channel 24

সর্বশেষ

  • প্রবাসী আয়ে প্রণোদনা দ্বিগুণের প্রস্তাব

  • নেপালে ভয়াবহ আকারে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

  • হতদরিদ্রদের মাঝে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঈদ উপহার বিতরণ

  • পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ১৬ জন নিহত

  • আইপিএল মাঠে ফেরাতে উঠেপড়ে লেগেছে বিসিসিআই

  • শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অনিশ্চিত কোয়ারেন্টিনে থাকা সাকিব-মোস্তাফিজ

  • অনিশ্চয়তায় বসুন্ধরা কিংসের এএফসি কাপ অভিযান

  • মেয়াদের শেষ দিনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শতাধিক নিয়োগ উপাচার্যের

  • শর্তের বেড়াজালে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা

  • করোনায় আরও ৪১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৮২২

  • ২২ দিন পর রাজধানীতে চালু হলো বাস

  • ঈদ বাজারে উপেক্ষিত সামাজিক দুরত্ব

  • স্থগিত হতে পারে এএফসি কাপ

  • বরিশালে ভাসমান মানুষকে এক বেলা খাবার দিচ্ছেন গণমাধ্যমকর্মীরা

  • গ্রাহক সেবা নিশ্চিতে সচেতন বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কতৃপক্ষ

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘের প্রস্তাবে ভোট দেয়নি ভারত, বিপক্ষে চীন ও রাশিয়া

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘের প্রস্তাবে ভোট দেয়নি ভারত, বিপক্ষে চীন ও রাশিয়া

রোহিঙ্গাদের নিরাপদে মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন, তাদের নাগরিকত্ব সমস্যার সমাধানের সুপারিশ করে জাতিসংঘে একটি রেজুলেশন গৃহিত হয়েছে। সাধারণ পরিষদের তৃতীয় কমিটিতে বুধবার ১৩২ ভোটে এটি পাস হয়। এ প্রস্তাবে রোহিঙ্গা হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়।

মুসলিম দেশগুলোর জোট ওআইসি এবং ইউরোপীয় ই্‌উনিয়ন-ইইউ যৌথভাবে এ রেজোলুশন উত্থাপন করে। যাতে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছে ১০৪ দেশ। রেজুলেশনটির পক্ষে ভোট দেয় ১৩২ দেশ, বিপক্ষে ভোট দিয়েছে ৯ দেশ। আর ভোট দানে বিরত থাকে ৩১ দেশ।

প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দেওয়া দেশগুলো হলো— রাশিয়া, চীন, মিয়ানমার, বেলারুশ, কম্বোডিয়া, ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম, জিম্বাবুয়ে ও লাওস। ভোট না দেওয়া দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে— প্রতিবেশী ভারত, সার্কভুক্ত দেশ নেপাল ও শ্রীলঙ্কা।

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ১০ লাখ রোহিঙ্গার নিরাপদ প্রত্যাবর্তনই এ সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধান।

তিনি বলেন, এবারের প্রস্তাবটিতে আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতের সাময়িক আদেশ, আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালতের তদন্ত শুরুর বিষয় এবং রোহিঙ্গা ও অন্যান্য সংখ্যালঘুদের মিয়ানমারের জাতীয় নির্বাচনসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে অব্যাহতভাবে বঞ্চিত করার মতো নতুন বিষয়গুলো উঠে এসেছে।

জাতিসংঘে কানাডার রাষ্ট্রদূত বব রে বলেন, অনেকেই মনে করেন রোহিঙ্গারা কণ্ঠস্বরহীন, এটা সত্য নয়। রোহিঙ্গাদের কথা অনেকেই অবজ্ঞা করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

প্রস্তাবটিতে মিয়ানমারকে সুনির্দিষ্ট কিছু বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্যও আহ্বান জানানো হয়েছে। বিষয়গুলো হলো—রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রদানসহ সমস্যাটির মূল কারণ খুঁজে বের করা, প্রত্যাবর্তনের উপযোগী পরিবেশ তৈরি করে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও টেকসই প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করা, প্রত্যাবর্তনের ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধির পদক্ষেপ হিসেবে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের জবাবদিহি নিশ্চিত করা।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক খবর