channel 24

সর্বশেষ

  • করোনার চেয়ে বেশি মানুষ মারা যেতে পারে অনাহারে: অক্সফামের সতর্কতা

  • রংপুরে ৯৩ হাজার হতদরিদ্র পরিবার পায়নি প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার

  • করোনাকালে স্বাস্থ্যখাতের সবচেয়ে বড় দুর্নীতি রিজেন্ট কাণ্ড

  • বাংলাদেশসহ ১৩ দেশের ওপর ইতালির নতুন নিষেধাজ্ঞা

  • নেপালে বন্ধ ভারতের সব টেলিভিশন চ্যানেলের সম্প্রচার

  • চট্টগ্রামে হাসপাতাল বিমুখ রোগীরা

  • দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ ৮ জনের মৃত্যু

  • কোয়ারেন্টিনে ইতালি ফেরত ১৪৭ বাংলাদেশি, রাখা হয়েছে হজ ক্যাম্পে

  • করোনায় মারা গেছেন সাহেদের বাবা

  • সাহারা খাতুন মারা গেছেন

  • পশ্চিমবঙ্গের ক্যান্টনমেন্টে কড়া লকডাউন শুরু

  • ভেঙে ফেলা হচ্ছে স্মৃতি বিজড়িত এফডিসির ৩ ও ৪ নম্বর ফ্লোর

  • ইংল্যান্ডের সাথে টেস্ট সিরিজ বাতিল করতে যাচ্ছে বিসিসিআই

  • বাতিল হচ্ছে ভারত-ইংল্যান্ড ৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ

  • নামিদামি ফার্মেসিতে ভেজাল বিদেশি ওষুধ

কানাডার সাস্কাটুনে বসন্তের ফুল ফুটবে ২৯ ফেব্রুয়ারি

কানাডার সাস্কাটুনে বসন্তের ফুল ফুটবে ২৯ ফেব্রুয়ারি

কানাডার সাস্কাচুয়ান প্রদেশের সবচেয়ে বড় শহর সাস্কাটুনে বসবাসকারী বাংলাদেশিরা ‘বসন্তবরণ ও পিঠামেলা, ২০২০’ নামের অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে আগামী ২৯ ফেব্রুয়ারি বসন্তকে বরণ করতে যাচ্ছেন। তৃতীয়বারের মতো এ বছরও ব্যাপক আয়োজনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি উদযাপিত হবে।

স্থানীয় বেথেলহেম ক্যাথলিক স্কুলের (১১০ বোল্ট ক্রিসেন্ট সাস্কাটুন, কানাডা) বিশাল অডিটোরিয়ামে বসন্তবরণ উৎসব আয়োজন করা হবে। পিঠামেলা শুরু হবে বিকেল চারটায় এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হবে সন্ধ্যা ছয়টায় যা একটানা চলবে রাত ১০টা পর্যন্ত।

কানাডার এই বরফ আচ্ছাদিত শহর সাস্কাটুনে অনেক বাংলাদেশির বসবাস। শহরটি বছরে প্রায় পাঁচ মাস ঘন তুষারে আবৃত থাকে। প্রচণ্ড ঠাণ্ডা আর কর্মব্যস্ত জীবনের ফাঁকে বসন্তবরণের অনুষ্ঠানটি গত কয়েক বছর ধরে এখানের সব ধর্ম-বর্ণের বাংলাদেশিদের প্রাণের উৎসব আর মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। অনুষ্ঠানটি প্রাণভরে উপভোগের জন্য বসবাসকারী বাঙালিরা সারা বছর অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে থাকেন। পিঠামেলার সঙ্গে স্থানীয় ও অতিথি শিল্পীদের অংশগ্রহণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বসন্তবরণ আয়োজনটি অত্যন্ত উপভোগ্য হয়ে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নাচ, গান, ফ্যাশন শো, কৌতুক, আবৃত্তি ইত্যাদিতে ভরপুর থাকবে এই আয়োজন। 

পিঠামেলার জন্য প্রায় ২৫টি স্টল বরাদ্দ করা হয়েছে। সব স্টলে থাকবে স্থানীয় বাঙালিদের তৈরি ঐতিহ্যবাহী পিঠা। ইতিমধ্যে ৫০/৬০ জনের একটি সাংস্কৃতিক দল গঠন করা হয়েছে, যারা নিঃস্বার্থ ও নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন একটি সফল ও মনোজ্ঞ অনুষ্ঠান উপহার দেওয়ার জন্য।

সাস্কাটুনে বাংলাদেশের আবহমানকালের এইসব সামাজিক উৎসবগুলো ধরে রাখার জন্য শত ব্যস্ততার মধ্যেও যারা দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছেন তাদের মধ্যে কবি ও লেখক নুরুল হুদা পলাশ, কবি ও আবৃত্তিকার রহমত মুনশী বকুল, কণ্ঠশিল্পী ফাতেমা শাহীন, মাহবুবা আহসান পুতুল, আরিফুর রহমান, দেবাশীষ ভৌমিক, আশরাফুল আলম, দিলরুবা খান সিলভি, শ্রিজওয়ানা পারভীনসহ আরও অনেকে রয়েছেন।

অনুষ্ঠানের ব্যয়ভার বহনে স্থানীয় বাংলাদেশি ও কিছু কানাডীয় ব্যবসায়ী সংগঠন এবং কমিউনিটিতে বসবাসকারী বাংলাদেশিরা সহায়তা করেন। আয়োজকদের পক্ষে থেকে রেজিনাসহ আশপাশের শহরে বসবাসরত বাংলাদেশিদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর