channel 24

সর্বশেষ

  • নোয়াবের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় এ কে আজাদকে ফুলেল শুভেচ্ছা

  • চট্টগ্রামে রেলক্রসিংয়ে দুর্ঘটনার জন্য বাস চালক দায়ী: তদন্ত কমিটি

  • বিয়ের আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন

  • চাকরি দিচ্ছে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ

  • অ স্ত্র প্রতিযোগিতা নয়, শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়তে সম্পদ ব্যবহার করুন: প্রধানমন্ত্রী

  • নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা দিনের পর দিন চলতে পারে না: নির্বাচন কমিশনার

  • পেগাসাস স্পাইওয়্যারের কার্যক্রম বন্ধে হাইকোর্টের রুল

  • ভাইকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেল যুবক

  • স্বাস্থ্য সচিব-ডিজির বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল

  • নৌকার মনোনয়ন পাওয়ায় চেয়ারম্যানের ছেলের হাতবোমা বিস্ফোরণ করে উল্লাস

  • অর্থপাচারকারীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরিতে আইনের সংশোধন চায় দুদক

  • ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’: সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

  • পুলিশ হেফাজত থেকে পালাল রোহিঙ্গা কালাম

  • বিমানবন্দরে আটকে দেয়া হলো জ্যাকুলিনকে

  • দেশের অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে অবদান রাখছে নাভানা গ্রুপ

নির্দোষ আফগানকে ১৪ বছর কুখ্যাত গুয়ান্তানামোয় আটকে রাখে যুক্তরাষ্ট্র

নির্দোষ আফগানকে ১৪ বছর কুখ্যাত গুয়ান্তানামোয় আটকে রাখে যুক্তরাষ্ট্র

বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ংকর কারাগার হিসেবে বিবেচনা করা হয় গুয়ান্তানামো বে কারাগারকে। সেই কারাগারে ১৪ বছর ধরে এক নির্দোষ আফগান নাগরিককে আটকে রেখেছিল যুক্তরাষ্ট্র। অবশেষে ওই নাগরিকের আটকাদেশ অবৈধ ঘোষণা করেছে মার্কিন ফেডারেল আদালত। খবর আলজাজিরার।

নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, মার্কিন জেলা জজ আদালতের বিচারক অমিত মেহতা শুনানিতে বলেছেন, আফগান নাগরিক আব্দুল্লাহ হারুন গুল যেহেতু আল-কায়েদা সন্ত্রাসীগোষ্ঠীর কোনো অংশ ছিলেন না, সে কারণে আমেরিকা তাকে গুয়ান্তানামো কারাগারে বন্দি রাখতে পারে না।

আবদুল্লাহ হারুন গুলকে ২০০৭ সালের জুনে আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় জালালাবাদ শহর থেকে সন্ত্রাসী বলে আটক করা হয়। কিন্তু আল-কায়েদা অথবা এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কোনো গোষ্ঠীর সঙ্গে আব্দুল্লাহ হারুন গুলের কোনো সম্পর্ক পাওয়া যায়নি। এই কারণে মার্কিন বিচারক অমিত মেহতা আফগান এ নাগরিকের আটকাদেশকে অবৈধ ঘোষণা করেছে।

তবে খুব শিগগিরই আব্দুল্লাহ হারুন গুল মুক্তি পাচ্ছেন না। আফগান বন্দির আইনজীবী জানিয়েছেন, আদালতের এই রুলিংয়ের অর্থ হচ্ছে শুধুই আবদুল্লাহ হারুন গুলের আটকাদেশকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। 

আইনজীবী তারা প্লোচোকি বলেন, মার্কিন সরকারের উচিত আদালতের এই রুলিংকে আমলে নিয়ে তা বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা, তাকে অবশ্যই মুক্তি দেয়া উচিত। আদালতের এই রুলিংয়ের মধ্যদিয়ে আইনের শাসনের ঐতিহাসিক বিজয় হয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

এই রুলিংয়ের মাধ্যমে একথাও পরিষ্কার করে দেয়া হয়েছে যে, ন্যাশনাল সিকিউরিটি আইনের নামে মার্কিন সরকার যা করেছে তার মধ্যে অনেক বাড়াবাড়ি ছিল।

টি

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর