channel 24

সর্বশেষ

  • ক্রীড়াবিদদের চাকরির কোটা ফেরাতে বাণিজ্য মন্ত্রীর ইতিবাচক সাড়া

  • নারায়ণগঞ্জে মান্নার গাড়ি বহরে হামলা, আহত ২০

  • বাফুফে সহসভাপতি নির্বাচনে কাজের মূল্যায়নে কাউন্সিলরদের সমর্থন চান তাবিথ-মহী

  • দাঁতের চিকিৎসা দেন তৃতীয় শ্রেণি পাশ শ্বশুর, সহকারী তার জামাই!

  • রাজধানীতে কিশোর গ্যাং-পারভেজ গ্রুপের ৭ সদস্য গ্রেপ্তার

  • রাজধানীর পাইকারি বাজার থেকে আলু উধাও

  • নির্যাতনে রায়হানের মৃত্যু: ৩ পুলিশ সদস্যের আদালতে জবানবন্দি

  • আলু উৎপাদনে খরচ কমায় 'পটাটো হার্ভেস্টর'

  • মানবদেহে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে করমচা

  • পাঁচ দফার বন্যায় রংপুরে ফসলের ক্ষতি ৩২৫ কোটি টাকা

  • শিগরই ভেঙে দেওয়া হচ্ছে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির কমিটি

  • শিখা থেকে আসছে ইমরানের দুটি বই

  • বান্দরবানে যুবতীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ২

  • দেশে করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু

  • সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের দুই টাকায় পোশাক দিচ্ছে 'যাত্রী ছাউনি'

'পুষ্টি পেতে প্রতিদিন একটা করে ডিম খাওয়ার পরামর্শ'

'পুষ্টি পেতে প্রতিদিন একটা করে ডিম খাওয়ার পরামর্শ'

ডিম তুলনামূলক সস্তা হলেও, সুপারফুড। কেননা ডিমে আছে শিশুদের মস্তিষ্ক গঠনের জন্য অত্যাবশকীয় উপাদান ডিএইচএ। এছাড়াও মানুষের শরীরে উৎপন্ন হয় না, এমন প্রয়োজনীয় ৯টি অ্যামাইনো এসিড আছে ডিমে। তাই গর্ভবতী মা ও শিশু তো বটেই, প্রত্যেক মানুষকে দিনের অন্তত একটি ডিম খাবার পরামর্শ পুষ্টিবিজ্ঞানীদের। এদিকে বাংলাদেশে উৎপাদিত ডিম অনেক বেশী নিরাপদ বলে দাবি পোল্ট্রিশিল্প উদ্যোক্তাদের।

চিকিৎসক মা। সকালের নাস্তায় সন্তানের পাতে শুধু নয়, নিজের পাতেও নিয়েছেন ডিম। পুষ্টিকর কিনা তা না জানলেও মুখোরোচক হওয়ায় আনন্দের সাথে ডিম খাচ্ছেন সন্তানেরাও। চিকিৎসক-অধ্যাপক দম্পতির দাবি, প্রতিদিন একটি ডিম খান তারা। আর সন্তানদের খেতে দেন কমপক্ষে ২টি।  

পুষ্টিবিজ্ঞানীরা বলছেন, মানুষের জন্য প্রয়োজনীয় ২০টি অ্যামাইনো এসিডের ৯টি মানবদেহ উৎপন্ন হয় না। যার চাহিদা মেটে ডিমে। এছাড়াও রয়েছে ভিটামিন ও খনিজ উপাদান, যা গর্ভবতী ও বাড়ন্ত শিশুদের জন্য প্রয়োজনীয়। এ কারণে ডিমকে বলা হয় সুপারফুড। 

তবে কাঁচা বা আধাসিদ্ধ ডিম না থাওয়ার পরামর্শ পুষ্টিবিজ্ঞানীর। বলেন, কাঁচা ডিমে ক্ষতিকর জীবাণু বা রাসায়নিকের উপস্থিতি থাকতে পারে।  যা ধ্বংস করতে ফুটাতে হবে অনন্ত ৭০ থেকে ৮০ ডিগ্রি তাপমাত্রায়। 

তবে পোল্ট্রিশিল্প উদ্যোক্তাদের দাবি, দেশে উৎপাদিত ডিম আগের চেয়ে অনেক বেশি নিরাপদ।  

খাদ্য ও কৃষি সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী সুস্থসবল থাকতে হলে বছরে একজন মানুষকে খেতে হবে কমপক্ষে ১০৪টি ডিম। যা বাড়িয়ে ১৮০টি করা উচিত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর