channel 24

সর্বশেষ

  • করোনা নিয়ে মিথ্যাচার করায় ‘চীনা নেটওয়ার্ক’ মুছে দিলো ফেইসবুক, ইনস্টাগ্রাম

  • দুর্গাপুরে চিনামাটির পাহাড়ে নেই টুরিজম ফ্যাসিলিটি

  • ঠেলা দিয়ে বিমান সরাচ্ছে যাত্রীরা, ভিডিও ভাইরাল

  • শ্রেণিকক্ষে ঢুকে পড়ল বাঘ, শিক্ষার্থীকে আক্রমণ (ভিডিও)

  • বিশ্বে আবারও বাড়লো করোনায় আক্রান্ত ও মৃ ত্যুর সংখ্যা

  • টিকা নেয়ার পরও আক্রান্ত, ২৭ দেশে ওমিক্রন শনাক্ত

  • গ্যাস সিলিন্ডারে দগ্ধ ভাই-বোন মারা গেছেন

  • অভিমানে চেয়ারম্যানের দেয়া উপহার আগুনে পোড়ালেন সমর্থক

  • বিজয় দিবসে দেশব্যাপী শপথ বাক্য পাঠ করাবেন প্রধানমন্ত্রী

  • করোনার টিকা নিতে হবে টানা কয়েক বছর: ফাইজার প্রধান

  • চার বছর পর হিলি দিয়ে কয়লা আমদানি শুরু

  • নারী কেলেঙ্কারি: নাচোলের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার

  • টাঙ্গাইলে দক্ষিণ আফ্রিকাফেরত ৬ প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টিনে

  • নির্ধারিত সময়ে ২৭ শতাংশ আয়কর রিটার্ন জমা

  • এবার মার্কিন পুলিশের গু লিতে প্রাণ হারালেন হুইলচেয়ারে বসা বৃদ্ধ

প্রোটিনের ঘাটতিতে হতে পারে জটিল রোগ, দেখে নিন লক্ষণগুলো

প্রোটিনের ঘাটতিতে হতে পারে জটিল রোগ, দেখে নিন লক্ষণগুলো

শরীরকে সুস্থ সবল রাখার জন্য আমিষ বা প্রোটিনের গুরুত্ব অপরিসীম। দেহের স্বাস্থ্যকর কার্যকারিতার জন্য প্রোটিন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান। বিপাক থেকে শুরু করে পেশি সংশ্লেষণ পর্যন্ত প্রোটিনের ভূমিকা অপরিসীম। কিন্তু, প্রোটিনের অভাবে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন আপনি। আপনার স্বাস্থ্য ভেঙে যেতে পারে। আমাদের শরীরে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন কোষের জন্ম হচ্ছে। এই কোষ তৈরিতে প্রোটিন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

তবে আমাদের রোজকার খাবারে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন আছে কিনা, তা আমাদের অনেকেরই জানা থাকে না। খাবারে পর্যাপ্ত প্রোটিন না থাকলে শরীরে দেখা দিতে পারে নানা জটিলতা। তাই শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে কিনা তা বোঝার কয়েকটি লক্ষণ দেখে নিন।

শরীর দুর্বল লাগা, ক্লান্ত লাগা
প্রোটিন শরীরে এনার্জি দেয়। শরীরের বল থাকলে কাজ করার স্পৃহা থাকে। শরীরে যদি প্রোটিনের ঘাটতি থাকে তা হলে সারা দিন ক্লান্ত লাগতে পারে। ঘুম-ঘুম ভাব থাকতে পারে। কাজের মাঝে ক্লান্ত বোধ করা স্বাভাবিক। কিন্তু ক্লান্তিভাব যদি অতিরিক্ত মাত্রায় বোধ হয় তাহলে তা প্রোটিনের ঘাটতির লক্ষণ। 

ঘন ঘন অসুস্থ হয়ে পড়া, বা সুস্থ হতে সময় লাগা ইত্যাদিও শরীরে প্রোটিনের অভাবের লক্ষণ হতে পারে। প্রোটিন শরীরে কোষ গঠনে সাহায্য করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। তাই শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি দেখা দিলে শরীর সুস্থ হয়ে উঠতে সময় লাগে।

আরও পড়ুন: যেসব সবজির আড়ালে লুকিয়ে আছে বিপদ

পেশিতে জোর না পাওয়া
পেশি গঠন ও মজবুত করতে সাহায্য করে প্রোটিন। যারা বডি বিল্ডিং করেন বা মাসল বিল্ডিং করেন, তাদের অনেকেই প্রোটিন জুস বা শেক (Protein Shake) খেয়ে থাকেন। যদি শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি থাকে, তা হলে পেশিতে জোর থাকবে না। কোনও ভারী জিনিস তুলতে সমস্যা দেখা দিতে পারে। 

প্রোটিন আপনার শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি অ্যান্টিবডি নির্মাণ এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর সাথে গভীরভাবে সম্পর্কিত। সুতরাং যখন প্রোটিনের ঘাটতি হয় তখন ইমিউন সিস্টেম দুর্বল হয়ে পড়ে এবং ঠাণ্ডা লেগে যাওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

খিদে বেড়ে যাওয়া
প্রোটিন শরীরের অন্যতম প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস। যদি শরীরে এর ঘাটতি থাকে তা হলে শরীর খিদের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়ে তা মেটানোর চেষ্টা করে। তবে এই খিদেটা যদি কোনও প্রসেসড ফুড বা জাঙ্ক ফুড দিয়ে মেটানো হয়, তা হলে ওজন বেড়ে যাওয়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে। হজমের সমস্যাও দেখা দিতে পারে। ওজন হ্রাস করতে চাইলে হাই প্রোটিন খাদ্য তালিকার মধ্য দিয়ে যেতে হয়।

অল্প বয়সে বার্ধক্যের ছাপ পড়া
২০১৯ সালে Indian Dermatology Online Journal-এ প্রকাশিত একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রোটিনের ঘাটতি ত্বক, চুল ও নখের ওপরে প্রভাব ফেলতে পারে। যার ফলে ত্বকের বলিরেখা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। বার্ধক্যজনিত সমস্যাও দেখা দিতে পারে। প্রোটিনের অভাবে হাড় এবং পেশী দুই’ই  দুর্বল হয়ে যায়। শক্তিশালী হাড়ের জন্য প্রোটিন অপরিহার্য একটি উপাদান। প্রোটিন ক্যালসিয়ামের শোষণ বৃদ্ধি করে যা হাড়কে শক্ত করে রাখে।

চোখ এবং হাত ফুলে যাওয়া
প্রোটিনের অভাবে দেহে ফোলাভাব তৈরি হতে পারে। আর এই সমস্যা থেকেই লিভার নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও থাকে। প্রোটিন শরীরে নতুন কোষ তৈরি করতে সাহায্য করে। আর তাই প্রোটিনের অভাবে শরীরে পানি জমতে শুরু করে, যার ফলে শরীরের বিভিন্ন অংশ ফুলে যেতে শুরু করে। বিশেষত চোখ এবং হাতে ফোলাভাব বেশি নজরে পড়ে। 

এ ছাড়া অ্যানিমিয়াও হতে পারে। অ্যানিমিয়া এমন একটি রোগ যেখানে শরীর পর্যাপ্ত পরিমাণে লাল রক্ত কণিকা তৈরি করতে ব্যর্থ হয়। প্রোটিন কম খাওয়া হলে শরীরের নানা জায়গা ফুলে যায়। একে ইডিমাও বলা হয় থাকে। যে অঙ্গগুলো বেশি ফোলে সেগুলি হল, হাত, পা, পায়ের পাতা, পেট। এর একটা সম্ভাব্য ব্যাখ্যা হল, রক্তের মধ্যে সংবহন হওয়া প্রোটিন, বিশেষত অ্যালবুমিন আমাদের টিস্যুতে তরল জমতে দেয় না। ফলে প্রোটিনের ঘাটতি হলেই এই জল জমার প্রবণতা বেড়ে যায়।

আরও পড়ুন: তুলসী পাতার যত গুণ

নখ সাদা হয়ে যাওয়া
প্রোটিন নখের স্বাস্থ্যও রক্ষা করে থাকে। নখ সাধারণত হালকা গোলাপি রঙ-এর হয়ে থাকে। যদি মনে হয় নখের রঙ অনেকটা সাদা অথবা ফ্যাকাশে হয়ে গিয়েছে, তাহলে বুঝতে হবে শরীরে প্রোটিনের অভাব দেখা দিয়েছে। নখের সমস্যাও প্রোটিন শরীরে কম ঢোকার আর একটি লক্ষণ।

ত্বক রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যাওয়া
প্রোটিনের অভাবে ত্বক অনেক বেশি রুক্ষ আর শুষ্ক হয়ে যায়। ত্বকের মসৃণতা নষ্ট হয়ে যায়। এমন ধরনের সমস্যাতেও বুঝতে হবে শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে। প্রোটিনের ঘাটতি থেকে চুলের সমস্যা দেখা দেয়। চুল উঠতে থাকে ক্রমাগত। পাতলা হয়ে গিয়ে টাক পড়ার অবস্থা হয়।এর পাশাপাশি প্রোটিনের ঘাটতি আমাদের চামড়ার সমস্যা তৈরি করে। ত্বক শুকনো, খসখসে হয়ে যায়। র‌্যাশ বেরোয়। অনেক সময়ে চামড়া ফেটে যায়। এ ছাড়া নখের সমস্যাও প্রোটিন শরীরে কম ঢোকার আর একটি লক্ষণ। নখ একটু বিবর্ণ হয়, লম্বা লম্বা দাগের মতো হয় নখের উপরে। বিশেষ করে হাতের নখে।

চুল পাতলা হয়ে যাওয়া
নখ ও চুলের বৃদ্ধির জন্য প্রোটিন একটি সাহায্যকারী উপাদান। চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যা অনেকসময়ে বংশগত কারণেও হতে পারে। কিন্তু তা যদি বেশি পরিমাণে হতে থাকে তাহলে বুঝতে হবে শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। 

প্রোটিন চুলের একটি অপরিহার্য উপাদান। লম্বা এবং শক্তিশালী চুলের বৃদ্ধির জন্য প্রোটিন খুবই আবশ্যক। সুতরাং যখন এই অপরিহার্য ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্টের অভাব ঘটে আপনার চুল দুর্বল হয়ে যায়, ভঙ্গুর হয়ে যায় এবং চুল পড়ার সমস্যা দেখা যায়।

এসিএন/

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর