channel 24

সর্বশেষ

  • সিরাজগঞ্জে যুবলীগ নেতা ডিজে শাকিলের প্রতারণায় নিঃস্ব অনেকে

  • নতুন মোড় নিচ্ছে সিনহা হত্যা মামলা

  • প্রথমবারের মত চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমিতে লাইপজিগ

  • সিনহা হত্যা: অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য ও সাক্ষিদের র‍্যাবের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু

  • দেশে ন্যায়পরায়ণতা প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

  • ১৫ আগস্টের নৃশংস হত্যাকাণ্ডে ছিল নানা ষড়যন্ত্র

  • কর্তৃপক্ষের মারধরে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে ৩ কিশোর নিহত

  • মহাখালী থেকে বশেমুরবিপ্রবি'র চুরি হওয়া ৩৪টি কম্পিউটার উদ্ধার

  • বদলে যাচ্ছে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের নাম

  • রাজধানীতে লাইসেন্সবিহীন গ্লোবাল গেইনে র‍্যাবের অভিযান, আটক ৮

  • সিলেটে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৩ জনসহ ৬ জন নিহত

  • ফেসবুক এজেন্ট এইচটিটিপুলের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা

  • যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে দু'গ্রুপের সংঘর্ষে ৩ কিশোর নিহত

  • দুটি পেশাদার বাহিনীকে মুখোমুখি দাঁড় করানোর অপচেষ্টা অপ্রত্যাশিত: পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন

  • শ্রীলঙ্কা সফর ঘিরে সেরা প্রস্তুতি নিতে চান সৌম্য

বাংলাদেশের পথ ব্যবহার করে ভারতীয় পণ্যের পরীক্ষামূলক ট্রান্সশিপমেন্ট শুরু জানুয়ারিতে

বাংলাদেশের পথ ব্যবহার করে ভারতীয় পণ্যের পরীক্ষামূলক ট্রান্সশিপমেন্ট শুরু জানুয়ারিতে

বাংলাদেশের পথ ব্যবহার করে ভারতীয় পণ্য পরিবহনের পরীক্ষামূলক ট্রান্সশিপমেন্ট শুরু হচ্ছে আগামী মাসে। এজন্য ভারতকে বাড়তি কোনো মাশুল গুনতে হবে না। বিকেলে বাংলাদেশ-ভারতের সচিব পর্যায়ের বৈঠক শেষে এ কথা জানান দুই নৌ সচিব। ভারতের নৌ সচিব গোপাল কৃষ্ণ বলেন, অভ্যন্তরীণ যোগাযোগের দিক থেকে বাংলাদেশ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

৩৫ হাজার মেট্রিক টন পণ্য পরিবহনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বাংলাদেশে ভারতের পণ্য পরিবহনের পরীক্ষামূলক চেষ্টা। যেই রুটকে ব্যবহার করে ভারত পরবর্তীতে বাংলাদেশকে ট্রানজিট ও ট্রান্সশিপমেন্টের ব্যবহার করতে প্রস্তাব দেওয়া হয়। আর সেই পণ্য পরিবহনে ব্যবহার হবে চট্রগ্রাম ও মংলা বন্দর। যা শুরু হবে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হবে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে। বাংলাদেশে ও ভারতের নৌ সচিব পর্যায়ের বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য দেওয়া হয়।

তবে এজন্য কোন ভিন্ন চার্জ নির্ধারণ করা হয়নি। বাংলাদেশের পূর্ব নির্ধারিত শুল্কের হারেই পণ্য পরিবহন করতে পারবে ভারত।

আর বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থান বিবেচনা করে ভারতীয় নৌপরিবহন সচিব গোপাল কৃষ্ণ বলেন, অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ মাধ্যমের দিক থেকে বাংলাদেশ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এমন চুক্তির কারণে ভারত যথেষ্ট লাভবান হবে বলে মত দেন তিনি।

প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট এন্ড ট্রেড (পিআইডব্লিউটিটি) বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির ও কাল ইন্টার গভার্নমেন্টাল কমিটির বৈঠক হবে।

এ বৈঠকে বাংলাদেশের নৌপরিবহন সচিব মো. আবদুস সামাদ ও ভারতের দেশটির নৌপরিবহন সচিব গোপাল কৃষ্ণ নেতৃত্ব দেবেন। বৈঠকে দুই দেশের নদী খনন, মাতারবাড়ি, ও ডামারা বন্দরকে পোর্ট অব কল ঘোষণা ও নাবিকদের বন্দরে নামার অনুমতিসহ ১৫টি এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হবে।

অপরদিকে, নৌপথে তৃতীয় দেশে বাণিজ্য সুযোগ সৃষ্টিসহ ১১টি বিষয়ে আলোচনা করবে ভারত। এছাড়া, স্থলবন্দর চুক্তি, নদী খনন, পণ্য পরিবহনসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর