channel 24

সর্বশেষ

  • গুনে গুনে পাঁচ গোল হজম করল বায়ার্ন মিউনিখ

  • আরিয়ান-কাণ্ডে নতুন মোড়: অন্যতম সাক্ষী কিরণ গোসাভি আটক

  • প্রেমে ব্যর্থ হয়েই সুমাইয়াকে খু ন করে মনির

  • স্ত্রীর ইচ্ছাপূরণে ১৯ লাখ টাকার গহনা দান করে দিলেন স্বামী

  • পাটুরিয়ায় কাত হয়ে যাওয়া ফেরির উদ্ধারকাজ ফের শুরু

  • দৌলতখানে নৌকা সমর্থিত প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুর

  • একই রাতে হোঁচট খেল বার্সা-রিয়াল

  • কলকাতায় ‘বঙ্গবন্ধু সংবাদ কেন্দ্র’ উদ্বোধন করবেন তথ্যমন্ত্রী

  • সাম্প্রদায়িক হামলায় অস্ট্রেলিয়ায় প্রবাসীদের মানববন্ধন

  • রামেকে ক রো না য় ৫ জনের প্রাণহানি

  • বাংলাদেশকে আরও ৩৫ লাখ ফাইজারের টিকা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

  • বিশিষ্ট সমাজসেবী আনোয়ারা বেগমের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী আজ

  • কোম্যানকে বরখাস্ত করল বার্সেলোনা

  • স্ত্রীর মামলায় ব্যাংক কর্মকর্তা কারাগারে

  • মাংস নিয়ে মারামারি; বিয়ের আসরে তালাক, পালিয়ে বিয়ে সেই বর-কনের

দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতে ‘আগ্রহী’ উত্তর কোরিয়া

দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতে ‘আগ্রহী’ উত্তর কোরিয়া

উত্তর কোরিয়ার নেতার বোন কিম ইয়ো জং বলেছেন, দুই দেশের মধ্যে পারস্পরিক ‘শ্রদ্ধা’ এবং ‘নিরপেক্ষতা’ নিশ্চিত করা গেলে আরেকটি আন্ত-কোরিয়ান শীর্ষ সম্মেলনে আলোচনায় বসার চিন্তাভাবনা করে দেখবে পিয়ংইয়ং। শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) কিম ইয়ো জং’র এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়। গত দুইদিনের মধ্যে এটি এ সংক্রান্ত দ্বিতীয় বিবৃতি। আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইন উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষণার আহ্বান জানানোর পর কিম ইয়ো জং পিয়ংইয়ংয়ের প্রতি ‘বৈরী নীতি’ বন্ধ করতে শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সিউলের প্রতি আহ্বান জানান। ১৯৫০ শুরু হওয়া কোরিয়ান যুদ্ধ ১৯৫৩ সালে কোনও শান্তিচুক্তি ছাড়াই সামরিকভাবে শেষ হয়। তাই মার্কিন নেতৃত্বাধীন দক্ষিণ কোরিয়ার বাহিনীর সঙ্গে এখনও ‘কার্যত’ যুদ্ধে জড়িত রয়েছে উত্তর কোরিয়া।

কয়েক দশক ধরেই এই যুদ্ধ অবসানের জন্য আহ্বান জানিয়ে আসছে পিয়ংইয়ং। কিন্তু তাদের দাবি মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটি বলছে, উত্তর কোরিয়া তার পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি প্রত্যাহারের পরই এ ব্যাপারে সম্মত হবে ওয়াশিংটন।

কিম ইয়ো জং’য়ের বরাত দিয়ে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ জানায়, আমি মনে করি শুধু যখন নিরপেক্ষতা এবং একে অপরকে সম্মান করার মনোভাব বজায় থাকবে তখনই উত্তর এবং দক্ষিণের মধ্যে সুন্দর বোঝাপড়া হতে পারে। তিনি আরও বলেন, ‘গঠনমূলক আলোচনার মাধ্যমে’ একটি সম্মেলন এবং যুদ্ধের অবসানের ঘোষণা নিয়ে কথা হতে পারে।

এইউ

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর