channel 24

সর্বশেষ

  • কুমিল্লা নগরীতে করোনা আক্রান্ত এক নারীর মৃত্যু

  • যশোরে র‌্যাবের সাথে 'বন্দুকযুদ্ধে' মাদক ব্যবসায়ী নিহত

  • যশোর শিক্ষা বোর্ডে পাশের হার ৮৭ দশমিক ৩১

  • দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে পাশের হার ৮২ দশমিক ৭৩

  • কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮৫ দশমিক ২২; জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০ হাজার ২৪৫ জন

  • কুমিল্লায় নিখোঁজের ৩ দিন পর যুবকের মরদেহ উদ্ধার, চাচী আটক

  • ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ ৫-এ মেয়েরা এগিয়ে

  • মৌলভীবাজারে ঘরে ঢুকে এক ব্যক্তিকে গলাকেটে হত্যা

  • সিলেট শিক্ষা বোর্ডে এবার বেড়েছে পাসের হার ও জিপিএ ৫

  • কেনাকাটার অনলাইন প্ল্যাটফর্মে অবস্থান শক্ত করতে ব্যস্ত ব্যবসায়ীরা

  • সিলেটে বন্যপ্রাণি পিটিয়ে হত্যায় দুজনের নামে মামলা

  • বুন্দেসলিগায় বড় জয় বায়ার্ন মিউনিখের

  • করোনা সংক্রমণ রোধে বগুড়ায় ৭ দিন মার্কেট বন্ধের ঘোষণা

  • করোনা দুর্যোগে কিভাবে কাটছে নিষিদ্ধ পল্লির যৌনকর্মীদের দিন?

  • যেভাবে জানা যাবে এসএসসি ও সমমানের ফল

১৪১ পদের বিপরীতে কারাগারে চিকিৎসক ১০ জন, হাইকোর্টে প্রতিবেদন

১৪১ পদের বিপরীতে কারাগারে চিকিৎসক ১০ জন, হাইকোর্টে প্রতিবেদন

দেশের ৬৮টি কারাগারে ১৪১টি পদের বিপরীতে চিকিৎসক রয়েছেন মাত্র ১০ জন। অপরদিকে কারাবন্দিদের মোট ৪০ হাজার ৬৬৪ জন ধারণ সংখ্যার বিপরীতে বন্দী রয়েছেন ৮৬ হাজার ৯৯৮জন।

গত ২৭ আগষ্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী এ তথ্য।

২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি ২০ জন চিকিৎসককে কারাগারে পদায়ন করা হয়। এর মধ্যে ৪জন কাজে যোগদান করেছেন। বাকী ১৬জন এখনো যোগদান করেননি।

কেন ওই ১৬জন যোগদান করেননি তা আগামী ১১ নভেম্বরের মধ্যে জানাতে আদালত রাষ্ট্রপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন।
কারা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে দেওয়া এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদন হাইকোর্টে উপস্থাপন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিচারপতি বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ পরবর্তী আদেশের জন্য ১১ নভেম্বর দিন ঠিক করেছেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও আইনজীবী মো.জে আর খাঁন রবিন।

আইনজীবী মো.জে আর খাঁন রবিন  জানান, গত ২৩ জুন এক আদেশে আদালত সারাদেশের সব কারাগারে বন্দিদের ধারণক্ষমতা, বন্দি ও চিকিৎসকের সংখ্যা এবং চিকিৎসকের শূন্যপদের তালিকা দাখিলের নির্দেশ দিয়ে রুল জারি করে। ওই নির্দেশ অনুসারে কারা মহাপরিদর্শক ব্রি.জে একেএম মোস্তফা কামাল পাশার পক্ষে ডেপুটি জেলার মুমিনুল ইসলাম একটি প্রতিবেদন জমা দেন।

প্রতিবেদনে বলা হয় কারা চিকিৎসকের অনুমোদিত পদের সংখ্যা ১৪১টি। এর বিপরীতে চিকিৎসক কর্মরত রয়েছেন ১০ জন। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে প্রেষণে বদলির মাধ্যমে কারা চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়ার বিধান রয়েছে। তাই সরাসরি বা চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের সুযোগ নেই। এদিকে ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি ২০ জন চিকিৎসককে কারাগারে পদায়ন করা হয়। এর মধ্যে মাত্র ৪জন যোগদান করে। বাকী ১৬জন এখনো যোগদান করেননি।

কেন ওই ১৬জন যোগদান করেননি তা ১১নভেম্বরের মধ্যে জানাতে আদালত রাষ্ট্রপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান মো.জে আর খাঁন রবিন।  

এ বিষয়ে কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন যুক্ত করে আদালতে রিট আবেদনটি দায়ের করেন আইনজীবী মো.জে আর খাঁন (রবিন)।

২৩ জুন জারি করা রুলে কারাগারে আইনগত অধিকার নিশ্চিতে মানসম্মত থাকার জায়গা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি হবে না এবং বন্দিদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে কারা চিকিৎসকের শূন্যপদে নিয়োগ দিতে নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে তা জানতে চেয়েছেন।

বিবাদীরা হচ্ছেন আইন সচিব, স্ব রাষ্ট্র সচিব (সুরক্ষা বিভাগ), স্বাস্থ্য সচিব, সমাজ কল্যাণ সচিব, জনপ্রশাসন সচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও কারা মহাপরিচালক।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর