channel 24

সর্বশেষ

  • মৌলভীবাজারে চুরির অপবাদে দুই শিশুকে নির্যাতন

  • হাটহাজারীতে করোনা আক্রান্তদের পাশে তরুনরা

  • সুনামগঞ্জে নদীর পানি বাড়ায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

  • সাহেদের প্রধান সহযোগী তারেক শিবলী ৫ দিনের রিমান্ডে

  • ঝিনাইদহে ঐতিহ্যবাহী তেঁতুল গাছ রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন

  • 'সাহেদের অপকর্ম সম্পর্কে জানতে সময় লাগলেও ছাড় নয়'

  • কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ইএক্সপি যাচ্ছে অনলাইনে; চট্টগ্রাম কাস্টমসে শুল্কায়ন শুরু

  • ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ছুটছে ম্যান ইউ'র জয়রথ

  • করোনার ভুয়া সনদকাণ্ডে ইতালিতে বিপাকে বাংলাদেশিরা

  • দেশে করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৯৪৯

  • করোনায় ফরিদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের মৃত্যু

  • এলাকাভিত্তিক বিক্ষিপ্ত লকডাউন অযৌক্তিক ও অকার্যকর: স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ

  • কাজ না থাকায় বিপাকে সুনামগঞ্জের ৩ শতাধিক ভিডিওগ্রাফার

  • 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ভারতের গ্যাংস্টার বিকাশ দুবে

  • করোনার চেয়ে বেশি মানুষ মারা যেতে পারে অনাহারে: অক্সফামের সতর্কতা

বেত্রাঘাতের প্রতিশোধ নিতে শিক্ষককে খুন, একজনের মৃত্যুদণ্ড

বেত্রাঘাতের প্রতিশোধ নিতে শিক্ষককে খুন, একজনের মৃত্যুদণ্ড

বেত্রাঘাত মেনে নিতে না পেরে শিক্ষক খুনের মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। তবে রাজসাক্ষী আইনের ভুল প্রয়োগে ১৮ বছর পর খালাস পেয়েছেন এক ছাত্র। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৪ সদস্যের আপিল বেঞ্চ জানিয়েছে, এ মামলায় তারা কিছু নির্দেশনা দেবেন। আর রাজসাক্ষী আইনের সঠিক প্রয়োগ করতে বললেন আইনজ্ঞরা।

২০০২ সাল। ঢাকার গর্ভমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলে শান্তনু নামে এক ছাত্রকে পরীক্ষায় আশানুরুপ রেজাল্ট না করার কারণে বেত্রাঘাত করেন শিক্ষক স্বপন গোস্বামী। একই বছর সপ্তম শ্রেণি থেকে ৮ম শ্রেণির পরীক্ষার পাশ করেননি তানভীর শরীফ নামে আরেক শিক্ষার্থী। যা মেনে নিতে পারেননি ওই দুই শিক্ষার্থী। তাই ওই শিক্ষককে খুন করার পরিকল্পনা করতে শান্তনু তার বাবার ব্যবহার করা পিস্তলও তুলে দেন পাশের আরেকটি স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র বিপ্লব ও পেশাদার খুনী জিল্লুসহ তিনজনের হাতে।

ছোট্ট এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৬ অক্টোবর গর্ভমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলের পাশের গলিতে নৃশংসভাবে খুন হন শিক্ষক স্বপন গোস্বামী।

২০০৬ সালে এসে এ মামলায় সরাসরি গুলি করার অভিযোগে জিল্লু ও বিপ্লবকে মৃত্যুদণ্ড দেন ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। যাবজ্জীবন হয় পরশের। রাজসাক্ষী হবার কারণে ক্ষমা পায় রিফাত আকন্দ। এর মধ্যে হাইকোর্ট জিল্লুর মৃত্যুদণ্ড বহাল ও বিপ্লবের মৃত্যুদণ্ড কমিয়ে যাবজ্জীবন দেন। রাজসাক্ষী পরশ খালাস।

তবে এ মামলায় আপিল শুনানি ঘিরে উঠে আসে নতুন আইনি ব্যাখা। রাজসাক্ষী কি সঠিক আইন মেনে হয়েছিলো। অথবা এখন পর্যন্ত যে সব সাজা রাজসাক্ষীর উপর ভিত্তি করে হয়েছে তাই বা কতটুকু আইন মেনে হয়েছে। মঙ্গলবার আপিল বিভাগ এ মামলায় ১৮ বছর পর রাজসাক্ষীর ভিত্তিতে খালাস দেন নিম্ন আদালতে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া বিপ্লবকে। ভাড়াটে  খুনি জিল্লুর মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ জানিয়ে দেন তারা এ মামলায় রাজসাক্ষী নিয়ে কিছু অবজারভেশন দেবেন।

কি যুক্তিতে শিক্ষক হত্যার মত এমন একটি বিষয়ে খালাস পেলেন বিপ্লব তার ব্যাখা দিলেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। 

ফৌজদারি আইন বিশেষজ্ঞ খন্দকার মাহবুব হোসেন বলছেন, রাজসাক্ষীর যে আইন রয়েছে তাই যথেষ্ট। তবে এক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

শুধুমাত্র ছাত্রকে বেত্রাঘাত করার কারণে শিক্ষক হত্যার এ মামলা হয়তো দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। তবে আপিল বিভাগ রাজসাক্ষী হওয়ার ঘটনায় কি রায় দেন তাও দেখার বিষয়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর