channel 24

সর্বশেষ

  • চুরি করতে গিয়ে নুরুল দম্পতিকে হত্যা করে রিকশা চালক: পিবিআই

  • স্বপ্নের পায়রা সেতু উদ্বোধন আজ

  • বাবরদের ভারত বধের টোটকা দিয়েছেন ইমরান খান

  • মুহিবুল্লাহ হত্যা: আদালতে আজিজুলের স্বীকারোক্তি

  • প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি পোস্ট ফেসবুকে শেয়ার, ক‌লেজ শিক্ষক আটক

  • নিয়ন্ত্রণে বাড্ডার আগুন

  • আপেল যখন বিপদের কারণ!

  • হজমের সমস্যা সমাধানের কার্যকরী ৬ উপায়

  • অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে নারী উদ্যেক্তারা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন

  • নাটক-সিরিয়ালে ‘আলিঙ্গন’ নিষিদ্ধ করলো পাকিস্তান

  • ড. সমীর কুমার সাহাকে বিজ্ঞান সম্মাননা দিয়েছে পথিকৃৎ ফাউন্ডেশন

  • নীরব ঘাতক কিডনি রোগ: প্রতিকার ও করণীয় (ভিডিও)

  • ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিক-শ্রমিক

  • ডেঙ্গুতে ২৪ ঘণ্টায় ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ১৮৯

সৌদি আরবে যেসব নাম রাখা নিষিদ্ধ

সৌদি আরবে যেসব নাম রাখা নিষিদ্ধ

রক্ষণশীল দেশ সৌদি আরবে বিভিন্ন ধরনের বিধিনিষেধ রয়েছে। নাম রাখার ক্ষেত্রেও দেশটির কর্তৃপক্ষের কড়াকড়ি রয়েছে। তাই দেশটিতে লিন্ডা, লরেন, স্যান্ডি এবং আমিরের মতো নাম রাখা নিষেধ। ডেইলি মেইল ও ইকোনমিস্টের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

এসব নাম নিষিদ্ধ করার ব্যাপারে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিজস্ব যুক্তিও আছে। তাদের ভাষ্যমতে, এসব নাম সৌদির সংস্কৃতি বা ধর্মের সঙ্গে যায় না বা এগুলো বিদেশি বা বেমানান।

এই তালিকায় রয়েছে অ্যালিস, এলেইন ও মায়া এবং বিনিয়ামিন (বেঞ্জামিনের আরবি নাম)।

নিষিদ্ধ নামকে তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। কিছু নাম ধর্মীয়ভাবে স্পর্শকাতর, কিছু নাম সৌদি রাজপরিবারের সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং আর কিছু নাম আরবি নয় অথবা ইসলামি নয়।

তবে আরও কিছু নাম আছে, যেগুলো এই তিন ক্যাটাগরিতে পড়ে না। তারপরও সেসব নামকে কেন নিষিদ্ধ করা হয়েছে, তা স্পষ্ট নয়।

আব্দুল নাসের ও বিনিয়ামিন নামটি মুসলিমদের কাছে অপমানজনক না হলেও সৌদি আরবে এই দুটি নাম রাখা নিষেধ। ইসলামি ধর্মবিশ্বাস মতে, নবী ইয়াকুব (আ.) এর ছেলের নাম বিনিয়ামিন। তিনি নবী ইউসুফ (আ.) এর ভাই। কিন্তু কিছুদিন আগ পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকা ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নামও ছিল বিনিয়ামিন।

আবার আব্দুল নাসের মিশরের খুব জনপ্রিয় আরব জাতীয়তাবাদী নেতা ছিলেন। কিন্তু সৌদি আরবের সঙ্গে তার সম্পর্ক ভালো ছিল না।

শিয়া এবং কিছু সুন্নী আরবদের মধ্যে আব্দুল নবী এবং আব্দুল হুসেইন নাম রাখার প্রচলন রয়েছে। কিন্তু এসব নাম বিভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করা যায় বলে এসব নাম বিতর্কিত।

আরবিতে আব্দুল নামের অর্থ হচ্ছে ‘প্রার্থনাকারী’ বা ‘গোলাম’ আর নবী নামের অর্থ ‘নবী’ এবং রাসুল অর্থ ‘বার্তাবাহক’। যারা এসব নামের বিরোধিতা করে, তাদের যুক্তি হচ্ছে, কেবল আল্লাহরই ইবাদত করা যায়, তাই অন্য কোনো নামের সঙ্গে আব্দুল ব্যবহার করা যাবে না।

যেসব বাবা-মা তাদের সন্তানের নাম আব্দুল রাখেন, তার সঙ্গে আল্লাহ তায়লার ৯৯টি নামের কোনো একটি জুড়ে দেন। যেমন-আব্দুল রহমান, এই নামটি এসেছে আল্লাহর আল রহমান নাম থেকে।

আরও কিছু নাম আছে, যেগুলো রাজপরিবারের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় নিষিদ্ধ। যেমন- সুমৌ (মহামান্য), মালেক (রাজা) এবং মালিকা (রানি) এবং আল মামলাকা (রাজত্ব)।

তবে নিষিদ্ধের এই তালিকায় থাকা কিছু নাম কিন্তু মুসলিমদের কাছে অপরিচিত নয়। যেমন- মালাক (ফেরেশতা), আমির (প্রিন্স), আব্দুল নাসের এবং জিবরিল (গ্যাব্রিয়েল)।

এইউ

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর