channel 24

সর্বশেষ

  • ওয়াশিংটনের সঙ্গে বাণিজ্যদ্বন্দ্বের বলি চীনা প্রতিষ্ঠান টিকটক

  • করোনাকালেও দিন-রাত কাজ চলছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে

  • বিশ্বজুড়ে করোনায় প্রাণহানি ৭ লাখ ১৯ হাজার

  • ঈদ উৎসবে অর্থনীতিতে প্রাণ ফেরার আভাস

  • রিয়ালকে হারিয়ে শেষ আটে ম্যান সিটি

  • কোটি টাকার সেতু আছে, নেই সংযোগ সড়ক

  • টাঙ্গাইলে বন্যায় সাড়ে দশ হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট

  • উন্নতি-অবনতির দোলাচলে বন্দি বানভাসি মানুষের জীবন

  • সিনহা রাশেদ হত্যা মামলায় পলাতক দুই আসামির হদিস নেই

  • চুয়াডাঙ্গায় বাসের ধাক্কায় ইঞ্জিন চালিত ভ্যানের ৬ যাত্রী নিহত

  • বঙ্গমাতার ৯০ তম জন্মবার্ষিকী আজ

  • ভারতের কেরালায় ১৯১ যাত্রী নিয়ে বিমান দুর্ঘটনা, নিহত ১৫

  • ফুটবলারদের করোনা টেস্ট নিয়ে বিব্রত ফেডারেশন

  • শ্রীলঙ্কা সফরে ফিরছেন সাকিব আল হাসান

  • কাল আবার শুরু ক্রিকেটারদের একক অনুশীলন

মিয়ানমারের মিথ্যা তথ্য প্রচারের প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ

মিয়ানমারের মিথ্যা তথ্য প্রচারের প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিথ্যা তথ্য প্রচারের প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ। রোববার (২৪ নভেম্বর) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অফিসের মুখপাত্র গত ১৫ নভেম্বর সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যা দাবি করে যে, 'বাংলাদেশের অসহযোগিতার কারণে প্রত্যাবাসন শুরু করা যাচ্ছে না।' এর প্রতিবাদ করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, এসব অযৌক্তিক ও মিথ্যা দাবি করে মূলত রাখাইনে যে সহায়ক পরিবেশ তৈরির দায়িত্ব রয়েছে মিয়ানমারের, সেটি তারা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। এটি প্রতিষ্ঠিত সত্য, রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে মিয়ানমারে তাদের ওপর ধারাবাহিকভাবে নিষ্ঠুর নির্যাতনের কারণে। মিয়ানমারের বর্তমান সরকারও আগের সরকারের নীতি অব্যাহত রেখেছে। এই সমস্যা মিয়ানমার তৈরি করেছে এবং এর সমাধানও মিয়ানমারকেই করতে হবে। রোহিঙ্গা সমস্যা দীর্ঘায়িত হওয়ার জন্য মিযানমারই দায়ী।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, রোহিঙ্গা সমস্যা জিইয়ে রাখার কোনও ইচ্ছা বাংলাদেশের নেই। প্রত্যাবাসন সংক্রান্ত চুক্তি বাস্তবায়নে বাংলাদেশের আগ্রহ তার কাজের মাধ্যমে প্রশ্নাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। গত আগস্টে মিয়ানমার কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে রোহিঙ্গারা পরিষ্কার জানিয়ে দেয়, রাখাইনে নিরাপদ পরিবেশ তৈরি হলে তারা ফেরত যাবে। মিয়ানমার দাবি করছে, কতিপয় রোহিঙ্গা ফেরত গেছে। কিন্তু এটি প্রমাণ করে না যে, এর ফলে সেখানকার পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, মিয়ানমার দাবি করছে, সেখানকার পরিস্থিতি নাকি উন্নতি হয়েছে। এটি যদি সত্য হয়ে থাকে-তবে জাতিসংঘ, মিডিয়া এবং রোহিঙ্গা নেতাদের রাখাইন পরিদর্শনের সুযোগ করে দেওয়া হোক। যাতে করে তারা ঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর