channel 24

সর্বশেষ

  • বেসরকারি হাসপাতাল মালিকদের কাছে জিম্মি চট্টগ্রামের স্বাস্থ্যখাত

  • করোনা উপসর্গ নিয়ে সারা দেশে আরও ১৫ জনের মৃত্যু

  • নেগেটিভ রোগিকে রাখা হয়েছে করোনা ইউনিটে, আগুনে মৃত্যুর পর দেড় লাখ টাকা বিল দাবি!

  • ৮ জুলাই টেস্ট ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফিরছে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ

  • লালমনিরহাটে বাস শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ

  • করোনায় মারা গেলেন আরও এক পুলিশ সদস্য

  • ঢাকা দ. সিটির দুর্নীতি উৎপাটনের হুঁশিয়ারি তাপসের

  • অবৈধপথে বিদেশ পাড়ি; দালালচক্রের কাছে বন্দি জীবন

  • কক্সবাজারে পূর্ব শত্রুতার জেরে বৃদ্ধকে প্রকাশ্যে নির্যাতন

  • নগদ অর্থ সহায়তা ও ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম: বরখাস্ত আরও ১১ জনপ্রতিনিধি

  • ঝুঁকি নিয়েই স্বাভাবিক চেহারায় দেশ

  • করোনা আক্রান্ত দম্পতির স্থান হয়েছে পরিত্যক্ত মুরগীর খামারে

  • করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দেশে অর্ধলাখ ছাড়িয়েছে

  • চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত ৩ হাজার ছাড়ালো

  • গণপরিবহন বেড়েছে চট্টগ্রামের রাস্তায়

কৃষি জমিতে শিল্প-কারখানা করতে দেয়া হবে না: প্রধানমন্ত্রী

কৃষি জমিতে শিল্প-কারখানা করতে দেয়া হবে না: প্রধানমন্ত্রী

কৃষি জমিতে শিল্প-কারখানা করতে দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (৬ নভেম্বর) রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কৃষক লীগের দশম সম্মেলন উদ্বোধন করে তিনি বলেন, দেশের এক খণ্ড জমিও অনাবাদী থাকবে না। এসময় কৃষকলীগে নেতাকর্মীদের কৃষিকাজে সম্পৃক্ত হয়ে অন্তত তিনটি করে গাছ লাগানোর নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে গড়া বাংলাদেশ কৃষক লীগের দশম সম্মেলন হচ্ছে প্রায় সোয়া সাত বছর পর। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারের কাউন্সিলে যোগ দিচ্ছেন ৭ হাজার কাউন্সিল এবং ৯ হাজার ডেলিগেট। বুধবার সকাল থেকেই দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সম্মেলনস্থলে জড়ো হতে থাকেন কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার আগে কৃষকদের জন্য কোন উন্নয়নমুলক কাজ হয়নি।

তিনি বলেন, 'কৃষকের স্বার্থ রক্ষার পাশাপাশি আমরা উন্নত হবো, শিল্পায়ন করবো। তবে কৃষকদের বা কৃষিকে বাদ দিয়ে নয়। কাজেই আমাদের উন্নয়নে কৃষকদের সবসময় গুরুত্ব দিয়ে থাকি। আগে কৃষক ফসল ফলাতো, কিন্তু তার পেটে খাবার ছিল না। তাদের পরনের কাপড় ছিল না। কৃষকের অধিকার সংরক্ষণে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।'

প্রায় ৩ কোটি কৃষক সরকারি সহায়তা পাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী হুশিয়ারি দেন, কৃষকের টাকা নিয়ে যেন অনিয়ম না হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমরা ইতোমধ্যে জাতীয় কৃষিনীতি-২০১৮ প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। কৃষি খাতে আমরা ভর্তুকি দিচ্ছি। আগে কৃষকদের ভর্তুকি দিতে গেলে ওয়ার্ল্ড ব্যাংক মানা করতো। আওয়ামী লীগ সরকার তা সচল রেখেছে। গত ১১ বছরে আমরা কৃষি খাতে ৬৫ হাজার ৫৭১ কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়েছি।'

সরকার কৃষকদের সুবিধার জন্য কলসেন্টারসহ ডিজিটাল সব সুবিধা দিচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। কৃষকলীগের সবাইকে কৃষিকাজে প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে অংশ নেয়ার নির্দেশনা দেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, 'বাংলাদেশে ই-কৃষি চালু হয়েছে। কৃষকরা যেকোনও সমস্যার সমাধানে '১৬১২৩' নম্বরে কল করে জানতে পারে। আমাদের কৃষকরাও এখন যথেষ্ট পরিপক্ব।'

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধু কন্যা। তিনি বলেন, কৃষকদের নিয়ে পিতার স্বপ্ন পূরণ করাই তার অঙ্গীকার।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর