channel 24

সর্বশেষ

  • অবসর নয়, টেস্ট দলে ফেরার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে: মাহমুদুল্লাহ

  • ভারতের পশ্চিম ও মধ্যাঞ্চলের ৫ রাজ্যে পঙ্গপালের হানা

  • মাধবপুরে জমি দখল নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১০

  • যমুনা নদীতে নৌকাডুবিতে দুজনের মরদেহ উদ্ধার

  • আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুশফিকের ১৫ বছর

  • করোনায় মানবতার সেবায় দৃষ্টান্ত চাঁদপুরের চিকিৎসক দম্পতি

  • করোনায় ডেপুটি স্পিকারের স্ত্রী আনোয়ারা রাব্বীর মৃত্যু

  • করোনা আতঙ্কে ঘর থেকেই বের হননি রাজধানীর বেশিরভাগ মানুষ

  • লাদাখে মুখোমুখি ভারত ও চীনের সেনাবাহিনী

  • দুর্যোগে জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে বিএনপি: কাদের

  • করোনায় দেশে আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১১৬৬

  • নিজের কিট দিয়ে করোনা পজিটিভ ডা. জাফরউল্লাহ

  • মানসিক অবস্থা ভালো হলেও শারীরিকভাবে সুস্থ নন খালেদা জিয়া

  • ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত খুলনার কয়রাসহ ৫ উপজেলার মাছ চাষী

  • দেশে রেকর্ড চাল উৎপাদনের আশা, উঠে আসবে বিশ্বের তিন নম্বরে

আম্পানের থাবায় প্রায় এক কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন

আম্পানের থাবায় প্রায় এক কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎহীন

সুপার সাইক্লোন আম্পানের কারণে প্রায় এক কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎবিহীন অবস্থায় রয়েছে। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সব বিতরণকারী ও সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠক করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরবরাহ ব্যবস্থা ঠিক করতে নির্দেশ দিয়েছেন। জানান, চূড়ান্ত ক্ষয়ক্ষতির হিসাব এখনো নিরুপণ করা সম্ভব হয়নি। বিদ্যুৎ সরবরাহে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে পল্লী বিদ্যুৎ ও দক্ষিণাঞ্চলে বিদ্যুৎ বিতরণকারী প্রতিষ্ঠান-ওজোপাডিকোর এলাকায়।

সুপার সাইক্লোন আম্পানে মাইলের পর মাইল বিদ্যুৎ বিতরন ব্যবস্থা তছনছ হয়ে গেছে। উপকুলীয় এলাকায় কুড়ির বেশি জেলাগুলোতে অনেক স্থানেই এখনো বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় রয়েছে। 

ঘূর্নিঝড়ের কবলে পরে কুষ্টিয়ায় উপকেন্দ্রে আগুন লাগে। চেষ্টা চলছে বিকল্প অবস্থায় বিদ্যুৎ সরবরাহের। কুষ্টিয়া-খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে ওজোপাডিকো। তাদের প্রায় ১২ লাখ গ্রাহকের সবাই কমবেশি ক্ষতিগ্রস্থ। সংস্থাটির শীর্ষ এক কর্মকর্তা বলছেন, বুধবারের মধ্যে সরবরাহ ঠিক করতে কাজ করছেন তারা।

এদিকে গ্রামীণ অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি গ্রাহক পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড আরইবি'র। তাদের চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, যশোর-খুলনা এবং বরিশাল বেল্টে সরবরাহ ব্যবস্থায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে। বড়ো বড়ো গাছ পড়ে অনেক জায়গাতেই উপড়ে গেছে বিদ্যুতের খুঁটি। তবে ঝড় থেমে যাওয়ার পর থেকে মেরামতের কাজে নেমেছে আরইবি।

বুধবারই ঝড় থামার পরপর বিদ্যুৎ বিতরনকারী প্রতিষ্ঠান ও সঞ্চালনের দায়িত্ব থাকা পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি ও সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠক করেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী। মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিদ্যুৎ সরবরাহ ঠিক করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মুঠোফোনে প্রতিমন্ত্রী জানান, ক্ষয়ক্ষতির হিসাবে নিকেশ এখনো পরিমাপ করা সম্ভব হয়নি।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে এমনতিই ৩৫ হাজার কোটি টাকার ক্ষতির মুখে বিদ্যুৎ খাত। আম্পানে সেই ক্ষতির পরিমাণ আরও কতো বাড়িয়ে দেয় তা নিয়ে চিন্তায় মন্ত্রণালয়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর