামিল্টন টেস্টে রান পাহাড়ে নিউজিল্যান্ড

  • বঙ্গবন্ধু টি টোয়েন্টিতে টানা দ্বিতীয় জয় খুলনার

  • এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন কাতারকে রুখে দেয়ার প্রত্যয় বাংলাদেশের

  • প্রথম টি টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে হারালো ভারত

  • জয়পুরহাটে গৃহবধূকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ; থানায় মামলা

  • বায়তুল মোকাররমের সামনে ভাস্কর্য বিরোধী মিছিল, পুলিশের বাধায় ছত্রভঙ্গ

  • অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর শের খাঁ দিঘি

  • ইউরোপা লিগ: শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে আর্সেনাল, রাউন্ড অব থার্টি টু তে টটেনহ্যাম

  • হালিশহরে বেড়েছে টমেটোর মোজাইক ভাইরাস; শঙ্কায় চাষীরা

  • কেউ আক্রমণ করলে পাল্টা জবাব দিতে প্রস্তুত আ.লীগ: কাদের

  • দেশসেরা জেলা শিক্ষা অফিসার কুমারেশ চন্দ্র

আওয়ামী লীগ সরকারের কারণেই সশস্ত্র বাহিনী এখন বিশাল মহীরুহ: প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামী লীগ সরকারের কারণেই সশস্ত্র বাহিনী এখন বিশাল মহীরুহ: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিবেশীদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে বিশ্বাসী বাংলাদেশ। তবে আগ্রাসনের শিকার হলে তা রুখে দিতেও সদা প্রস্তুত বাংলাদেশ। সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সশস্ত্র বাহিনীর পুনর্গঠন ও আধুনিকায়নে আওয়ামী লীগ যত কাজ করেছে- অতীতে কোন সরকারই তা করে নি।

শনিবার (২১ নভেম্বর) সশস্ত্র বাহিনী দিবস-২০২০ উপলক্ষে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

সেনা, নৌ- বিমান এই তিন বাহিনী বাংলাদেশের অহংকার আর অস্তিত্বেরই অপর নাম। মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের সাথে কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ছিনিয়ে আনেন বিজয়। সশস্ত্র বাহিনীর এই গৌরবজ্জল অবদানকে স্মরণীয় করতে রাখতে প্রতি বছর ২১ নভেম্বর পালিত হয় সশস্ত্র বাহিনী দিবস। ১৯৭১ এ এই দিনেই গঠিত হয়েছিলো সশস্ত্র বাহিনী।

দিবসটি উপলক্ষে সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে দেশের প্রতি সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের নিষ্ঠা ও সাহসিকতার ভূয়সী প্রশংসা করেন। বিশেষ করে করোনায় লকডাউন কার্যকর করা, ত্রাণ বিতরণ, চিকিৎসা নিশ্চিত করতে বাহিনীর সদস্যদের দক্ষতার কথাও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে মনে করিয়ে দেন, বাংলাদেশ বৈরিতা নয়, বিশ্বাস করে বন্ধুত্বে- তা প্রতিবেশীদের সাথেও। তবে কখনও আগ্রাসনের শিকার হলে তা শক্তহাতে প্রতিহত করা হবে বলে জানান শেখ হাসিনা।

এছাড়া ফোর্সেস গোল ২০৩০ এর আলোকে সশস্ত্র বাহিনীর পুনর্গঠন ও আধুনিকায়নের কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার সেনা, নৌ, বিমান তিন বাহিনীরই যে আধুনিকায়ন করেছে তা অতীতের কোন সরকার করেনি বলেও ভাষণে- জানান শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনায় ও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে যেসব সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা মারা গেছেন তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। এছাড়া আশা করেন আগামীতে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা শুধু প্রতিরক্ষায়ই নয় দেশ গড়ার কাজেও পেশাগত দক্ষতার সাথে কাজ করে যাবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর