channel 24

সর্বশেষ

  • পর্যটকদের স্বর্গরাজ্যগুলো আজ জনমানবহীন

  • ক্রমেই অসহায় হয়ে উঠছে বিশ্ব

  • স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা সরঞ্জাম দিলো স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস

  • আকিজ গ্রুপের হাসপাতাল তৈরিতে জনতার ক্ষোভ

  • জনগণকে সচেতন হবার আহ্বান জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ

  • শৈশব থেকেই বলিষ্ঠ নেতৃত্বের অধিকারী ছিলেন বঙ্গবন্ধু

  • স্পেনে আরও ৮৩২ জনের প্রাণহানি

  • কাল থেকে সংসদ টেলিভিশনে শ্রেণী ভিত্তিক পাঠদান চলবে

  • ৭ দিন নিষেধাজ্ঞা বাড়লো বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচলের

  • রাঙ্গামাটিতে জীবাণুনাশক ছিটিয়েছে সেনাবাহিনী

  • ফাঁকা ঢাকা; মানুষের সচেতনতায় কাজ করছে সেনা সদস্যরা

  • শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে স্বাবলম্বী লালমনিরহাটের হাফিজুর

  • 'অর্থনীতি পুনরুদ্ধার প্যাকেজ' বিলে সই করেছেন ট্রাম্প

  • মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নাগরিকের সঙ্গে সম্মানজনক আচরণ করার নির্দেশ

  • বন্ধ হচ্ছে কারখানা; চাকরি হারানোর ঝুঁকিতে ২০ লাখ শ্রমিক

সুপারফুড ডিমের পুষ্টিগুণ

সুপারফুড ডিমের পুষ্টিগুণ

হাড্ডিমা ডিম ডিম, সাদা খোলের ভেতর ক্রিম, ডিমের গুণ অপরিসীম। অতনু দত্তের এই কবিতার লাইন শুনে নিশ্চয়ই আপনার বুঝতে পেরেছেন আমরা আপনাদের জানাবো ডিমের পুষ্টিগুণ। মানুষের জন্য যত পুষ্টি দরকার তার সবই আছে এই ডিমে। তাই বিজ্ঞানীরা ডিমকে বলছে সুপারফুড।

ডিম আগে না মুরগী আগে, এটা নিয়ে মানুষের মাঝে তর্কের শেষ না হলেও মুরগির মাংসের চেয়ে ডিমে রয়েছে বেশী পুষ্টি।

আদর্শ খাদ্য ডিম নিয়ে রয়েছে মাতামাতি। কারো পছন্দ মামলেট, কারো আবার ওমলেট, কেউ ডিম দিয়ে বানান চপ, খাবার পাতে কেউ চান ডিম ভুনা। তবে কেক  কিংবা পুডিং সবখানেই চাই ডিম।

গবেষণা বলছে, ডিমে রয়েছে ক্যালোরি, প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন 'এ', ভিটামিন বি ২, সায়ানো কোবেলামিন, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, কোলেস্টেরল, ফোলেট, সোডিয়াম, ক্যালসিয়াম, জিংক, কোলাইন, সেলেনিয়াম ও আয়রন।

গবেষকরা বলছে, স্বাদে সেরা ডিমের ফলিক এসিড, গর্ভাবস্থায় থাকা শিশুর জন্মগত রোগ স্পাইনা বাইফিডাকে করে প্রতিরোধ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডিমে ওমেগা ৩ ফ্যাট, ডেকাসোহেক্সানয়িক এসিড, যা মস্তিস্কের বিকাশ, রক্তের কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রন এবং দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে দারুণ সহায়ক ।

ডিমের লুটেইন এবং জিয়াজ্যানথিন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রেটিনাকে রাখে‍ সুস্থ। ভিটামিন এ এবং সায়ানোকোবেলামিন মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

যারা শরীরচর্চা করেন, তারাও ডিম খেতে পারেন নিয়মিত। কেননা, ডিমে থাকা প্রোটিন, মানবদেহের টিস্যুকে করে মেরামত এবং শক্তিশালী করে মাংসপেশীকে।

পুষ্টিবিজ্ঞানী মনিরুল ইসলাম বলেন, 'ডিম হচ্ছে একটা সুপারফুড। এতো অল্প পয়সায় এতো পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার আর পাওয়া যায় না। ডিম শিশুদের মস্তিষ্ক গঠনে সহায়ক। এজন্য দুই বছর থেকে প্রত্যেক বাচ্চাকে নিয়ম করে ডিম খাওয়ানো উচিত। যাদের উচ্চরক্ত চাপ নাই, তারা অনায়াসে তিনটি করে ডিম খেতে পারেন, তাতে কোন সমস্যা নাই।'

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর