channel 24

সর্বশেষ

  • টোকিও অলিম্পিকের নতুন তারিখ ২০২১ সালের ২৩ জুলাই

  • করোনা সন্দেহে মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে বের করে দিলেন স্বজনরা

  • যুক্তরাজ্য থেকে ঢাকায় ৭৩ প্রবাসী, নিজ দেশে ফিরলেন ২৬৯ মার্কিন নাগরিক

  • আপেল চাষ হচ্ছে ঢাকা শহরে বাড়ির ছাদে

  • করোনায় আক্রান্ত তুরস্কের সাবেক গোলরক্ষক রুস্তো রেকবার

  • কোয়ারেন্টিনের মাঝেই ফিটনেস ধরে রাখতে মনোযোগী ফুটবলাররা

  • নারী ক্রিকেটারদেরও আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে বিসিবি

  • পীরগাছায় ট্রেনের ইঞ্জিনের ধাক্কায় অটোরিকশার চার যাত্রী নিহত

  • ডাক্তার, নার্স ও হাসপাতাল কর্মীদের পিপিই দেবে বিজিএমইএ

  • ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে বিতরণ করছে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা

  • ইউরোপে বাংলাদেশের জিএসপি বাতিল আবেদন খারিজ

  • নিউইয়র্কে একদিনে ৮ বাংলাদেশির মুত্যু, বিশ্বে প্রাণহানি ৩৫ হাজার ছাড়ালো

  • করোনা মোকাবিলায় গণমাধ্যম ও সরকার আরও ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে: তথ্যমন্ত্রী

  • ছায়াঢাকা সবুজ সীমান্ত গ্রাম মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকানন

  • ভিজিএফের চাল বিতরণে জেলেদের সাথে অনিয়ম- দুর্নীতি

টাকাসহ পিকে হালদারকে ‘কানাডা’ থেকে ফেরত আনা সম্ভব: বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী

টাকাসহ পিকে হালদারকে ‘কানাডা’ থেকে ফেরত আনা সম্ভব: বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী

টাকাসহ পিকে হালদারকে ‘কানাডা’ থেকে ফেরত আনা সম্ভব। বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা নিয়ে বিদেশে পাড়ি জমানো এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রশান্ত কুমার হালদারকে টাকাসহ দেশে ফেরত আনা সম্ভব বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী ব্যারিস্টার তানজীব উল আলম।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেড এর বিষয়ে আপিল খারিজের পর সাংবাদিকদের এ মন্তব্য করেন আইনজীবী তানজীব উল আলম।

প্রশান্ত কুমার হালদার ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে থেকে অন্তত সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী সে এখন কানাডায় অবস্থান করছেন।

এর মধ্যে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ে দুই আমানতকারী হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলে ১৯ জানুয়ারি এ বিষয়ে আদেশ দেন। আদেশে প্রশান্ত কুমার হালদারসহ ২০ জনের ব্যাংক হিসাব ও পাসপোর্ট জব্দ, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্ণর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদকে কোম্পানীর চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেন। এসব আদেশের বিরুদ্ধে কোম্পানিটি আপিল বিভাগে আবেদন করে। যেটি বুধবার খারিজ হয়ে যায়।  

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার তানজিব উল আলম। ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আহসানুল করিম।

খারিজাদেশের পর ব্যারিস্টার তানজীব উল আলম বলেন, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং যে আপিল করেছে সে আপিলটা খারিজ করে দিয়েছে। ফলে হাইকোর্টের আদেশ বলবৎ রয়েছে। আদেশ মতো খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ দুইটা বোর্ড মিটিং করেছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকও অনুমতি দিয়েছেন। এখন খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ এর পরবর্তী পদক্ষেপ নির্ভর করবে বাংলাদেশ ব্যাংক এখন কি করবে। বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে-প্রতিষ্ঠানটা দেউলিয়া হোক সেটা তারা চায়না।

পিকে হালদার যে টাকা বিদেশে পাচার করেছে সেটা আনা সম্ভব কিনা এমন প্রশ্নে তানজীব উল আলম বলেন, পিকে হালদার যে টাকাটা দেশ থেকে বিদেশে পাচার করেছে সেটা আনার দায়িত্ব বাংলাদেশ ব্যাংকেরও না , ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়েও না। যেহেতু সে একটা অপরাধ করেছে, এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার দায়িত্ব সরকারের। দুদক আছে। অর্থ পাচার আইনের বিষয়ে কয়েকটা প্রতিষ্ঠান আছে। ওই সব প্রতিষ্ঠান তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবে।

তিনি বলেন, যে দেশে টাকা পাচার হয়েছে সে দেশের সঙ্গে মিউচুয়্যাল কো অপারেশেন চুক্তি আছে কি না সেটা দেখতে হবে। পত্রিকায় দেখেছি সে সম্ভবত টাকাটা কানাডায় নিয়ে গেছে। কানাডার সাথে বাংলাদেশ সরকারের চুক্তিটা আছে। এ চুক্তির অধীনে সরকার যদি কানাডাকে জানায়, সে কানাডায় পাচার করা টাকা নিয়ে অবস্থান করছে। তাহলে ওই চুক্তির আওতায় কানাডা সরকার সহযোগিতা করবে বলে আমার বিশ্বাস। সে অনুযায়ী টাকাটা নিয়ে আসতে হবে।

এর আগেও বিদেশে থেকে পাচার করা টাকা ফেরত আনার উদাহরণ আছে উল্লেখ করে তানজীব উল আলম বলেন, আপনারা দেখেছেন সিঙ্গাপুর থেকে কোকোর (আরাফাত রহমান কোকো) পাচার করা টাকা এসেছে। একই পদ্ধতিতে কানাডা থেকেও আনা যাবে যেহেতু চুক্তিটা আছে। এটার জন্য অ্যাটর্নি জেনারেলকে বিরাট ভূমিকা পালন করতে হবে। কানাডার সাথে বন্দি প্রত্যাপণ (এক্সট্রাডিশন)চুক্তিও আছে। যদি পিকেসহ তাদের সহযোগীদের প্রচলিত আইনে শাস্তির ব্যবস্থা হয় তখন ওই শাস্তিকে প্রয়োগ করার জন্য এক্সট্রাডিশন চুক্তির অধীনে তাকে বাংলাদেশে নিয়ে আসা যাবে।  

হাইকোর্ট পিকে হালদার ছাড়াও যাদের ব্যাংক হিসাব ও পাসপোর্ট জব্দের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তারা হলেন- কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম. নুরুল আলম, পরিচালক জহিরুল আলম, এমএ হাশেম, নাসিম আনোয়ার, বাসুদেব ব্যানার্জী, পাপিয়া ব্যানার্জী, মোমতাজ বেগম, নওশেরুল ইসলাম, আনোয়ারুল কবির, প্রকৌশলী নরুজ্জামান, আবুল হাশেম, মো. রাশেদুল হক, পি কে হালদারের মা লীলাবতী হালদার, স্ত্রী সুস্মিতা সাহা, ভাই প্রিতুষ কুমার হালদার, চাচাতো ভাই অমিতাভ অধিকারী, অভিজিৎ অধিকারী, ব্যাংক এশিয়ার সাবেক পরিচালক ইরফান উদ্দিন আহমেদ, পিকে হালদারের বন্ধু উজ্জ্বল কুমার নন্দী।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর