channel 24

সর্বশেষ

  • পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী আজ

  • ফুটবল ক্যাম্পে প্রথমবার যোগ দিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তারিক কাজি

  • প্রেসিডেন্টস কাপে তরুনদের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ র‍্যাডফোর্ড

  • রাজবাড়ীতে ১৫০ বছরের পুরানো মঠ ভেঙে পড়েছে

  • কুমিল্লা বাখরাবাদ গ্যাস ফিল্ডের ৬৩ জনকে একযোগে বদলি

  • অফিসে নারী-পুরুষের পোশাক নিয়ে নোটিশ দেয়ায় জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটকে শোকজ

  • রায়হান হত্যা: পুলিশ সদস্য হারুন ও এলাহী রিমান্ডে

  • দেশে করোনায় আক্রান্তের ২৩৬তম দিনে প্রাণহানি ২৫

  • খুলনায় রাশিদুল গাজী হত্যা মামলায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

  • নরসিংদীতে মাদ্রাসা থেকে পালাতে গিয়ে পাইপে আটকা পড়লো শিক্ষার্থী

  • বাংলাদেশের চাল উৎপাদন ২.৫ শতাংশ কমতে পারে: বিশ্বব্যাংক

  • ফিটনেস টেস্টে পাস করলেই কর্পোরেট টি-টোয়েন্টিতে খেলতে পারবেন সাকিব

  • ডিজিটাল তথ্যের নিরাপত্তায় নতুন আইনের কথা ভাবছে সরকার

  • বুটের ডালের পুষ্টিগুণ

  • ট্র্যাক্টর চালিত 'সিডবেড প্ল্যানটার' দিয়ে বীজতলা তৈরি

বেঁচে থাকার অবলম্বনের খোঁজে লাখো মানুষ

বেঁচে থাকার অবলম্বনের খোঁজে লাখো মানুষ

নেই ঘর, নেই ঠাঁই নেয়ার মতো কোনো জায়গা। অনাহারি মানুষ খুঁজছে বেঁচে থাকার একটু অবলম্বন। ঘূর্ণিঝড় আম্পানে যে সব জায়গা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত তার মধ্যে খুলনার কয়রা উপজেলা অন্যতম। ঝড়ের তাণ্ডবে আর জলোচ্ছ্বাসে লণ্ডভণ্ড সব। ভিটে মাটি হারিয়ে কেউ ভাসছেন নৌকায়, কারও আশ্রয় রাস্তার ওপর খোলা আকাশের নিচে। কেউ কেউ বলছেন, ত্রাণ নয় জলের তোড়ে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধ নির্মাণের কথা।

করোনার অদৃশ্য ছোবলের দুঃসময়ে আম্পানের দৃশ্যমান তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড দেশের দক্ষিণাঞ্চল। ডুবেছে ফসলের মাঠ, ডুবেছে বসতভিটা, ভেসে গেছে তিল তিল করে জমানো সম্পদ।

১'শ ৬০ কিলোমিটার গতিবেগের আম্পান নিমিষেই যেনো জীবনকে করে তুলেছে ভাসমান। এই যেমন মধ্যবয়সী হুমায়ুন কবীর। প্রতিবার যে বাঁধ ভেঙে দেয় ঘর, দিয়েছে এবারও, ধৈর্য্যের বাঁধ ভাঙলেও একবুক হতাশা নিয়ে বসে আছেন সেই ভাঙা বাঁধেই।

শুধু একজন হুমায়ুন কবীর কিংবা একটি গ্রাম নয় জলে ডোবা দক্ষিণাঞ্চলের প্রায় প্রতিটি গ্রামের চিত্রই এখন চোখের নোনাজল কান্নায়। ঝড় যেখানে কেড়ে নিয়েছে মানুষের প্রাণ, কেড়ে নিয়েছে অর্থনীতি আর বেঁচে থাকার এক টুকরো অবলম্বনও। 

নৌকা নিয়ে যেতে চাই ভাসমান মানুষের কাছে জানতে চাই হারানোর এমন মিছিলে, হারাবার কি আছে কিছু বাকি ? চাওয়াটাইবা কি আর পাওয়ার সমীকরনইবা কতোটুকু?

অনাহারে অর্ধাহারে কাটানো জীবনে এখন ঠাঁই বলতে নৌকার পাটাতন নয়তো ভেঙে যাওয়া বাঁধ, আর ডুবতে ডুবতে জেগে থাকা একটিমাত্র সড়ক। তবে সেই পথ জুড়েও তো দেখা নেই কারো আসছে না কোনো সহায়তা।   

শূণ্যতা ছেঁয়ে থাকা হৃদয়ে স্লোগানটা তাই এসো নিজেরাই করি। এছাড়া আর উপায়ইবা কি?

তবে চলছে সেনাবাহিনীর রেকি, সাথে তৎপর জেলা পরিষদও। বলছেন দ্রুতই শুরু হবে বাঁধের সংস্কার কাজ। এই দুঃসময়ে ত্রাণ নয় সবারই চাওয়া একটি বাঁধ এর যাতে ভেসে যাবে না ঘর, বরং বাঁধবে আরও মজবুত করে।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর