channel 24

সর্বশেষ

  • নিউইয়র্কের এমন পরিস্থিতি আমি আগে দেখিনি: ট্রাম্প

  • নারী শ্রমিককে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় বখাটের ছুরিকাঘাতে ঠিকাদার নিহত

  • টিসিবির সয়াবিন তেল কিনে বেশি দামে বিক্রি করায় দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা

  • আমতলী থানা হেফাজতে মৃত্য: ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের আইনজীবীর

  • সচেতনতা বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে রাজধানীর ইব্রাহিমপুরের কিছু তরুণ

  • টোকিও অলিম্পিকের নতুন তারিখ ২০২১ সালের ২৩ জুলাই

  • করোনা সন্দেহে মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে বের করে দিলেন স্বজনরা

  • যুক্তরাজ্য থেকে ঢাকায় ৭৩ প্রবাসী, নিজ দেশে ফিরলেন ২৬৯ মার্কিন নাগরিক

  • আপেল চাষ হচ্ছে ঢাকা শহরে বাড়ির ছাদে

  • করোনায় আক্রান্ত তুরস্কের সাবেক গোলরক্ষক রুস্তো রেকবার

  • কোয়ারেন্টিনের মাঝেই ফিটনেস ধরে রাখতে মনোযোগী ফুটবলাররা

  • নারী ক্রিকেটারদেরও আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে বিসিবি

  • পীরগাছায় ট্রেনের ইঞ্জিনের ধাক্কায় অটোরিকশার চার যাত্রী নিহত

  • ডাক্তার, নার্স ও হাসপাতাল কর্মীদের পিপিই দেবে বিজিএমইএ

  • ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে বিতরণ করছে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা

বেত্রাঘাতের প্রতিশোধ নিতে শিক্ষককে খুন, একজনের মৃত্যুদণ্ড

বেত্রাঘাতের প্রতিশোধ নিতে শিক্ষককে খুন, একজনের মৃত্যুদণ্ড

বেত্রাঘাত মেনে নিতে না পেরে শিক্ষক খুনের মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। তবে রাজসাক্ষী আইনের ভুল প্রয়োগে ১৮ বছর পর খালাস পেয়েছেন এক ছাত্র। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৪ সদস্যের আপিল বেঞ্চ জানিয়েছে, এ মামলায় তারা কিছু নির্দেশনা দেবেন। আর রাজসাক্ষী আইনের সঠিক প্রয়োগ করতে বললেন আইনজ্ঞরা।

২০০২ সাল। ঢাকার গর্ভমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলে শান্তনু নামে এক ছাত্রকে পরীক্ষায় আশানুরুপ রেজাল্ট না করার কারণে বেত্রাঘাত করেন শিক্ষক স্বপন গোস্বামী। একই বছর সপ্তম শ্রেণি থেকে ৮ম শ্রেণির পরীক্ষার পাশ করেননি তানভীর শরীফ নামে আরেক শিক্ষার্থী। যা মেনে নিতে পারেননি ওই দুই শিক্ষার্থী। তাই ওই শিক্ষককে খুন করার পরিকল্পনা করতে শান্তনু তার বাবার ব্যবহার করা পিস্তলও তুলে দেন পাশের আরেকটি স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র বিপ্লব ও পেশাদার খুনী জিল্লুসহ তিনজনের হাতে।

ছোট্ট এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৬ অক্টোবর গর্ভমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলের পাশের গলিতে নৃশংসভাবে খুন হন শিক্ষক স্বপন গোস্বামী।

২০০৬ সালে এসে এ মামলায় সরাসরি গুলি করার অভিযোগে জিল্লু ও বিপ্লবকে মৃত্যুদণ্ড দেন ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। যাবজ্জীবন হয় পরশের। রাজসাক্ষী হবার কারণে ক্ষমা পায় রিফাত আকন্দ। এর মধ্যে হাইকোর্ট জিল্লুর মৃত্যুদণ্ড বহাল ও বিপ্লবের মৃত্যুদণ্ড কমিয়ে যাবজ্জীবন দেন। রাজসাক্ষী পরশ খালাস।

তবে এ মামলায় আপিল শুনানি ঘিরে উঠে আসে নতুন আইনি ব্যাখা। রাজসাক্ষী কি সঠিক আইন মেনে হয়েছিলো। অথবা এখন পর্যন্ত যে সব সাজা রাজসাক্ষীর উপর ভিত্তি করে হয়েছে তাই বা কতটুকু আইন মেনে হয়েছে। মঙ্গলবার আপিল বিভাগ এ মামলায় ১৮ বছর পর রাজসাক্ষীর ভিত্তিতে খালাস দেন নিম্ন আদালতে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া বিপ্লবকে। ভাড়াটে  খুনি জিল্লুর মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ জানিয়ে দেন তারা এ মামলায় রাজসাক্ষী নিয়ে কিছু অবজারভেশন দেবেন।

কি যুক্তিতে শিক্ষক হত্যার মত এমন একটি বিষয়ে খালাস পেলেন বিপ্লব তার ব্যাখা দিলেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। 

ফৌজদারি আইন বিশেষজ্ঞ খন্দকার মাহবুব হোসেন বলছেন, রাজসাক্ষীর যে আইন রয়েছে তাই যথেষ্ট। তবে এক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

শুধুমাত্র ছাত্রকে বেত্রাঘাত করার কারণে শিক্ষক হত্যার এ মামলা হয়তো দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। তবে আপিল বিভাগ রাজসাক্ষী হওয়ার ঘটনায় কি রায় দেন তাও দেখার বিষয়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর