channel 24

সর্বশেষ

  • নোয়াবের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় এ কে আজাদকে ফুলেল শুভেচ্ছা

  • চট্টগ্রামে রেলক্রসিংয়ে দুর্ঘটনার জন্য বাস চালক দায়ী: তদন্ত কমিটি

  • বিয়ের আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন

  • চাকরি দিচ্ছে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ

  • অ স্ত্র প্রতিযোগিতা নয়, শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়তে সম্পদ ব্যবহার করুন: প্রধানমন্ত্রী

  • নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা দিনের পর দিন চলতে পারে না: নির্বাচন কমিশনার

  • পেগাসাস স্পাইওয়্যারের কার্যক্রম বন্ধে হাইকোর্টের রুল

  • ভাইকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেল যুবক

  • স্বাস্থ্য সচিব-ডিজির বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল

  • নৌকার মনোনয়ন পাওয়ায় চেয়ারম্যানের ছেলের হাতবোমা বিস্ফোরণ করে উল্লাস

  • অর্থপাচারকারীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরিতে আইনের সংশোধন চায় দুদক

  • ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’: সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

  • পুলিশ হেফাজত থেকে পালাল রোহিঙ্গা কালাম

  • বিমানবন্দরে আটকে দেয়া হলো জ্যাকুলিনকে

  • দেশের অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে অবদান রাখছে নাভানা গ্রুপ

‘ফুলের চা’য়ের অনন্য স্বাস্থ্য উপকারিতা

‘ফুলের চা’য়ের অনন্য স্বাস্থ্য উপকারিতা

সাধারণত আমরা চা গাছ থেকে তোলা পাতা, বা গ্রিন টি পান করে অভ্যস্থ। পাতার চা ছাড়াও অন্য বিভিন্ন ধরনের চায়ের সঙ্গেও আমরা পরিচিত। যেমন আদা চা, লেবু চা, মেথি চা, তুলসী চা ইত্যাদি চায়ের স্বাস্থ্যগুণের কথা আমরা কমবেশি সবাই জানি। কিন্তু ‘ফুলের চা’র স্বাস্থ্য উপকারিতার বিষয়ে অবগত আছেন কি? শরীরে জমতে থাকা বাড়তি মেদ কমাতে ফুলের চা বেশ কার্যকর। ফুলের চা-এর রয়েছে আরও অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা যা আপনি হয়ত কখনো ভাবতেও পারেননি। আসুন জেনে নেই বিভিন্ন ফুলের চায়ের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে-

গোলাপের চা
শুকনা কিংবা তাজা- উভয় প্রকার পাপড়ি দিয়েই তৈরি করা যায় গোলাপের চা। প্রথমে গোলাপের পাপড়িগুলো ভালোভাবে ধুয়ে নিয়ে অল্প আঁচে পানিতে ফোটাতে হবে মিনিট পাঁচেক। চায়ের স্বাদ বাড়াতে এর সঙ্গে আদা ও দারুচিনিগুঁড়া বা এলাচগুঁড়া যোগ করতে পারেন।

গোলাপ-চায়ের স্বাস্থ্য উপকারিতাও কম নয়। এটি পানে ওজন কমে। এ চায়ে রয়েছে অ্যান্টিইনফ্লামেটরি ‍উপাদান যা শরীরের ফোলাভাব কমায়। এছাড়া ডায়রিয়া ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সারায়। ইউরিন ইনফেকশন থাকলে গোলাপ-চা পানে উপকার মেলে। ভিটামিন সি থাকায় রোগ প্রতিরোধক্ষমতাও বাড়ে। গোলাপ-চা মনকে ফুরফুরে করে। ত্বক ও চুলের উন্নতিও ঘটায়।

আরও পড়ুন: প্যান্টের পকেটে মোবাইল ফোন রাখা কি ক্ষতিকর?

জুঁই চা
সুগন্ধী ফুল হিসেবে জুঁইফুল অনেকেই পছন্দ করেন। ফুলের চা-ও বেশ সুগন্ধযুক্ত ও স্বাস্থ্যকর। জুঁই প্রাকৃতিকভাবেই মিষ্টি। ফলে বাড়তি চিনি এড়িয়ে চলা যায়। গরম পানিতে গোটা ফুল কিছুক্ষণ ফুটিয়ে সহজেই তৈরি করতে পারেন জুঁইফুলের চা।

জুঁই চা পানে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রিত হয়। হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমে। এই চায়ে ব্যথানাশী গুণ আছে। লোহিত রক্তকণিকার কোষঝিল্লি সুরক্ষিত রাখতে পারে জুঁই চা।

জবা চা
জবফুলের চা-এর রং সহজেই যেকোনো চা-প্রেমীদের আকৃষ্ট করতে পারে। জবার ফুলের বড় একটি পাপড়ি সংগ্রহ করে ধুয়ে সরাসরিই ব্যবহার করা যায়; শুকানোর দরকার হয় না। প্রথমে পানিতে আদাকুচি, লেবু ও চিনি মিশিয়ে ফোটাতে হবে। তারপর তাতে ফুলের পাপড়ি ছেড়ে দিলে রঙ ছাড়বে। আরও কিছুক্ষণ পানি ফুটিয়ে চা গাঢ় হলে তা ছেঁকে নিলেই হয়ে যাবে জবা-চা। কাপে ঢেলে লেবুর রস মেশালে রঙ গাঢ় হবে। একটি গ্রিন টি-ব্যাগ ডুবিয়ে নিলেই জবা-চা পরিবেশনের উপযোগী হয়। 

জবা-চা হজমশক্তি বাড়ায়, কোষ্ঠ্যকাঠিন্য সারায়। নিয়মিত জবা-চা পানে শরীরে শর্করার শোষণ কমে, ফলে ওজন কমে। জবা-চা ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমায় ফলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমে। পেটের রোগবালাই থেকে সুরক্ষা দেয়। পেপটিক আলসার সারাইয়েও কাজ করে এ ফুলের চা। এই পানীতে ভিটামিন সি-এ থাকায় শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ে। জবার চা শরীরের টক্সিক বের করে দেয়, এতে লিভারের কার্যক্ষমতা বাড়ে। সর্দিকাশি দূর করার জন্য এই চা বিশেষ উপকারী।

আরও পড়ুন: সকালে খালি পেটে জিরা পানি খাওয়ার জাদুকরি উপকারিতা

অপরাজিতা চা
রঙ, স্বাদ ও পুষ্টিগুণে অনন্য নীল অপরাজিতার চা। নীল রংয়ের পানীয়টি দেখতে সুন্দর, খেতেও সুস্বাদু। প্রথমে প্রয়োজনমতো পানি ফুটিয়ে তাতে শুকনা অপরাজিতার পাপড়ি ছেড়ে দিন। রঙ ধীরে ধীরে নীল হয়ে আসলে কয়েকটি পুদিনাপাতা দিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে নিন। ছেঁকে কাপে ঢেলে মধুযোগে পরিবেশন করা যেতে পারে। চায়ের রঙ আরও গাঢ় চাইলে লেবুর রস যুক্ত করতে হবে।

অপরাজিতা চা মনকে দিনভর চাঙা রাখে। এতে ক্যানসার প্রতিরোধী উপাদান আছে। ডাইইউরেটিক হওয়ায় এ চা ইউরিনেশনে সাহায্য করে। এতে সাইক্লোটাইডের অ্যান্টিএইচআইভি ও অ্যান্টিটিউমার গুণ রয়েছে। এ ফুলের চা ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না। এর ফ্লাভনয়েড চামড়ায় কোলাজেন তৈরি করে ইলাস্টিসিটি বাড়ায়। ফলে বলিরেখা পড়ে না। অ্যান্থোসায়ানিন থাকায় চুল পড়ার সমস্যা দূর করে। স্ক্যাল্পে রক্তসঞ্চালন ত্বরান্বিত করে হেয়ার ফলিকল বাড়ায় অপরাজিতা চা। তা ছাড়া রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেয়। নিয়মিত পানে মানবদেহ ক্ষতিকর সংক্রমণ থেকে রেহাই পায়। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এ ফুলের চা বিশেষ উপকারী। এটি হজমশক্তি বাড়ায়। লিভারে বাইল তৈরিতে সাহায্য করে। এ ছাড়া বমিভাব কাটাতেও পান করা যেতে পারে অপরাজিতা চা।

এসিএন/

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর