channel 24

সর্বশেষ

  • সাকিবের প্রত্যাবর্তনকে স্বাগত জানাল সতীর্থরা ও কোচ খালেদ মাহমুদ

  • রংপুরে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় ডিবির এএসআই রাহেনুল গ্রেপ্তার

  • সুন্দরবনে পর্যটক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা উঠলো

  • ভ্যাট ফাঁকির অপরাধে ফুডপান্ডার বিরুদ্ধে মামলা

  • বছর ব্যবধানে দেশে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ কমেছে ১৯ শতাংশ

  • জাতীয় দলের অনুশীলনে ফিরেছেন বসুন্ধরা কিংস ফুটবলাররা

  • 'যুবতী রাধে' গানের সমাধান মিলছে না

  • মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আগাম ভোটের রেকর্ড

  • রুটিফলের স্বাদ ও পুষ্টিগুণ

  • কিশোরগঞ্জে শিশু গৃহকর্মীকে হত্যার অভিযোগে দম্পতি আটক

  • আঁখ চাষীদের দুর্ভোগ কমাতে সুগারক্যান প্ল্যানটার

  • মাশরুম চাষের মাধ্যমে নতুন উদ্যোক্তা তৈরি করা হবে: কৃষিমন্ত্রী

  • ইসিতে আ.লীগ প্রার্থীদের বিরুদ্ধে বিএনপির অভিযোগ

  • পাবনায় আগাম জাতের শিম চাষে ভাগ্য ফিরেছে কৃষকের

  • ভোলার এসপি হলেন দশম শ্রেণির ছাত্রী তাসনিম!

চীন-বাংলাদেশ কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫ বছর

চীন-বাংলাদেশ কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫ বছর

চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে অর্থনৈতিক এবং বাণিজ্য ক্ষেত্রে সহযোগিতা দীর্ঘমেয়াদী এবং সুস্থিত বৃদ্ধি বজায় রাখছে-চীন ও বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ৪৫তম বার্ষিকী উদযাপন শীর্ষক একটি নিবন্ধ লিখেছেন বাংলাদেশে অবস্থিত চীনা দূতাবাসের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কাউন্সেলর জনাব লিউ ঝেনহুয়া।

লেখাটিতে তিনি চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ ও চিরগতিশীল অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্কের গভীরতা এবং সম্ভাবনাসমূহ তুলে ধরেন।

নিবন্ধে, পরিবহন, বিদ্যুৎ, হাই-টেকনোলজি এবং অন্যান্য কার্যকরি ক্ষেত্রে চীন-অর্থায়িত প্রধান অবকাঠামোগত প্রকল্পগুলোকে সহযোগিতার ভিত্তি হিসাবে উপস্থাপন করে জনাব ঝেনহুয়া দেখিয়েছেন যে কীভাবে চীন বাংলাদেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের অনূকুলে সেবা প্রদান করে যাচ্ছে।

২০১৮ সালের অর্থবছর এবং এর পর পর তিনটি অর্থবছরের জন্য চীন থেকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের মোট প্রবাহ বাংলাদেশের সকল এফডিআই উৎসের মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে-এ তথ্যটি উল্লেখ করে তিনি বাণিজ্য ও বিনিয়োগ ক্ষেত্রে চীন-বাংলাদেশ সহযোগিতা আরও প্রসারিত ও গভীর হওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে নিবন্ধে মন্তব্য করেন। বিশেষত তিনি উল্লেখ করেন যে ১ জুলাই, ২০২০ থেকে বাংলাদেশে উৎপাদিত ৯৭% কর সামগ্রীর উপর চীন শূন্য হারে অগ্রাধিকারমূলক শুল্ক মঞ্জুর করেছে যা বাণিজ্য ভারসাম্যহীনতা হ্রাস করতে এবং অতিমারী পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা করবে।

এর পরে, তিনি বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশে মানবসম্পদ উন্নয়নে চীনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন এবং উল্লেখ করেন যে দেশটি অতিমারীকালীন সময়ে বাংলাদেশীদের জন্য ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ পরিচালনার সম্ভাবনাটির বিষয়ে ভেবে দেখছে।

পরিশেষে, জনাব ঝেনহুয়া অর্থনীতি, প্রযুক্তি, জলবায়ু পরিবর্তন, দারিদ্র্য হ্রাস, জনস্বাস্থ্য, মানবসম্পদ উন্নয়ন এবং এর মতো অন্যান্য ক্ষেত্রে দু'দেশের মধ্যে সহযোগিতার অসীম সম্ভাবনা উপলব্ধি করে টেকসই উন্নয়ন অর্জনে চীনের বাংলাদেশের জনগণের পাশে দৃঢ় ভাবে দাঁড়ানোর এবং দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সহযোগিতা আরো উঁচু স্তরে নিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর