channel 24

সর্বশেষ

  • ভারতে একদিনে সর্বোচ্চ ২৪ হাজার আক্রান্ত

  • ব্রাজিলে একদিনে আক্রান্ত প্রায় ৩৮ হাজার, মৃত্যু ১১'শো

  • করোনা চিকিৎসায় হাইড্রোক্সি-ক্লোরোকুইন বন্ধের পরামর্শ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

  • করোনা যুদ্ধে নিকরোনা যুদ্ধে নিজেদের জয়ী বলে দাবি ট্রাম্পেরজেদের জয়ী বলে দাবি ট্রাম্পের

  • ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে ঘানার প্রেসিডেন্ট

  • করোনায় বিশ্বে একদিনে সর্বোচ্চ ২ লাখ ১২ হাজারের বেশি আক্রান্ত

  • সাবেক অর্থমন্ত্রী ওয়াহিদুল হকের মৃত্যু

  • বাসা ভাড়া ও পানির দাম বৃদ্ধি এবং রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের প্রতিবাদ

  • বাংলাদেশ-আফগানিস্তানের বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচের ভেন্যু সিলেট

  • মেসির বার্সেলোনা ছাড়ার গুঞ্জন জোরালো হচ্ছে

  • এক মাসের মধ্যে ক্রিকেটারদের মাঠে ফেরানোর পরিকল্পনা বিসিবির

  • ঢাবির গবেষণা ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের উন্নয়নে সহায়তা করবে অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন: এ কে আজাদ

  • দ্বিতীয় দফা পরীক্ষাতেও করোনা পজিটিভ মাশরাফীর

  • ভুতুড়ে বিদ্যুৎবিল কাণ্ডে ডিপিডিসির ৪ প্রকৌশলী বরখাস্ত; ৩৬ জনকে শোকজ

  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

আমাদের উদ্দেশ্য সাংবাদিক আরিফের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা: হাইকোর্ট

আমাদের উদ্দেশ্য সাংবাদিক আরিফের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা: হাইকোর্ট

মধ্যরাতে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে নির্যাতনের ঘটনায় দায়ের করা রিটের শুনানিতে হাইকোর্ট বলেছেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য আরিফুলের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা’।

সোমবার (২৩ মার্চ) বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব মন্তব্য করেন।

আদালতে সাংবাদিক আরিফের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন সিনিয়র অ্যাডভোকেট এএম আমিন উদ্দিন ও অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল প্রতিকার চাকমা।

দুপুরে শুনানিকালে সাংবাদিক আরিফুলকে নির্যা্তনের ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে কিনা জানতে চান। জবাবে আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেন, মামলা করেনি। তবে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন কিন্তু তা মামলা হিসাবে গ্রহণ করেনি।

এরপর থানায় দায়ের করা অভিযোগে ডানহাত পক্ষঘাতগ্রস্ত থাকা সত্ত্বেও আরিফুল ইসলাম কীভাবে স্বাক্ষর করলেন সে বিষয়ে জানতে চান আদালত। এসময় আদালতে উপস্থিত আরিফুল ইসলাম জানান, আমি বামহাত দিয়ে অভিযোগপত্রে স্বাক্ষর করেছি।

এরপর আদালত ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল প্রতিকার চাকমার বক্তব্য শোনেন। তিনি আদালতকে বলেন, আমরা কেউই আইনের উর্ধ্বে নয়। তখন আদালত বলেন, ধন্যবাদ, রাষ্ট্রপক্ষের কাছ থেকে যখন এমন কথা বলা হয় তখন আমাদের ভালোলাগে।

প্রতিকার চাকমা আদালতকে বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করা হয়েছে। এছাড়াও বিভাগীয় প্রক্রিয়া গ্রহণ করছে। অভিযোগটি গ্রহণ করা হবে নাকি হবে না, সে বিষয়ে কুড়িগ্রামের এসপির সঙ্গে কথা বলেছি।

তখন আদালত বলেন, যেকোনো সাধারণ নাগরিক বা যে কেউ যখন থানায় অভিযোগ দিতে যাবে তখন তা অন্তর্ভুক্ত করে তদন্ত করাই তার (ওসি) দায়িত্ব। সেখানে আরিফুল ইসলামের মতো সাংবাদিকের এই অবস্থা (সাংবাদিকের অভিযোগ মামলা হিসাবে গ্রহণ না করা) হলে সাধারণ মানুষের কি হবে? থানায় ফোন করে দিলেও অভিযোগ নিতে হবে। তারপর তদন্ত করে জানাবে কি আছে কি নেই। অভিযোগ গ্রহণ করা তার প্রধান দায়িত্ব। ক্রিমিনাল মামলায় সময়টা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ওনার (সাংবাদিক আরিফুল) বিচার পাওয়ার ডিমান্ড নষ্ট হবে। আসামীরা এর বেনিফিট পাবে। তখন আরিফুলকে তার নিজের পক্ষে অনেক কিছু প্রমাণ করা নিয়ে কত কাহিনী হবে! ফৌজদারী অপরাধের বিচার এখানে হবে, কোর্ট করবে।

আদালত আরও বলেন, এটা ফৌজদারী অপরাধ, এটা আইনতভাবে এগোবে। এ বিষয়ে বিভাগীয় পদক্ষেপ হিসাবে প্রতিমন্ত্রী বেশ ভালো উদ্দোগ নিয়ে বলেছেন- কোন ব্যাক্তির দায় সরকার নিবেনা। তবে রাতারাতিতো সবকিছু ঠিক হবেনা! তাই আমরা এ রিটের প্রেক্ষিতে রুল জারি করছি। 

তখন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ফৌজদারী আইনের ৫৬১ ধারার ক্ষমতাবলে এ মামলাটি বাতিল করার ক্ষমতা আপনাদের রয়েছে। জবাবে আদালত বলেন, ৫৬১ ধারা তখনই কার্যকর হবে যখন কোন মামলা বিচারিক আদালত বা ট্রাইব্যুনালের পেন্ডিং থাকবে। কিন্তু ভ্রাম্যমান আদালত সাধারণ বিচারিক প্রক্রিয়া না। এই মামলায় এতো অসঙ্গতি রয়েছে যে আমাদের আর কিছু করার নেই (আদেশ দেওয়া ব্যাতিত)। আমরা রুল জারি করবো, শুনবো। মামলার আইনজীবী অনেক গবেষণা করেছেন। এখানে অনেক ত্রুটি আছে। ১৩ তারিখে (গত ১৩ মার্চ) মামলা শুরু হয়ে পরদিন ১৪ তারিখে (গত ১৪ মার্চ) শেষ হলো, এমনটা আমরা কখনো দেখিনি। তবে আমরা ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে পারি। হারুক-জিতুক আরিফুল যেন বলতে পারে, আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি। আরিফের বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়েছে মাদক সেবনের উদ্দেশ্যে কিন্তু মাদক সেবনের কথা বলা হয়নি। তার বিরুদ্ধে সেবনের কোন অভিযোগ নেই। অথচ অভিযোগ না থাকা সত্ত্বেও মাদক সেবনের অভিযোগে তাকে সাজা দেওয়া হয়েছে। এই মামলা নিয়ে আমরা অনেক সব নথি, তথ্য-উপাত্ত পরীক্ষা করেছি এবং এখন আদেশ দিচ্ছি। 

এরপর আদালত তার আদেশে সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে নির্যাতনের ঘটনায় কুড়িগ্রামের সাবেক ডিসি সহ জড়িতদের বিরুদ্ধে করা অভিযোগ এজাহার হিসাবে গ্রহণ করতে সংম্লিষ্ট থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। আরিফুল ইসলামের করা অভিযোগপত্র অনুসারে কুড়িগ্রামের সাবেক ডিসি সুলতানা পারভীন, আরডিসি নাজিম উদ্দীন, সহকারী কমিশনার ও ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা ও সহকারী কমিশনার এসএম রাহাতুল ইসলাম সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৩৫-৪০ জন সরকারি কর্মচারীর বিরুদ্ধে এ মামলা গ্রহণ করতে বলা হয়।

একইসঙ্গে ভ্রাম্যমান আদালত কর্তৃক সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে দেওয়ার সাজার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। এছাড়াও ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে সাজা দেওয়ার পুরো প্রক্রিয়া কেন অবৈধ ও বাতিল ঘেষণা করা হবেনা, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর