channel 24

সর্বশেষ

  • মক্কা-মদিনায় কারফিউ জারি

  • করোনাভাইরাসে বিশ্বে প্রাণহানি ৫০ হাজার ২৩০

  • সুনামগঞ্জে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ওমানফেরত একজনের মৃত্যু

  • রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসকের ব্যতিক্রম ত্রাণ বিতরণ

  • করোনা শনাক্তে বিনামূল্যে নমুনা পরীক্ষা শুরু

  • দরকার ছাড়া বেরুলেই ফেরত পাঠানো হচ্ছে ঘরে

  • সপ্তাহ না পেরুতেই ধৈর্যহারা নগরবাসী; দরকার ছাড়াও বেরুচ্ছেন বাইরে

  • পিপিই পরে সাঈদ খোকনের ত্রাণ বিতরণ

  • মুখে মাস্ক পরে ফ্লিমি স্টাইলে ফার্মেসিতে ডাকাতি

  • স্পেনে একদিনে প্রাণহানি ৯৫০, মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে

  • করোনা গিলে খাচ্ছে গোটা বিশ্ব; প্রাণহানি ৫০ হাজার ছাড়িয়েছে

  • গ্রামীণ জনপদে দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল কতটা সম্ভব?

  • চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কমেছে রোগী, বন্ধ প্রাইভেট চেম্বারও

  • গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা: আইইডিসিআর

  • চট্টগ্রামে বেড়েছে ব্যক্তিগত যানচলাচল, নির্দেশনা মানতে চাইছেন না মানুষ

'তথ্য প্রবাহে অযাচিত হস্তক্ষেপে গুজবের মাধ্যমে সুবিধা পায় উগ্রবাদীরা'

'তথ্য প্রবাহে অযাচিত হস্তক্ষেপে গুজবের মাধ্যমে সুবিধা পায় উগ্রবাদীরা'

উগ্রবাদ দমন ও প্রতিরোধে গণমাধ্যমের জন্য একটি নীতিমালার পক্ষে মত দিয়েছেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা। তারা বলেন, তথ্যপ্রবাহ বন্ধ কিংবা অযাচিত হস্তক্ষেপ করলে, গুজবের মাধ্যমে সুবিধা পায় উগ্রবাদীরা। রাজধানীতে এক গোলটেবিলে আলোচনায়, উগ্রবাদবিরোধী যুদ্ধে গণমাধ্যমের সহযোগিতা চায় কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।এ সময় ইউনিট প্রধান জানান, বৈশ্বিক ঝুঁকি সূচকে সুবিধাজনক অবস্থানে বাংলাদেশ।

উগ্রবাদ প্রতিরোধে গণমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে এই গোলটেবিল আলোচনার আয়োজক সিসার্ফ নামের একটি গবেষণা সংস্থা। যাতে অংশ নেন দেশের সম্প্রচার মাধ্যমের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিরা।

জঙ্গিবাদ ও উগ্রবাদে সমসাময়িক বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও বাংলাদেশে অবস্থান নিয়ে নিজেদের কর্মকাণ্ডের কথা জানান, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলাম। বলেন, গ্লোবাল টেররিজম ইনডেক্সে সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি থেকে ছয় ধাপ কমে বাংলাদেশ ৩১ নম্বরে এসেছে। এসময় উগ্রবাদ বা জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে সতর্কভাবে সংবাদ পরিবেশনের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলা, টেলিভিশন মিডিয়ার কাভারেজসহ বিভিন্ন বিষয়ে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন সাংবাদিকরাও।

এটিএন বাংলার বার্তা প্রধান জ. ই. মামুন বলেন, এখন আর আমরা এদিক-ওদিক তাকাই না, যার তার বিরুদ্ধে মামলা দেই না। আমরা বুঝি যে, এটি আসলে জঙ্গীবাদী ঘটনা এখন আমরা জঙ্গীবাদ মোকাবেলার কথা বলি। আমরা এটির সাথে অন্য রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে জড়াই না।

চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের নির্বাহী পরিচালক তালাত মামুন বলেন, নিউজরুম থেকে প্রচুর চাপ থাকবে ওরা পাচ্ছে আমরা পাচ্ছি না কেন। এই রিয়েল টাইম ক্রাইসিস ম্যানেজম্যান্টের জন্য একটা সঠিক গাইডলাইন দরকার, একটা থ্রামরুল আমরা করি যে ঠিক আছে আমাদের একটা বর্ডার লাইন থাকবে সেখান থেকে আমরা কিভাবে কভারেজ করবো।

অনিয়ন্ত্রিত সামাজিক মাধ্যম এবং অতিনিয়ন্ত্রিত গণমাধ্যম বিষয়েও, সরকারকে আরো সতর্ক হবার অনুরোধ করেন গণমাধ্যমকর্মীরা।

গাজী টিভির বার্তা প্রধান সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, দীর্ঘদিন বাংলাদেশে এই যে লেখক ব্লগারদের হত্যা করা হয়েছিল, রাষ্ট্র আমাদের কোন নির্দেশনা দিতে পারছিলো না।

গণমাধ্যমকে প্রশাসনের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উগ্রবাদবিরোধী যুদ্ধে একসাথে লড়াইয়ে আহবান জানানো হয় সিটিটিসির পক্ষ থেকে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর