channel 24

সর্বশেষ

  • টক-মিষ্টি স্বাদের লটকন

  • এখনো পাওনা এক টাকাও পায়নি ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্রিকেটাররা

  • কক্সবাজার সৈকতে ভাসছে বর্জ্য, মারা গেছে ২০টি কচ্ছপ

  • পাঁচ প্রতিষ্ঠানের করোনা নমুনা পরীক্ষা স্থগিত

  • ৩ বছর বন্ধের পর কক্সবাজারে পুনরায় শুরু হচ্ছে জন্মনিবন্ধন প্রক্রিয়া

  • সাবরিনা-আরিফ দম্পতির রূপকথার জীবনের নানা গল্প

  • খাগড়াছড়িতে সাবেক ছাত্রদল নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

  • চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্রলীগের দু'গ্রুপে সংঘর্ষ, আহত ৭

  • স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি আবুল কালাম আজাদকে শোকজ

  • এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকীর দিন উপনির্বাচন পেছাতে ইসিতে জাপা

  • ডা. সাবরিনা জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট থেকে বরখাস্ত

  • জ্বর-সর্দি ও শ্বাসকষ্টে দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০ জনের মৃত্যু

  • উন্মুক্ত স্থানে নয়, ঈদুল আজহার জামাত হবে মসজিদে: ধর্ম মন্ত্রণালয়

  • দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

  • জিজ্ঞাসাবাদে ডা. সাবরিনা সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেননি: ডিসি হারুন

রাবি ভিসির পদে থাকার বৈধতা নিয়ে রুল

রাবি ভিসির পদে থাকার বৈধতা নিয়ে রুল

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান কোন কর্তৃত্ববলে ভিসি পদে বহাল আছেন তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন করেছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (২ ডিসেম্বর) বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো: ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী। সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট মুজাহিদুল ইসলাম শাহীন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাইনুল হাসান।

আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে রাবি ভিসিসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এর আগে রাবি ভিসির পদে থাকার বৈধতা নিয়ে রিট করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক ছাত্র সালমান ফিরোজ ফয়সাল।

গত ১৫ ম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহানের অপসারণ চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়।

 অসত্য তথ্য দিয়ে পুনরায় ভিসি পদে নিয়োগ ও স্বপদে থাকার অভিযোগ এনে এ নোটিশ পাঠানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাবেক এক শিক্ষার্থী সালমান ফিরোজ ফয়সালের পক্ষে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী মুহা. মুজাহিদুল ইসলাম এ নোটিশ পাঠান।

নোটিশে বলা হয়েছে অধ্যাপক ড. এম. আব্দুস সোবহান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে ২০১৭ সালের ৭ মে চার বছরের জন্য দ্বিতীয় মেয়াদে নিয়োগ পান। ওইদিনই তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এরপর একই বছরের ২১ জুন তিনি উপাচার্যের পদে থেকে ফলিত পদার্থ বিজ্ঞান ও ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। আবার ওইদিনই তিনি স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণ করেন। ফলে উপাচার্যের পদে সাময়িক শূন্যতা সৃষ্টি হয়। উপাচার্য পদে সাময়িক শূন্যতা পূরণকল্পে রাষ্ট্রপতির অনুমতি ছাড়াই একদিনের জন্য বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. আখতার ফারুককে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য নিয়োগ দেন। যা ১৯৭৩ সালের বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশের পরিপন্থী।নোটিশের জবাব না পাওয়া হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর