channel 24

সর্বশেষ

  • বিড়াল উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস!

  • মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে সুপ্রিমকোর্টে ক্ষণ গণনার ঘড়ি উদ্বোধন

  • করোনা ভাইরাস: শাহজালাল বিমানবন্দরে বসানো হয়েছে স্ক্যানিং মেশিন

  • শেষ হল নারী ফুটবল লিগের দলবদল

  • নড়াইলে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই

  • মৌলভীবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে তিনদিন ধরে সার্ভারে সমস্যা

  • এক নারীকে নির্যাতনের পর পিকআপ থেকে ফেলে দেয়ার অভিযোগ

  • মিথ্যা ঘোষণায় আনা ১ কন্টেইনার সিগারেট জব্দ

  • বাংলাদেশকে অন্ধকার থেকে আলোতে এনেছে আ.লীগ: পরিকল্পনামন্ত্রী

  • কলেজছাত্রী হত্যা মামলায় প্রভাষকের মৃত্যুদণ্ড, এডভোকেটের যাবজ্জীবন

  • তেঁতুলিয়ায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ১, আহত অর্ধশতাধিক

  • হামলা-মামলার বিষয়ে কূটনীতিকদের অবহিত করলো বিএনপি

  • নিখুঁতভাবে কৃষিকাজ করছে রোবট

  • ইলিশের পুষ্টিগুণ, ডিমছাড়া নাকি ডিমওয়ালা ইলিশটি বেশি স্বাদের?

  • মাছকে খাবার দিবে যন্ত্র! দেশেও শুরু হয়েছে এই প্রযুক্তি

রূপপুর বালিশকাণ্ড: গণপূর্তের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ১৩ জন কারাগারে

রূপপুর বালিশকাণ্ড: গণপূর্তের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ১৩ জন কারাগারে

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে বালিশ কাণ্ডে জড়িত গণপূর্তের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলীসহ গ্রেপ্তার ১৩ জনের ঠাঁই হয়েছে কারাগারে। এর আগে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। পরে আদালতে হাজির করা হলে, তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

বেশ কয়েকদিন ধরেই আলোচনায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আবাসন প্রকল্প। অস্বাভাবিক দামে আসবাবপত্র কেনার অভিযোগে একে একে দুদকের জালে ধরা পরের তারা।

গণপূর্ত বিভাগের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলমসহ ১১জন প্রকৌশলী ও ২ জন ঠিকাদার কেনাকাটার মাধ্যমে ৩১ কোটির বেশি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পায় দুদক।

তাদের বিরুদ্ধে সকালে পাবনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে ৪টা মামলা করে দুদক। এরপরপরই রাজধানীর বিভিন্ন জায়গা থেকে আসামিদের গ্রেপ্তার করে দুদক।

গতমাসে গণপূর্তের ২৯ প্রকৌশলীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। এই ঘটনায় অনুসন্ধান করে মন্ত্রণালয়ও। সেখানেও এই জালিয়াতির বিষয়টি উঠে আসে।

বালিশ কাণ্ডের মামলার তদন্ত দ্রুত শেষ করার কথা জানিয়েছেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

অভিযোগে বলা হয়, রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রের আবাসিক প্রকল্পে একটি বালিশের পেছনে ব্যয় দেখানো হয়েছে ৬ হাজার ৭১৭ টাকা। একইভাবে টেলিভিশন, খাট, রেফ্রিজারেটর, বৈদ্যুতিক চুলা, বৈদ্যুতিক কেটলি, রুম পরিষ্কারের মেশিন, ইলেকট্রিক আয়রন, মাইক্রোওয়েভ ইত্যাদি কেনাকাটা ও ভবনে তুলতে অস্বাভাবিক খরচ দেখানো হয়। এরইমধ্যে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের তদন্তে ৬২ কোটি ২০ লাখ ৮৯ হাজার টাকার অনিয়মের তথ্য উঠে আসে। যেখানে চুক্তিমূল্যের চেয়ে ৩৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা বেশি সরকারি কোষাগারে ফেরত আনতে সুপারিশসহ বিষয়টি দুদকে পাঠানো হয়।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে বালিশকাণ্ডসহ দুর্নীতির বিভিন্ন অভিযোগের বিষয় গত ১৭ অক্টোবর দুদক কর্মকর্তা নাসির উদ্দিনকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি অনুসন্ধান দল গঠন করা হয়। অনুসন্ধান দলের অপর দুই সদস্য হলেন দুদকের সহকারী পরিচালক মো. আতিকুর রহমান ও উপ-সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ শাহজাহান মিরাজ।

রূপপুর প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বসবাসের জন্য নির্মাণাধীন গ্রিন সিটি আবাসন প্রকল্পের ২০ ও ১৬ তলা ভবনের আসবাব ও প্রয়োজনীয় মালামাল কেনা ও ভবনে উত্তোলন কাজে অস্বাভাবিক ব্যয় নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশ হলে গত ১৯ মে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর