channel 24

সর্বশেষ

  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্টের আগেই ফিরবেন মুমিনুল আশাবাদী প্রধান নির্বাচক

  • কালিয়াকৈর বাজারে আগুনে পুড়ে গেছে দেড়শো দোকান

  • প্রেস টিমে ৭ নারী নিয়োগ দিয়ে ইতিহাস গড়লেন বাইডেন

  • নারীবাদী সংগঠনগুলোর সমালোচনার জবাব দিলেন হাইকোর্ট

  • বঙ্গবন্ধু টি টোয়েন্টিতে টানা তৃতীয় জয় চট্টগ্রামের

  • ডিআরইউ'র নতুন সভাপতি মুরসালিন নোমানী, সাধারণ সম্পাদক মসিউর

  • শিগগিরই ভাসানচরে যাচ্ছে ৫০০ রোহিঙ্গা পরিবার

  • ভারতে অমিত শাহ'র শর্ত নাকচ করে বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা কৃষকদের

  • নদীতে 'খাঁচায় মাছ চাষ' করে স্বাবলম্বী সাইফুল

  • পি কে হালদারকে দেশে ফেরাতে ইন্টারপোলে দুদকের চিঠি

  • একটি উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ভাস্কর্যের বিরোধিতায় নেমেছে: কাদের

  • সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের নবনিযুক্ত প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারকে র‍্যাংক ব্যাজ পরিধান

  • ১০ বছর ধরে সবজি বিক্রি করে সংসার চালান লিপিকা

  • নাইজেরিয়ায় বোকো হারামের হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১১০ জনে

  • মানহানী মামলায় বোয়ালখালী থানার ওসিসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে সমন জারি

করোনার ৭ মাসেও অ্যান্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি নেই

করোনার ৭ মাসেও অ্যান্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি নেই

দেশে নেই অ্যান্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি। ফলে একাধিকবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হবার পরও কেউ জানতে পারছেন না কার শরীরে কী পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। ফলে জানা যাচ্ছেনা তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডি শরীরে কতদিন থাকছে। চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা বলছেন, সরকারের উচিত অ্যান্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি দেয়া।

রহস্যময় এক ভাইরাস কোভিড নাইনটিন। কেউ জানে না তার গতিপ্রকৃতি। প্রথমে বলা হচ্ছিলো একবার করোনায় আক্রান্ত হলে দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা কম।

তবে, এই ধারনা পুরো পাল্টে গেছে অনেকের ক্ষেত্রে। সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক নীহার রঞ্জন দাস তাদেরই একজন। এই চিকিৎসক ১৮ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হন। সুস্থ হবার পর আবারও আক্রান্ত হন ২ জুলাই। সবশেষ আবারো করোনায় আক্রান্ত হন গেলো ১৭ অক্টোবর। তিনবার আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন নীহার রঞ্জন।

তাহলে কি তার শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরী হয়নি? হলে কি পরিমাণ? নীহার রঞ্জন দাসের তা জানা নেই। কেননা সরকারের অনুমতি না থাকায় তিনি অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করাতে পারেন নি।

একাধিকবার এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবার কয়েকটি কারণ থাকতে পারে বলে জানালেন একজন চিকিৎসাবিজ্ঞানী। একই সাথে জানালেন, করোনা থেকে সুস্থ হবার পর কার শরীরে কি পরিমান অ্যান্টিবডি তৈরী হয়েছে তা জানা খুবই জরুরী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, গবেষণার জন্য অ্যান্টিবডি টেস্ট করা হলেও সার্বিকভাবে এর অনুমতি দেয়ার বিষয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেই।

এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবার পর সুস্থ হয়েছেন অনেকই।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর